এএসআইর বিরুদ্ধে ব্যবস্থার প্রক্রিয়া শুরু, আটক ১

দুই শিক্ষার্থী অপহরণচেষ্টা
মুন্সীগঞ্জ শহরের খালইস্ট এলাকায় অষ্টম শ্রেণির দুই শিক্ষার্থীকে মারধর ও একটি নির্মাণাধীন ভবনে আটক রেখে অপহরণের চেষ্টার ঘটনায় এএসআই আবদুল আলীমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। এর আগে তাকে কর্মস্থল সদর থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে যুক্ত করা হয়। এ ছাড়া অপহরণ চেষ্টার ঘটনায় সাঈদ ও পলক নামের দুই বখাটেকে রোববার রাতে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে সাঈদকে আটক করেছে পুলিশ। বর্তমানে সে থানা পুলিশের হেফাজতে রয়েছে। পলককে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। শীর্ষ এক আওয়ামী লীগ নেতার তদবিরে পলককে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ শিক্ষার্থীর বাবার।

পুলিশ সূত্র জানায়, এএসআই আবদুল আলীমের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে। এ কারণে পুলিশ সুপারের আদেশক্রমে সদর থানায় কর্মরত এএসআই আবদুল আলীমকে রোববার বিকেলে কর্মস্থল থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইন্সে যুক্ত করা হয়।

সদর থানার ওসি (তদন্ত) মঞ্জুর মোর্শেদ জানান, এএসআই আবদুল আলীম দুই শিক্ষার্থীকে মারধর ও আটকের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলেও বিষয়টি সংশ্নিষ্ট থানার কর্মকর্তাদের অবহিত করেননি। এ ছাড়া তদন্তে ঘটনায় জড়িত সাঈদ ও বাবুকে আটক না করার অপরাধ শনাক্ত হয়েছে।

সমকাল

Leave a Reply