পদ্মা সেতুর দুটি পিলারের কাজ সম্পন্ন

মুন্সীগঞ্জ জেলার মাওয়া, মাদারীপুর জেলার শিবচর ও শরীয়তপুর জেলার জাজিরা অংশে পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের কাজ চলছে । এ অঞ্চলগুলোতে চলছে কর্মযজ্ঞ উৎসব। সেতু নির্মাণের সব কাজ তদারকি করছে সেনাবাহিনী। সরকারের পরিকল্পনা মাফিক আগামী ২০১৮ সালের শেষের দিকে যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়ার কথা রয়েছে পদ্মা সেতু।

এরই ধারাবাহিকতায় পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের মূল সেতুর ৪২ টি পিলারের মধ্যে ৩৭ নং এবং ৩৮ পিলারের যাবতীয় কাজ সম্পন্ন হয়েছে। প্রকল্পে ২৬টি স্প্যান প্রস্তুত করা হচ্ছে। এর মধ্যে পাইলিং, পাইল ক্যাপ এবং পিলারের কাজ চলমান রয়েছে।

সোমবার ৩৭ ও ৩৮ নম্বার পিলারের কাজ সমাপ্ত হয়েছে। ৩৭ নং পিলার বেইজ সাটারিং খোলা হয়েছে। খুব শিগিগিরই পুরো সাটারিং খোলা হবে। এ পর্যন্ত পদ্মা সেতুর সার্বিক অগ্রগতি হয়েছে ৪৬.৫ শতাংশ।

নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুল কাদের জানান, ইতোমধ্যে উক্ত পিলারের ওপর যে স্প্যান বসানো হবে তার কাজও প্রায় শেষ। পিলার দুটির কংক্রিটের শক্তি ৫০ মেগা প্যাসকেল অর্জন করলেই তার ওপর স্প্যান বসানো হবে। খুব শিগগিরই পিলার-৩৯ এবং পিলার -৪০ এর কাজ শেষ হবে এবং আরও দুটি স্প্যান বসানো সম্ভব হবে।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, পদ্মা সেতুর সুপার স্ট্রাকচারে চূড়ান্ত পর্যায়ে রং হচ্ছে। গাঢ় ধূসর রং হচ্ছে সুপার স্ট্রাকচার বা স্প্যানগুলোতে। দ্বিতলবিশিষ্ট এই সেতুটি সম্পূর্ণ কংক্রিট আর স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে।

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতুর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার। এটি তৈরির জন্য চায়না মেজর ব্রিজ কোম্পানির সঙ্গে ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর চুক্তি সই করা হয়। ভূমি অধিগ্রহণের জন্য তৃতীয় দফা ১ হাজার ৪শ কোটি টাকা ব্যয় বাড়িয়ে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা।

ভবতোষ চৌধুরী নুপুর
জাগো নিউজ

Leave a Reply