ন্যায্যমূল্য না পেয়ে হতাশ পাটচাষিরা

চলতি মৌসুমে মুন্সীগঞ্জে রোপণ করা পাট উত্তোলনের পর ন্যায্যমূল্য না পেয়ে হতাশ হয়ে পড়েছেন কৃষকরা। গত বছরের চেয়ে এ বছর জেলায় ৩২৬ হেক্টর বেশি জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। ভালো ফলন হলেও প্রত্যাশা অনুযায়ী মূল্য না পাওয়ায় মৌসুমের শুরুতেই উৎপাদন খরচই উঠছে না। তাই সরকারিভাবে পাট ক্রয়ের দাবি জানিয়েছেন মুন্সীগঞ্জের পাটচাষিরা।

পাট উত্তোলনের মৌসুম শুরু হওয়ার পর থেকে জেলার প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে জাগ দেওয়া পাট পানি থেকে তুলে আঁশ শুকানোর কাজ চলছে। কোথাও আঁশ শুকানোর পর পাট বিক্রি করতে বাজারে নিয়ে যাচ্ছেন কৃষক। আবার গ্রামে গ্রামে গিয়েও পাট ক্রয় করছেন পাইকাররা। অন্যদিকে গ্রামীণ জনপদের নারীরা ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন পাটখড়ি শুকানোর কাজে।

কৃষকরা জানিয়েছেন, মৌসুমের শুরুতেই পাটের বাজারমূল্য নেই। প্রত্যাশা অনুযায়ী তারা পাটের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। এক মণ পাট উৎপাদনে খরচ পড়েছে এক হাজার টাকার বেশি। আর বাজারে বিক্রি করতে হচ্ছে মণপ্রতি ১১শ’ থেকে ১২শ’ টাকায়।

টঙ্গিবাড়ীর ধামারণ গ্রামের কৃষক বিল্লাল মাদবর সমকালকে জানান, গত বছর মৌসুমের শুরুতেই মণপ্রতি পাটের বাজারমূল্য ছিল ১৮শ’ থেকে ২২শ’ টাকা। পরে মূল্য কমে বিক্রি হয় ১৪শ’ থেকে ১৫শ’ টাকায়।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জে দেশি ও তোষা দুই ধরনের পাট উৎপাদন হয়ে থাকে। এর মধ্যে তোষা জাতীয় পাটের দাম বেশি। এবার জেলায় ৪ হাজার ২৯৮ হেক্টর জমিতে পাট চাষ হয়েছে। এর মধ্যে দেশি পাট ১ হাজার ৮৪৪ হেক্টর ও তোষা পাট ২ হাজার ৪৫৪ হেক্টর জমিতে আবাদ করা হয়। গত বছর আবাদ করা হয়েছিল ৩ হাজার ৯৭২ হেক্টর জমিতে।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা আল মামুন জানান, গত বছরের চেয়ে চলতি মৌসুমে জেলায় ৩২৬ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ বেশি হয়েছে। আর পাটের ফলনও ভালো হয়েছে। কোথাও কোথাও এখন পাট উত্তোলন অব্যাহত রয়েছে। প্রাথমিকভাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ভালো মানের পাট মণপ্রতি ১৫শ’ থেকে ১৬শ’ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সমকাল

Leave a Reply