সহকর্মীকে পছন্দ করায় হত্যা করা হয় ফাহিমকে!

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার কাশিপুরে অবস্থিত রূপাইয়া হোসিয়ারি কারখানায় সহকর্মীকে পছন্দ করায় ফাহিমকে পিটিয়ে হত্যা করেছে একই কারখানার শ্রমিক সোহান ওরফে সোহাগ। হত্যার পর ভেতরে লাশ রেখে কারখানাটির দরজায় তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায় সোহাগ ও তার ভাতিজা সহকর্মী ইউসুফ। হত্যাকাণ্ডের ৪ মাস পর ওই কারখানার শ্রমিক সোহান ওরফে সোহাগকে (২০) গ্রেফতারের পর বেরিয়ে এসেছে এ ঘটনা।

রোববার দুপুরে ফতুল্লার সাইনবোর্ড এলাকায় অবস্থিত পুলিশের বিশেষায়িত ইউনিট পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) নারায়ণগঞ্জ ইউনিট অফিসে সংবাদ সম্মেলন করে এর সত্যতা নিশ্চিত করা হয়।

পিবিআই ইউনিটের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সোহাগ জানিয়েছে, প্রতিষ্ঠানের মালিক রাশেদ শিকদারের শ্যালক ফাহিম তার সঙ্গে মালিকসুলভ আচরণ করত। একইসঙ্গে ফাহিম ও সোহাগ উভয়ই কারখানার এক নারী সহকর্মীকে পছন্দ করা নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। এ নিয়ে ফাহিমকে হত্যা করা হয়।

এর সত্যতা নিশ্চিত করে পিবিআই নারায়ণগঞ্জ ইউনিটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শম্পা ইয়াসমীন জানান, রাশেদ শিকদারের মালিকানাধীন ফতুল্লার কাশিপুর এলাকায় অবস্থিত রূপাইয়া হোসিয়ারী কারখানায় মার্কেটিং অফিসার হিসাবে কর্মরত ছিলেন ফাহিম (২৪)। সম্পর্কে ফাহিমের ভগ্নিপতি কারখানার মালিক রাশেদ শিকদার। এছাড়া ফাহিম মুন্সিগঞ্জ জেলার কাগজীপাড়া এলাকার ইলিয়াস মিয়ার ছেলে।

তিনি আরো জানান, গত ১৯ মার্চ কারখানার ভেতরে ফাহিমকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যার পর কারখানাটির দরজায় তালাবদ্ধ করে পালিয়ে যায় শ্রমিক সোহান ওরফে সোহাগ ও তার ভাতিজা সহকর্মী ইউসুফ। সোহাগ ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও থানার চরমছলন্দ দেওয়ানগঞ্জ সরদার বাড়ির বোরহান সরদারের ছেলে।

তিনি জানান, শনিবার বিকেলে এ মামলার তদন্তকারী অফিসার পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) শাহীনূর আলম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে দেওয়ানগঞ্জ সরদার বাড়ি থেকে সোহাগকে গ্রেফতার করেছে।

দেশবিদেশ

Leave a Reply