মুন্সীগঞ্জে চিকুনগুনিয়া আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে

মুন্সীগঞ্জে শিক্ষক, পুলিশ, সাংবাদিক থেকে শুরু করে বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়ছে। আক্রান্ত রোগীরা হাসপাতালে এসে চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপত্র নিয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। সরকারি হিসেব মতে, গত ১৫-১৬ দিনের ব্যবধানে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ৪২ জন চিকুনগুনিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসা নিয়েছেন। আবার অনেকে হাসপাতালে না এসে অন্যত্র চিকিৎসা নিচ্ছেন। মুন্সীগঞ্জ সিভিল সার্জন জানিয়েছেন, চিকুনগুনিয়ায় কেউ মুন্সীগঞ্জে আক্রান্ত হননি।

এদিকে, প্রতিদিন দুই-একজন করে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত রোগী মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে এসে চিকিৎসা নিচ্ছেন। চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্তদের জন্য মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আলাদা রেজিস্ট্রার খাতা খোলা হয়েছে। এ পর্যন্ত মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত ৪২ জন রোগী চিকিৎসা নিয়েছেন। এরমধ্যে ১২-১৩ জনের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন গ্রামে। এসব রোগীর কেউই পুরোপুরি সুস্থ হননি। চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্তদের কেউ কেউ জানিয়েছেন, গত এক বছরেও তারা ঢাকায় যাননি। মুন্সীগঞ্জ থেকেই তারা চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জ শহরের মানিকপুর গ্রামের সহকারী শিক্ষক তামান্না সরকার মনি জানান, তিনি চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে গেলে ডাক্তার তাকে জিজ্ঞেস করেন তিনি ঢাকায় গিয়েছিলেন কিনা। তিনি বলেন, গত এক বছরেও তিনি ঢাকায় যাননি। আর রোগের সঙ্গে ঢাকার সর্ম্পকই বা কি।
উত্তর ইসলাম গ্রামের পুলিশ সদস্য নিজামুল হক জানান, তিনি ঢাকা যাননি অনেক দিন হয়েছে। ডাক্তার তাকে একই কথা জিজ্ঞেস করেন, তিনি ঢাকায় গিয়েছিলেন কিনা। তিনি ১০-১২ দিন ধরে ডাক্তারের তত্ত্বাবধানে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

মসজিদ মার্কেটের ব্যবসায়ী সাইদুর রহমান বাবু জানান, তিনি ১০-১১ দিন আগে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন। এখন অনেকটা সুস্থ। এদিকে, ঢাকা থেকে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মুন্সীগঞ্জে চিকিৎসা নিয়েছেন-এমন দাবি করে মুন্সীগঞ্জ সিভিল সার্জন ডা. মুহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান জানালেন, এরা কেউ মুন্সীগঞ্জে আক্রান্ত হননি। অন্য উপজেলাগুলোতে চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্তের খবর পাওয়া যায়নি।

মানবজমিন

Leave a Reply