বাবা আরিফকে গণপিটুনি, স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

অবৈধ কারেন্টজাল পাচারকালে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্ঠাকালে মুন্সীগঞ্জে ইয়াবা সম্রাট আরিফ ওরফে বাবা আরিফকে (৩০) গণপিটুনি দিয়ে চোঁখ নষ্ট করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে। মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে সোমবার সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। এর আগে সোমবার ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়নের মালিরপাথর এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি শার্টারগান উদ্ধার করেছেন। পুলিশ জব্দ করেছে পিকআপভ্যানসহ অবৈধ কারেন্টজাল। এ ঘটনায় আরিফকে পূর্বপরিকল্পিতভাবে হত্যার চেষ্টা করা এবং অস্ত্র দিয়ে মামলার প্রস্তুতি নেয়ার অভিযোগ এনে তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াসমিন রুনু সোমবার সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, বাবা আরিফ দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিক শেল্টারে ইয়াবা ব্যবসা, ফ্যাক্টরির কারেন্টজাল ছিনতাইসহ নানাধরণের অপরাধমূলক কাজ করে আসছে। বিএনপির জমানায় উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. মহিউদ্দিনের শেল্টারে গড়ে উঠা সন্ত্রাসী আরিফ বিএনপি ক্ষমতাহীন হওয়ার পর বিবদমান স্থানীয় আওয়ামী লীগের এক পক্ষের শেল্টার নিয়ে পঞ্চসার শিল্পনগরী এলাকায় চাঁদাবাজি, কারেন্টজাল ছিনতাই-চুরিসহ নানা অপরাধমূলক কাজে বেপরোয়া হয়ে উঠে। আওয়ামী লীগ ক্ষমতাসীন হওয়ার পর জেলা বিএনপির সভাপতির ভাগিনা নিজাম মেম্বার আরিফের শক্ত প্রতিপক্ষ হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে নিজাম মেম্বার স্থানীয় সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাসের হাত ধরে আওয়ামী লীগের যোগদানের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়।

আরিফের অপকর্মের বিষয় মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র ফয়সাল বিপ্লব ও পঞ্চসার ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফার নজরে আসে। মালিরপাথরের দুলাল বেপারীর ফ্যাক্টরি থেকে অবৈধ কারেন্টজাল ট্রাকে করে নেয়া হচ্ছে-এ খবর পঞ্চসার ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের মেম্বার ইমরান হোসেনের সহযোগি নাহিদ জানায় আরিফকে। আরিফের আগমনের খবর পেয়ে আওয়ামী লীগের অপর পক্ষের শেল্টারে আরেক সন্ত্রাসী মেম্বার ইমরান দলবল নিয়ে প্রস্তুতি নিয়ে থাকে। সোমবার ভোররাত সাড়ে ৪ টার দিকে পিকআপভ্যানে অবৈধ কারেন্টজাল উঠানোর পর বাবা আরিফ তার সহযোগি শহরের কোর্টগাঁও গ্রামের সন্ত্রাসী বাবু মিজি, মিরেশ্বরাই গ্রামের কাদির, গোসাইবাগ গ্রামের সুজনকে নিয়ে ছিনতাই অভিযানে নামে। এ সময় ইমরান বাহিনীর নেতৃত্বে আরিফকে আটক করে মালিরপাথর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে নিয়ে গণপিটুনি দেয়। এ সময় আরিফের সহযোগিরা পালিয়ে যায়। পরে সকাল সাড়ে ৭ টায় মুক্তারপুর নৌ-পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যরা মুমুর্ষু আরিফকে উদ্ধার করে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসেন। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ইফতিয়ার ইরফান আরিফকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ওসি আলমগীর হোসাইন জানান, আরিফের বিরুদ্ধে মাদক, পুলিশ অ্যাসল্ট, ডাকাতিসহ ৯টি মামলা রয়েছে। জাল ছিনতাইকালে আরিফকে গণপিটুনি দেয়া হয়েছে। কারেন্টজাল জব্দ করা হয়েছে। আরিফ এ এলাকায় ইয়াবার বড় ডিলার হিসেবে পরিচিত। তার মাধ্যমে ইয়াবার বড় বড় চালান পাচার ও বিক্রি হয়ে আসছে। এর আগে তাকে র‌্যাব ও পুলিশ একবার গ্রেপ্তার করেছিল, পরে জামিনে মুক্তি পায়। তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে এবং তার বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।

তিনি বলেন, যারা ছিনতাই-ডাকাতি করতে গিয়ে আঘাতপ্রাপ্ত হয় তাদের পক্ষে কি মামলা নেয়া হয়?

আরিফের স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন
সোমবার সন্ধ্যায় মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবে আরিফের স্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন, তার স্বামী পঞ্চসার ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা দীর্ঘদিন ধরে হত্যার চেষ্টা করছেন। রোববার রাতে মোস্তফার ছোট ভাই গোলাম ফারুক কমদামে জাল কেনার কথা বলে সারারাত তাদের কালিখোলার জালের ফ্যাক্টরিতে নেশা করে অবস্থান নেয়। সোমবার ফজরের নামাজের পর জাল কেনার জন্য দেড়লাখ টাকা নিয়ে ফারুকের সঙ্গে বের হয়ে মালিরপাথরে যায় আরিফ। সেখানে আগে থেকেই ওঁত পেতে থাকা মেম্বার ইমরান, মোস্তফার কারেন্ট জাল ফ্যাক্টরির ম্যানেজার আমির, তার ভাই রাসেল, সালাম ও তার ভাই সেলিম দলবল নিয়ে আরিফের ওপর হামলা চালায়।

কুপিয়ে ও গুলি করে আরিফের চোখ নষ্ট করে দেয়। ডানহাতে গুলি ও বাম পায়ের রগ কেটে দেয়। এরপর ভাঙ্গা বন্দুক দিয়ে পুলিশের হাতে তুলে দেয় আরিফকে। বন্দুক দিয়ে ধরিয়ে না দেয়ার জন্য আকুতি-মিনতি করার পরও ওরা শুনেনি, আমাদেরও মারধর করে। পূর্ব পরিকল্পিতভাবে আরিফের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করতে চান বলে সংবাদ সম্মেলনে আরিফের স্ত্রী রুনু জানিয়েছেন।

তিনি আরো জানান, গত ৬-৭ মাস আগে র‌্যাবকে ২৫ লাখ টাকা দিয়ে ধরিয়ে নিয়ে হত্যার চেষ্ঠার করে চেয়ারম্যান মোস্তফা। ৪দিন পর র‌্যাব ৯৫ পিস ইয়াবা দিয়ে আরিফকে ঢাকার যাত্রাবাড়ি থানায় চালান করে। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আরিফের মা শেফালী বেগম, আরিফের বোন তাসলিমা আক্তারসহ অন্যান্যরা।

পূর্ব পশ্চিম

Leave a Reply