“পয়সা” জাপানি ইয়েনের গ্রাম

মোজাম্মেল হোসেন সজল: মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার বৌলতলী ইউনিয়নের একটি গ্রামের নাম পয়সা। গ্রামটি জাপানি পয়সার। অর্থাৎ ইয়েনের। পয়সা গ্রামের প্রায় প্রতিবাড়ি থেকেই একাধিক সদস্য জাপানে থাকেন। একই ইউনিয়নের মাইজগাঁও, শুরপাড়াসহ কয়েকটি গ্রামের লোকজনও থাকেন জাপানে। কিন্তু পয়সা গ্রামের লোকজনই বেশি পরিমাণে থাকেন জাপানে। আর এই কারণে লৌহজং উপজেলাবাসীর কাছে পয়সা গ্রামটি পরিচিত পেয়েছে জাপানি গ্রাম হিসেবে। তবে, দিনদিন জাপান প্রবাসীর সংখ্যা কমে আসছে। ১৯৯৫ সালের ভয়াবহ টনের্ডো পয়সা-মাইজগাঁও গ্রামকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়। নিহত হয় ১০ জন। জাপানি প্রবাসীদের অর্থায়নে কিছুদিনের মধ্যে আবার ঘুরে দাঁড়ায় গ্রামটি। পয়সা-মাইজগাঁও গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়ি তৈরি হয়েছে জাপানি মুদ্রায়। বসতবাড়িগুলো ব্যয়বহুল। চোখে তাক লাগায়।

পয়সা-মাইজগাঁও গ্রামে জন্ম নেয়া গ্রামটি উজ্জ্বল ও আলোকিত করে রেখেছেন কালেরকণ্ঠের সম্পাদক, সাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন এবং এশিয়ান হকি ফেডারেশনের কার্যকরী পরিষদের পরিচালক, বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের সহ-সভাপতি ও ঊষা ক্রীড়া চক্রের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ সিকদার। ১৯৮৭ সালে এই পয়সা-মাইজগাঁও থেকে প্রথম জাপানে যান ফারুক বেপারি ও মালেক সারেং। এরপর ফারুক বেপারি, আহসান, মোজাফ্‌ফর কাজী, বাদল চাকলাদার, বাবুল শেখ ও মালেক সারেং-এর সহযোগিতায় ৫০-৬০ হাজার টাকা খরচায় লোকজন জাপানে যাওয়া শুরু করেন। পয়সা-মাইজগাঁওসহ বৌলতলী ইউনিয়নের প্রায় কয়েকটি গ্রামের ৩-৪ হাজার লোক জাপানে যায়। অনেকের মতে, যে লোক কোনো দিন ঢাকা যাননি, সেও জাপান গিয়েছেন।

এক পরিবারের ৫-৮ সদস্য জাপান গিয়েছেন। ৯২ সালের পর জাপান সরকারের শর্ত ও ধরপাকড়ের কারণে অনেকে দেশে চলে আসেন। এখনও বৌলতলী ইউনিয়নের প্রায় ৪-৫ শতাধিক লোক জাপানে আছেন। এর মধ্যে পয়সা গ্রামেরই রয়েছে প্রায় শতাধিক লোক। আবার অনেকের সঙ্গে রয়েছেন স্ত্রী-সন্তানও। বাকিরা কেউ দেশে ফিরে ব্যবসা করছেন, আবার অনেকে কুরিয়া, ইতালি, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন দেশে বসবাস করছেন। প্রবাসীদের অর্থায়নে অজো গ্রামের চেহারা পাল্টে গেছে। গ্রামে গড়ে উঠেছে তাক লাগানো সুন্দর সুন্দর বাড়ি। তবে, এসব বাড়িতে কেউ থাকেন না, এমনকি আত্মীয়স্বজনরাও। কোনো কোনো বাড়ি তালাবদ্ধ, কোনো বাড়ি কেয়ারটেকার নয়তো দূরসম্পর্কের আত্মীয়রা দেখাশুনা করছেন। বাড়ির মালিকরা সবাই বসবাস করেন ঢাকায়। জাপানে ফিরে যাননি এমন অনেকেই ঢাকার সদরঘাট, ইসলামপুরসহ বিভিন্ন স্থানে ব্যবসা করছেন। ওদিকে, প্রবাসীদের পাঠানো অর্থ থেকেও সরকার এক বিশাল রাজস্ব পাচ্ছেন।

