বাংলাদেশ বণিক সমিতির (চেম্বার) সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত

প্রথমবারের মতো নির্বাচিত কমিটি হওয়া সত্ত্বেও দুই বছরের মাথায় প্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ইন জাপান (বিসিসিআইজে)’র সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ১৪ আগস্ট কিতা সিটি আকাবানে কাইকানে হয়েছিল এবং সেই সাধারণ সভার সুফল প্রথমবারের মতো একটি নির্বাচিত কমিটি।

২৭ নভেম্বর ২০১৫ নির্বাচন কমিশন বর্তমান কমিটিকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করেন। সেই থেকে আগামী নভেম্বর মাসে বর্তমান কমিটি দুই বছর পূর্ণ করে পরবর্তী নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করার তাগিদে এবং চলতি দুই বছরে নিজেদের সার্থকতা ও ব্যর্থতার জন্য জবাবদিহিতার জন্য সাধারণ সদস্যদের মুখোমুখি হওয়ার জন্য এই সাধারণ সভার আহ্বান করে।

১ অক্টোবর ২০১৭ টোকিওর কিতা সিটি অজি হোকু তোপিয়া হলে বণিক সমিতির এই সাধারণ সভা অসাধারণ সাফল্যের মুখ দেখতে সক্ষম হয়। একই দিন হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা এবং মুসলমানদের অন্তরের ক্ষত পবিত্র আশুরা হওয়া সত্ত্বেও বিপুলসংখ্যক ব্যবসায়ী, শুভাকাক্সক্ষী পর্যবেক্ষক, প্রবাসীদের দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন সংগঠন প্রধানগণ এবং মিডিয়াকর্মীরা উপস্থিত হয়ে বণিক সমিতির সাধারণ সভায় অংশ নেন।

প্রথম নির্বাচিত কমিটির সভাপতি বাদল চাকলাদারের স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সভার কাজ শুরু হয়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিসিসিআইজে’র প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক জিয়াউল ইসলাম। সাধারণ সভাটি পরিচালনা করেন কার্যনির্বাহী সদস্য আব্দুর রাজ্জাক।

সভার শুরুতে সাধারণ সম্পাদক নাসিরুল হাকিম প্রথম নির্বাচিত কমিটি হিসেবে বিগত দিনের বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং কার্যক্রম নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, আমাদের কাছে অর্থাৎ প্রথম কমিটি হিসেবে সাধারণ সদস্যদের প্রত্যাশা ছিল পাহাড়সম। আমরা কতটুকু মূল্য দিতে বা পূরণ করতে পেরেছি তার মূল্যায়ন আপনাদের কাছে। তবে আমাদের আন্তরিকতার অভাব ছিল না। আমাদের ব্যর্থতাও ছিল। আপনাদের সব প্রত্যাশা হয়তো পূরণ করতে পারিনি। যেসব প্রত্যাশা পূরণ হয়নি তার দায়ভার নিচ্ছি, ক্ষমা প্রার্থনা করছি। এবং একইসঙ্গে আশা করছি আগামীতে কমিটিতে যারা আসবেন তারা তা পূরণে সচেষ্ট থাকবেন।

নাসিরুল হাকিম বলেন, আমরা বিসিসিআইজে-কে জাপান সরকারের মিনিস্ট্রি অব ইকোনমি, ট্রেড অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের নিবন্ধন করা সক্ষম হয়েছি। জাপানে বর্তমানে ৩৪টি দেশের চেম্বার নিবন্ধন রয়েছে যার মধ্যে বাংলাদেশ একটি।

আমাদের কোনো অফিস ছিল না। এখানে ওখানে বসতে হয়। বাংলাদেশ দূতাবাসের একটি কক্ষ আমরা ব্যবহার করতাম ২০১০ সালে রাষ্ট্রদূত মুজিবুর রহমান ভূইয়া তা বাতিল করে দিলে আমরা অসহায় হয়ে পড়ি। চিঠি আদান-প্রদানের জন্য কোনো ঠিকানা ব্যবহার আমাদের জন্য দুরূহ হয়ে পড়ে। আমরা একটি অফিস নিতে পেরেছি। বাংলাদেশের বিভিন্ন চেম্বারের সঙ্গে যোগাযোগ এবং জাপানে বিভিন্ন দেশের চেম্বারের সঙ্গে যোগাযোগ করে অন্তত বাংলাদেশ চেম্বারের অস্তিত্বের কথা অন্তত জানান দিতে পেরেছি। বাংলাদেশের বিভিন্ন ব্যবসায়ী বিশেষ করে ২০১৬ সালের মে মাসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী শতাধিক ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভা, ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাইদ খোকন এবং নারায়ণগঞ্জের মেয়র আইভীর সঙ্গে মতবিনিময় এবং বাংলাদেশের উপপররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এমপির সঙ্গে জাপান-বাংলাদেশের ব্যবসায়িক সম্ভাবনা, প্রতিকূলতা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেছি এবং তা দূরীকরণে তাদের সহায়তা চেয়েছি। এদেশেরও অনেক ব্যবসায়ীকে আমাদের দেশে বিনিয়োগ করাসহ দ্বিপক্ষীয় ব্যবসা উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছি।

