সিরাজদিখান উপজেলাবাসী চোর আতঙ্কে

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান উপজেলায় একের পর এক চুরির ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন উপজেলাবাসী। থানা, বাড়ি ও অফিসে চুরির ঘটনায় উপজেলাবাসীর মাঝে চলছে চোর আতঙ্ক। আইনশৃঙ্খলার চরম অবনতি দেখা দিয়েছে এলাকায়। জানা যায়, একটি সংঘবদ্ধ চোর চক্র প্রায়ই বিভিন্ন স্থানে বাসাবাড়ি, দোকানপাট ও অফিসে ঢুকে মালামাল চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে। ২৮ অক্টোবর মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থানা থেকে মাই টিভির মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি মোহাম্মদ মোক্তার হোসেনের মোটরসাইকেল চুরি হয়েছে। মোটরসাইকেলটির নম্বর ঢাকা মেট্রো ল-২৫-৫৯৬৯।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী মাই টিভির মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি মোহাম্মদ মোক্তার হোসেন বলেন, ‘সিরাজদিখান থানা পুলিশ ও কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের উদ্যোগে শনিবার র‌্যালিতে পেশাগত দায়িত্ব পালন করার জন্য সকাল সাড়ে ১০টায় থানার অফিসারদের মোটরসাইকেলের সঙ্গে আমার মোটরসাইকেলটি রাখি। পরে র‌্যালি ও অনুষ্ঠানের নিউজ কাভার করে থানায় এসে দেখি তালা ভেঙে আমার মোটরসাইকেলটি নিয়ে গেছে। বিষয়টি আমি থানায় মৌখিক ও লিখিত অভিযোগ দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করলেও এখনও আমার মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করতে পারেনি।

সিরাজদিখান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্স অনামিকা ভদ্র বলেন, চোরের দল তার হাসপাতাল কোয়ার্টার থেকে চার ভরি স্বর্ণ, নগদ পঞ্চাশ হাজার টাকাসহ দেড় লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে তিনি সিরাজদিখান থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন বলে জানান। কিছুদিন আগে সিরাজদিখান থানার সামনেই এক বাসা থেকে দিনেদুপুরে এক ব্যাংক কর্মকর্তার মোবাইল চুরি হয় ও সিরাজদিখান থানার এক পুলিশ কর্মকর্তার বাসায় চুরির ঘটনা ঘটে। এছাড়াও সিরাজদিখানের বিভিন্ন স্থানে প্রায়ই চুরির ঘটনা ঘটছে। কিন্তু অদৃশ্য কারণে গ্রেফতার হচ্ছে না চোর চক্র।

সিরাজদিখান থানার ওসি (প্রশাসন) আবুল কালাম জানান, সম্প্রতি কয়েকটি চুরির ঘটনা ঘটেছে, তবে সাংবাদিকের মোটরসাইকেল চুরি হওয়ার বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর

Leave a Reply