এদিকে, পয়সা-মাইজগাঁও, ধারারহাট, শুরপাড়া, শাসনগাঁও, বৌলতলী, নওপাড়াসহ বৌলতলী ইউনিয়নের এগারোটি গ্রামে জাপানিসহ বিভিন্ন দেশে থাকা প্রবাসীরা আর্থিক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। জাপানি ও স্থানীয়দের ব্যক্তিগত আর্থিক সহায়তায় পয়সা গ্রামে একটি উচ্চ বিদ্যালয়, আলিয়া মাদরাসা, কয়েকটি মসজিদ, ঈদগাহ, শহীদ মিনার হয়েছে।

এদিকে, জাপানি প্রবাসীরা সংগঠনের মাধ্যমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মাদরাসা ছাড়াও এতিম ও দরিদ্র ছাত্র-ছাত্রী ও বিয়েশাদীসহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডে আর্থিক সহযোগিতা করছেন বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এ পর্যন্ত জাপানে বসে টেলিফোনে বিয়ে করেছেন অন্তত ৫০ যুবক। বিয়ের পর অনেক বধূ জাপানে।

পয়সা গ্রামের নূর হোসেন মোল্লা ওরফে সাধু মোল্লা জানালেন, তিনি সাড়ে ১০ বছর জাপানে ছিলেন, এখন তিনি ঢাকার সদরঘাটে থান কাপড়ের ব্যবসা করেন। তারা ৭ ভাইয়ের মধ্যে ৫ ভাই জাপানে গিয়েছেন। মেঝো ভাই মুক্তার হোসেন মোল্লা টেলিফোনে বিয়ে করেছেন। পরে নববধূকে নিয়ে গেছেন জাপানে। সেখানে তিনি ২১-২২ বছর ধরে বসবাস করছেন।

বৌলতলী ইউনিয়ন যুব শান্তি সংঘ ও মুন্সীগঞ্জ-বিক্রমপুর লেখক ফোরামের সাংগঠনিক সম্পাদক তাজুল ইসলাম রাকীব বলেন, বৌলতলী ইউনিয়নকে আদর্শ ইউনিয়ন হিসেবে গড়ে তুলতে জাপান প্রবাসী ভাইদের ত্যাগ ও সাহায্য সহযোগিতা অনস্বীকার্য। মূলত অর্থনৈতিক চাকা সচল ও গতিশীল করেছেন জাপান প্রবাসী ভাইয়েরা।
পয়সা গ্রামের সাবেক মহিলা মেম্বার মোসাম্মৎ বানেছা বেগম জানান, ১৯৯৫ সালের ঘূর্ণিঝড়ে লণ্ডভণ্ড হয়ে যাওয়া পয়সা গ্রামের ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য-সহযোগিতা করেছেন জাপান প্রবাসীরা। এ ছাড়া, এলাকার স্কুল, মাদরাসা, মসজিদ, দরিদ্রদের বিয়েসহ নানা সামাজিক কাজে আর্থিক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

পয়সা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আনোয়ারুল ইসলাম জানিয়েছেন, পয়সা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র ও জাপান প্রবাসীরা বিদ্যালয়ের উন্নয়নের জন্য সহযোগিতা করছেন। তাদের সহযোগিতায় পয়সা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষা ও ভৌত অবকাঠামোর যথেষ্ট উন্নয়ন হচ্ছে। বৌলতলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হাজী আব্দুল মালেক সিকদার জানিয়েছেন, জাপানি প্রবাসীরা পয়সা উচ্চ বিদ্যালয়, পয়সা কারামাতিয়া ইসলামিয়া সিনিয়র মাদরাসাসহ ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জাপান প্রবাসীরা বৈদেশিক মুদ্রা পাঠাচ্ছেন এবং তাদের টাকা দিয়ে নতুন নতুন ভবন হচ্ছে। জাপানে যারা আছেন, তারা বিভিন্ন সংগঠনের সঙ্গে জড়িত এবং তাদের সংগঠনের মাধ্যমেই বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আর্থিক সহযোগিতা করে যাচ্ছেন।

মানবজমিন

Leave a Reply