সিরাজদীখানে আলু চাষিদের মাথায় হাত

লোকসান ৩০ কোটি টাকা
নতুন আলু বাজারে আসবে চার মাস পর। অথচ গত মৌসুমের ৪০ হাজার লাখ টন আলু অবিক্রীত অবস্থায় পড়ে আছে সিরাজদীখানের ১০টি হিমাগারে। লাভের আশায় হিমাগারে আলু রেখে ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছেন আলু চাষি ও ব্যবসায়ীরা। সবার চোখে-মুখে হতাশার ছাপ পড়েছে।

গত বছর সিরাজদীখানে প্রায় ৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছিল। উৎপাদনও ছিল ভালো। চাষি ও ব্যবসায়ীরা লাভের আশায় উপজেলার ১০টি হিমাগারে আলু রাখেন। বর্তমান বাজারে প্রতি বস্তায় ৬০০ টাকা করে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের। সে হিসাবে শুধু হিমাগারে রক্ষিত আলুতেই পায় ৩০ কোটি টাকা লোকসানের আশঙ্কা করছেন সিরাজদীখানের আলু চাষি ও ব্যবসায়ীরা। এই আলু নিয়ে কী করবেন, তা বুঝে উঠতে পারছেন না কৃষকরা। বাজারে দাম কম থাকায় লোকসানের আশঙ্কায় হিমাগার থেকে আলু বের করছেন না তারা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, উৎপাদন, পরিবহন ও বাজারজাতকরণের খরচসহ প্রতি বস্তা আলুর দাম পড়েছে এক হাজার টাকা। এর সঙ্গে হিমাগারের ভাড়া হিসেবে যোগ হবে ৩০০ টাকা। ফলে এলাকাভেদে এক হাজার ৩০০ থেকে এক হাজার ৪০০ টাকা দাম পড়ে প্রতি বস্তার।

হিমাগার থেকে এখন প্রতি বস্তা আলু ৭০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এতে বস্তাপ্রতি প্রায় ৬০০-৭০০ টাকা লোকসান হচ্ছে কৃষকের। এর পরও ক্রেতা খুঁজে পাচ্ছেন না কৃষক ও ব্যবসায়ীরা। এ অবস্থায় খুচরা বাজারে ১৮ থেকে ২০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে আলু।

উপজেলার লতব্দী ইউনিয়নের আলু চাষি আশরাফ হোসেন ঝন্টু বলেন, ‘গতবার আমি ১২০ বিঘা (১৬ হেক্টর) জমিতে আলু চাষ করেছিলাম। প্রতি বস্তা আলু উৎপাদন করতে খরচ হয়েছে হিমাগারের ভাড়াসহ প্রায় ১ হাজার ৩০০ টাকা। ৪ হাজার বস্তা আলুই হিমাগারে রেখে এতে লাভ তো দূরে থাক ২৪ লাখ টাকা লোকসান গুনতে হচ্ছে আমার।’ তার মতো হাজার হাজার চাষির অবস্থা একই।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুবোধ চন্দ্র রায় জানান, আলুর দাম কম হওয়ার কারণ বেশি উৎপাদন। দেশের বাইরে যদি বেশি পরিমাণ আলু রফতানি হতো তাহলে কৃষক আলুর আরও দাম পেতেন।

সমকাল

Leave a Reply