সাধারণ সভার কার্যক্রমে অংশ নিয়ে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ এবং শুভাকাক্সক্ষীদের মধ্য থেকে এমডি এস. ইসলাম নান্নু, বিশ্বজিৎ সরকার, হারুন উর রশীদ, নাজমুল হক, এমদাদুল হক মনি, সুনীল চন্দ্র রায়, সুখেন ব্রহ্ম, আলমগীর হোসেন মিঠু, হাফেজ মো. আলাউদ্দিন, মো. মিজানুর রহমান শাহীন, মাইনুল হক দিদার, নূর-এ-আলম, মো. জহিরুল হক, মীর রেজাউল করিম রেজা, শেখ মনজুর মোর্শেদ, খন্দকার আসলাম হিরা, এমডি সারোয়ার বাবু, এমদাদুল হক, সরদার নূরুল ইসলাম এবং সালেহ্ মো. আরিফ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা উষ্ণতা প্রকাশ করে বলেন, দুই বছরে একটি সাধারণ সভার আয়োজন করতে না পারা ছিল কমিটির বড় ব্যর্থতা। এ ছাড়াও কমিটি সাধারণ ভোটাররা সদস্যদের দোরগোড়ায় যাওয়াসহ নতুন সদস্য সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হয়েছে। জাপানে প্রতিনিয়ত প্রবাসী ব্যবসায়ী আত্মপ্রকাশ করছে তাদেরকে সদস্য করে ব্যবসা সংক্রান্ত সাপোর্ট দিতে সফলতা দেখাতে পারেননি।

বক্তারা আরও বলেন, আপনাদের সার্থকতার জন্য অবশ্যই ধন্যবাদ দেই। সেই সঙ্গে ব্যর্থতাগুলো চিহ্নিত করে ভবিষ্যতে তা পূরণে সচেষ্ট থাকবেন বলে আশা করি। তবে, দুই বছর পর নির্দিষ্ট সময়ে নতুন নির্বাচনের ব্যবস্থা নেয়ার আন্তরিকতার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ। শুরুটা তো অন্তত হলো, এর ধারাবাহিকতা যেন ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকে সেই কামনাই করি।

আলোচনা শেষে কোষাধ্যক্ষ ঠাকুর গুল মোহাম্মদ বিগত দুই বছরের আয়-ব্যয়ের হিসাব দাখিল করেন। দুই বছর প্রায় ৩৫ লাখ ইয়েন। যার প্রায় সবটাই দুই বছরের অফিস ভাড়া, গ্যাস, বিদ্যুৎ বিল এবং চিঠি আদান-প্রদানে খরচ হয়।

এরপর প্রশ্ন-উত্তর পর্বে ডেলিগেটদের মুখোমুখি হন সভাপতি বাদল চাকলাদার এবং সাধারণ সম্পাদক এমডি নাসিরুল হাকিম। প্রশ্নদাতারা জাপানে একাধিক কমিটির অস্তিত্ব থাকার জন্য আইনি ব্যবস্থা নেয়াসহ বাংলাদেশ জাপানি বিনিয়োগ নিয়ে প্রশ্নবাণে জর্জরিত করেন। তারা বলেন, প্রতিটি ব্যবসায়ী যদি একজন করে ব্যবসায়ীকে (জাপানি) বাংলাদেশে বিনিয়োগ করাতে পারেন তাহলে অন্তত প্রায় ৩৫০ জাপানিজ বিনিয়োগকারী এই দুই বছরে বাংলাদেশে বিনিয়োগ করতে সক্ষম হতো। এতে অনেক বাংলাদেশিদের কর্মসংস্থানের সুযোগ ঘটত। দূতাবাসের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্নকারীরা হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, দূতাবাস যদি আশু ব্যবস্থা গ্রহণ করত তাহলে একাধিক কমিটির অস্তিত্ব জাপানে থাকত না। জাপান এক দেশ এক নীতিতে বিশ্বাসী। অর্থাৎ একটি দেশের একটি চেম্বার। একাধিক নয়।

তারা জানতে চান, যদি অপর কমিটি সঠিক থাকে তাহলে এই কমিটির অনুমোদন তারা কীভাবে দেন? আর যদি এই কমিটি ঠিক থাকে তাহলে সমাজে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেন না কেন?

