অভিমানি মারুফ – জসীম উদ্দীন দেওয়ান

কেন চলে গেলি? মাকে একলা ফেলি, আজো কাঁদে তোর মায়।
মারুফ মারুফ বলে, চোখের জল ফেলে, তাকিয়ে রয় আঙ্গিনায়।
যদিরে তোরে, একটি বারে, এক পলক দেখা যায়।
পুড়ে পুড়ে ক্ষত হওয়া বুকটা, সুখের প্লাবনে তায়।
মায়ের মনটা অবুঝ বড়, মানতে চায়না কিছু।
এখনো ভাবে মারুফ তাহার, চুপে দাঁড়াবে এসে পিছু।
এতো মমতা, এতো আদর, ভালোবাসায় বিছিয়ে চাঁদু
একটি বার আয়রে বাচা, চুমু খাবো দুগালে জাদু।
যাসনে চলে, আমায় ফেলে, আয়রে খোকা আয়।
তুইকি জানিসনা, আঁচল বিছিয়ে, বসে আছে তোর মায়!
ঘরে যে খোকা, মন টিকেনা, শুণ্যতায় পুরো ঘর।
এতো ডাকি,মারুফরে তোরে, অভিমান ভাঙ্গেনা তবু তোর!
পুরো ঘরটা খালি খালি আজ, আমার বুকের মতো।
যতো বায়না করিস তুই বাপধন, মিটাবো আমি ততো।
খোকন সোনা ফিরে আয় জাদু, ভেঙ্গে তোর অভিমান।
দু’হাত বাড়িয়ে, আছি বাজান দাঁড়িয়ে, থাকবো তবু দিনমান।
সাইকেলে চরে, ডালিম কুমার সেজে, কোন আকাশে দিলি পাড়ি?
দোহায় খোকা, যাসনে একা, ভয়ে যাইযে মরি!
আমাকে ছাড়া, একা কোন পাড়া, কোন দিন ছিলি বল?
আজকে কেন, আমার সঙ্গে করছিস এতো ছল?
ফের কোন দিন বকবোনা তোকে, চুমু এঁকে দিবো সারা গায়।
মিছে নয় খোকা, সত্যি বলছি, দিব্যি দিলাম ফিরে আয়।
ফিরে আয় খোকা, আমি বড় একা, বুকটা শূন্যে ভরা।
১৬ বছরের ঘরময় স্মৃতি, যায় কি ভুলতে পারা?
কেমনে ভুলি, তোর স্মৃতি গুলি, লক্ষ্মী ভেজায় ছিলি।
পরপারে বুঝি, অভিমান করে গেছিস, মায়ের কথা ভুলি।
কোন পাষানি ছোবল হেনে হায়, মায়ের বুক করলে খালি।
মারুফের লাগি কেঁদে কেঁদে এম্নি, পরশিরা যায় বলি।
স্বজন কাঁদে, পরশিরা কাঁদে, কাঁদে হাজারো জন।
সাইকেলে চরে গেলি চলে, কেড়ে নিয়ে সবার মন।
হিট ষ্ট্রোক নামের, এই কি বালাই? যার দোহায়ে চলে গেলি পালাই।
শুন্যতায় ভরে মায়ের বুক, হে বিধাতা দাও ক্ষমতা মাকে, সইবার মহা এ শোক।।
কেঁদনা মাগো, অভিমানি মারুফ, অভিমান করে গেছেন চলে।
তোমার মতো অনেকের হৃদয়ে, ভালোবাসার স্মৃতি ফেলে।
আজকে মারুফ স্বর্গের মানুষ, স্বর্গে বসবাস।
দু’হাত তুলে দোয়া করি তারই, অনন্ত জীবন হোক সেথা বাস।

Leave a Reply