জোড়া খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ৫: ১৪ জনকে আসামী করে মামলা

টঙ্গীবাড়ীতে জোড়া খুনের ঘটনায় গ্রেফতার ৫, ১৪ জনকে আসামী করে মামলা। টঙ্গীবাড়ীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে গুরুতর আহত ব্যাক্তির রবিবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যূ হয়েছে।

রবিবার সন্ধায় মাগরিব নামাজের পর জানাজা শেষে উভয় নিহতকে উপজেলার কুন্ডের বাজার সামাজিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে।

এর আগে রবিবার দুপুরে নিহত শাহ-আলম খানের স্ত্রী রাশেদা বেগম বাদী হয়ে ১৪ জনকে আসামী করে টঙ্গীবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। পুলিশ ওই মামলায় কান্দাপাড়া গ্রামের ফজল খান, নয়ন তারা, ডালিয়া আক্তার স্বর্ণা, নাদিয়া আক্তার নাসিয়াসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করেছে।

এর আগে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে শনিবার রাতে উপজেলার কান্দাবাড়ি গ্রামের নাসির মোল্লা গংরা প্রতিপক্ষের শাহ-আলম খানঁ (৫০) ও আলি হোসেন বাবুকে (৫০) কুপিয়ে জখম করে হাত পায়ের রগ কেটে দেয়।

এলাকাবাসী তাদের উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার শাহ-আলম খানঁকে মৃত ঘোসনা করে এবং আলি হোসেন বাবুকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার রবিবার ভোড়ে মৃত্যূ হয়। জানাগেছে, উপজেলার কান্দাপাড়া গ্রামের নিহত শাহ-আলম খাঁন, আলি হোসেন বাবু প্রায় ১৫ বছর পূর্বে একই এলাকার জলিল মোল্লার নিকট হতে ২৩ শতাংশ জমি ক্রয় করে ভোগ-দখল করে আসছিলো। ওই জমিটি একই গ্রামের মৃত মানিক মোল্লার ৩ ছেলে নাসির মোল্লা, রাসেল মোল্লা, সোহেল মোল্লা নিজেদের দাবী করে বেদখলের চেষ্টা করে আসছিলো। এ নিয়ে শাহ-আলম গংরা বাদী হয়ে মুন্সীগঞ্জ আদালতে মামলা দায়ের করে। মামলায় হেরে গিয়ে নাসির মোল্লা গংসহ ১০-১২ জন নিয়ে শনিবার রাতে তাদের বাড়ির পাশের রাস্তায় উৎপেতে থাকে বলে দাবী করেছে নিহতের আত্নীয়রা।

এ সময় কুন্ডের বাজার হতে নিহত শাহ-আলম খানঁ এবং আলি হোসেন বাবু বাড়ি ফিরছিলো। শাহ-আলম খান নিজ বাড়ির সামনে পৌছাঁলে নাসির মোল্লা গংরা নিহত ২ জনকে কুপিয়ে জখম করলে শাহ-আলম খানকে মুন্সীগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার রাতেই মৃত ঘোসনা করে, আলি হোসেন বাবু রবিবার ভোড়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়। এ ব্যাপারে টঙ্গীবাড়ী থানা ওসি ইয়ারদৌস হাসান জানান, ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

ক্রাইম ভিশন

Leave a Reply