তারা আরও জানতে চান আজকের এই বণিক সমিতির সভায় দূতাবাস প্রতিনিধির উপস্থিতি নেই কেন? এতগুলো ব্যবসায়ীর উপস্থিতি কি তাদের কাছে কোনোই মূল্য নেই? বিনিয়োগ বাড়ানো এবং রেমিট্যান্সের ব্যাপারে সরকারি উদ্যোগের প্রতীকী দূতাবাসের কোনো সমর্থন নেই? জন্মদিনের আয়োজনসহ কিচেন সভাতে রাষ্ট্রদূত উপস্থিত থাকতে পারলেও দুই শতাধিক ব্যবসায়ীদের উপস্থিতির মূল্য কি তারা বুঝেন না?

বক্তারা বলেন, ব্যবসায়ীদের ইগনোর করে সরকার সফল হতে পারে না। প্রবাসে লিখিত এবং অলিখিত (নিবন্ধন) দুইটি প্রতিষ্ঠানের কথা সংশ্লিষ্ট দেশগুলোর অন্তর্ভুক্ত থাকে। তার একটি হচ্ছে দূতাবাস এবং অপরটি হলো চেম্বার। জাপানে আমেরিকান দূতাবাস ও আমেরিকান চেম্বারের মতামতকে গুরুত্বসহকারে নিয়ে থাকে। কিন্তু বাংলাদেশ দূতাবাস উপস্থিতও থাকতে পারেন না?

সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে নতুন সদস্য সংগ্রহ, ভোটার লিস্ট আপডেটসহ আগামী ১৫ মার্চ ২০১৮-এর মধ্যে নির্বাচন সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। নির্বাচন প্রক্রিয়া এবং পরিচালনা করার জন্য ৯ সদস্যবিশিষ্ট পরিচালনা কমিটির জন্য নাম প্রস্তাবসহ আগামী এক বছরের জন্য সদস্যদের ফি মওকুফ করার ঘোষণা দেয়া হয়। নির্বাচন পরিচালনার জন্য নির্বাচন কমিশনের প্রধান হিসেবে জিয়াউল ইসলামের নাম অনুমোদিত হয়।

উল্লেখ্য, ১৪ আগস্ট ২০১৫ সর্বশেষ সাধারণ সভায় প্রথমবারের মতো নির্বাচন পরিচালনা করার জন্য ৭ সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়।
নির্বাচন কমিশন দায়িত্ব নেয়ার পর তফসিল ঘোষণা করেন। তফসিল মোতাবেক ২ লাখ ইয়েন (নির্বাচনে অংশ নিতে আগ্রহীদের) ১৫ অক্টোবর ২০১৫-এর মধ্যে বিসিসিআইজে’র নির্দিষ্ট অ্যাকাউন্টে জমা দেয়ার রসিদসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দাখিল করে ১৭ অক্টোবর ২০১৫-এর মধ্যে মনোনয়নপত্র সংগ্রহও একই দিনে জমা, ২৫ অক্টোবর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ২৭ নভেম্বর ২০১৫ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করেন।

নির্বাচন কমিশনের প্রতি সম্মান জানিয়ে ১১ জন ব্যবসায়ী মনোনয়নপত্র জমা দেন। বিভিন্ন যাচাই বাছাইয়ের পর সবার মনোনয়নপত্র গৃহীত হয়। ২৫ অক্টোবরের মধ্যে কেউ তা প্রত্যাহার না করলে এবং বিসিসিআইজে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ১১ সদস্যবিশিষ্ট কার্যকরী পরিষদ গঠন হওয়ায় ২৭ নভেম্বর ২০১৫ নির্বাচন কমিশন সকলকে নির্বাচিত ঘোষণা করে গেজেট প্রকাশ করে বিসিসিআইজে (িি.িনপপরল.পড়স)-এর ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ করে। সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে কার্যকরী পরিষদ দায়িত্ব গ্রহণ করে ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ অভিষেকের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে কেউ একবার ক্ষমতায় গেলে সহজে তা ছাড়তে না চাইলেও বিসিসিআইজে কর্তৃপক্ষ তার আন্তরিকতায় দুই বছর মেয়াদ পূর্ণ নতুন কমিটির উদ্যোগ প্রশংসার দাবি রাখে।
rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply