সিরাজদিখানে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে রড দিয়ে পিটিয়ে জখম

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানে যৌতুকের টাকা না পেয়ে এক গৃহবধূকে হাত-পা বেঁধে মারধরসহ নানাভাবে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে স্বামীর বিরুদ্ধে। ওই গৃহবধূ সোমবার সকাল থেকে সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিচ্ছেন। সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. দুলাল হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, গৃহবধূর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরতে কিছুটা সময় লাগবে। হাসপাতালে দুইজন সেবিকা সার্বক্ষণিক গৃহবধূর দেখাশোনা করছেন বলে জানান তিনি।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গৃহবধূ বলেন, ‘যৌতুকের জন্য আমার স্বামী উজ্জ্বল মোল্লা শনিবার রাত আনুমানিক ১২টার পর থেকে প্রায় চার ঘণ্টা আমাকে লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে জখম করে। হাত-পা বেঁধে মুখ চাপা দিয়ে ঘরের মেঝেতে ফেলে রাখে। রক্তাক্ত অবস্থায় মেঝেতে পড়ে কাতরাচ্ছিলাম, কিন্তু কেউ ধরেনি আমাকে। লোকমুখে খবর শুনে পরদিন সকালে আমার মা লুৎফা বেগম গিয়ে স্থানীয়দের সহযোগিতায় ঘরের দরজা ভেঙে আমাকে উদ্ধার করেন।’

গৃহবধূর পরিবার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মধ্যপাড়া ইউনিয়নের নয়াবাড়ি মালপদিয়া গ্রামের ইয়াছমিন আক্তারের সঙ্গে একই গ্রামের উজ্জ্বল মোল্লার ২০১২ সালে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামী, শ্বশুর, শাশুড়ি ও ননদ বিভিন্ন সময় ইয়াছমিনের ওপর যৌতুকের জন্য অমানুষিক নির্যাতন করে। নির্যাতনের ঘটনায় স্থানীয় চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে এলাকায় একাধিকবার সালিশও হয়েছে। বিয়ের সময় ছেলেপক্ষের চাহিদা মেটাতে কাঠের ফুলসেট ফার্নিচার, আড়াই ভরি স্বর্ণ ও নগদ টাকা দেয়া হয়। বিয়ের কিছুদিন পরই মালয়েশিয়া যেতে প্লেনের টিকিট কেনার জন্য ৫০ হাজার টাকা দাবি করে। এর কিছুদিন পরই মালয়েশিয়া থেকে ফেরত এসে দোকান করার জন্য এক লাখ টাকা চাচার কাছ ধেকে ধার নিয়ে শোধ করে দেয়ার কথা বলে। শুক্রবার গৃহবধূ ইয়াছমিনের সব স্বর্ণালংকার গোপনে স্বামী উজ্জ্বল মোল্লা বিক্রি করে দিয়ে বাবার বাড়ি থেকে আরও দেড় লাখ টাকা যৌতুক এনে দেয়ার দাবি করে।

এ ব্যাপারে স্বামী উজ্জ্বল মোল্লাসহ অভিযুক্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া গেছে। সিরাজদিখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইয়ারদৌস হাসান বলেন, এ ঘটনায় এখনও থানায় কেউ অভিযোগ দেননি। অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

যুগান্তর

Leave a Reply