শিশু গনধর্ষনের ঘটনায় অবশেষে থানায় মামলা

শরীয়তপুরে শিশু গনধর্ষনের ঘটনায় অবশেষে থানায় মামলা শরীয়তপুরের কোয়ারপুর তেতুলিয়া এলাকায় এক শিশু গনধর্ষনের ঘটনায় পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে গড়িমসি করলে ও অবশেষে পালং মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সংবাদ লেখা পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। ধর্ষিতা এখনো শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পালং মডেল থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, শরীয়তপুর সদর উপজেলার ডোমসার ইউনিয়নের কোয়ারপুর তেতুলিয়া গ্রামে নানি বাড়ি বেড়াতে এসে গত শুক্রবার রাতে ৮ম শ্রেণীতে পড়–য়া এক স্কুল ছাত্রি গনধর্ষনের শিকার হয়। এরপর তার বাবা ও আতœীয় স্বজনেরা পালং মডেল থানায় মামলা করতে আসলে থানা কতৃপক্ষ মামলা নিতে গড়িমসি করেছে বলে অভিযোগ করে ধর্ষিতার স্বজনেরা ।

এরপর বিষয়টি জানাজানি হলে সাংবাদিকরা সেখানে গিয়ে ভুক্তভোগীর সঙ্গে কথা বলে স্থানীয় প্রশাসনের উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের গোচরে আনে। এরপর পালং মডেল থানা রোববার বিকেল মামলা নেয়। মামলায় ধর্ষিতার মামা শওকত কাজী বাদী হয়ে তেতুলিয়া গ্রামের শাহ আলম ফকিরের ছেলে খোরশেদ ফকির ও তার দুই সহযোগী রাসেদ হাওলাদার ও দিপু ছৈয়াল কে আসামী করে এজাহার দাখিল করে। এরপূর্বে ধর্ষিতার বাবা মান্নান সরদার ও ধর্ষিতার মামা শওকত কাজী শনিবার রাতে ও রোববার সকালে পালং মডেল থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ তাদের মামলা নিতে গড়িমসি করেছে বলে জানায় ধর্ষিতার স্বজনেরা। পুলিশ কখনো বলেছে মেয়েটিকে চিকিৎসার পরে মামলা করতে আসতে। আবার কখনো বলেছে ওসি স্যার নেই সে আসলে আসতে।

এ নিয়ে এলাকায় ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। ধর্ষিতার বাড়ি পার্শ্ববর্তী মুন্সিগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার বালাসুর বাগানবাড়ি গ্রামে । তার বাবার নাম আঃ মান্নান সরদার । তার মা বিদেশে (দুবাই) থাকার কারনে সে দীর্ঘদিন যাবত নানি বাড়ি থাকে। এ সুযোগে শরীয়তপুর সদর উপজেলার কোয়ারপুর তেতুলিয়া গ্রামের প্রতিবেশী শাহ আলম ফকিরের ছেলে খোরশেদ ফকির এ মেয়েকে মাঝে মধ্যে কু-প্র¯তাব দেয়। মেয়ে প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় সে ক্ষিপ্ত হয়। গত শুক্রবার রাত অনুমান সাড়ে ৯টায় মেয়েটি নানি বাড়ির ঘর থেকে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘরের বের হয়।

হঠাৎ করে খোরশেদ ফকির এবং দিপু সহ তার দুই সহযোগী মেয়েটিকে মুখ চেপে ধরে গামছা দিয়ে মুখ বেধে পার্শ্ববতী ইটের ভাটায় (নির্জন স্থানে) নিয়ে পালাক্রমে গনধর্ষন করে পালিয়ে যায়। দীর্ঘ সময় মেয়েটি ঘরে না ফেরার কারনে আতœীয় স্বজনেরা তাকে আশে পাশে খুজতে থাকে। খুজতে খুজতে এক পর্যায়ে রাত অনুমান ১২টায় পার্শ্ববতী রাজগঞ্জ মোড়ে ইটের ভাটার নিকট গেলে মেয়েটি লোকজনের টের পেয়ে দৌড়ে তাদের কাছে আসে। তারা মেয়েটিকে উদ্ধার করে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। শনিবার রাত অনুমান ৮টায় বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করে। সেখানে পালং মডেল থানার উপ-পরিদর্শক সেক নজরুল ইসলাম উপস্থিত হয় । ছেলের বাবা শাহ আলম ফকির দরবারে পুলিশ উপস্থিত হয়েছে টের পেয়ে চলে যায়। এ কারনে ঐ দিন বিষয়টি রফাদফা করতে ব্যর্থ হয়। রফাদফায় ব্যর্থ হওয়ার পর বিষয়টি ধামা চাপা পড়ে যায়। ঘটনার পর থেকে খোরশেদ ফকির পলাতক রয়েছে।

মেয়ের মামা মামসলার বাদী শওকত কাজি বলেন, আমার ভাগ্নিকে খোরশেদ ফকির ও তার সহযোগিরা সর্বনাশ করেছে। আমি রোববার বিকেলে মামলা করেছি। পুলিশ এখনো আসামীদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

পালং মডেল থানার ওসি মোঃ খলিলুর রহমান বলেন, এ বিষয়ে ৩ জনকে আসামী করে থানায় মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। এখনো কোন আসামী গ্রেফতার হয়নি।

এনবিএস

Leave a Reply