শ্রীনগরে পরকিয়ার জেরে স্বামী-স্ত্রী-সন্তান সহ ৩ জনের একত্রে বিষপানে আত্মহত্যা

আরিফ হোসেন: শ্রীনগরে স্ত্রীর পরকিয়া নিয়ে কলহের জের ধরে স্বামী-স্ত্রী-সন্তানসহ একই পরিবারের ৩ জন বিষপানে আত্মহত্যা করেছে। বুধবার রাত সাড়ে সাতটার দিকে উপজেলার বাড়ৈখালী ইউনিয়নের শ্রীধরপুর গ্রামে এঘটনা ঘটে। শ্রীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ এসএম আলমগীর হোসেন জানান, পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মুন্সীগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করেছে। তবে এখনো আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি।

স্থানীয়রা জানান, ওই গ্রামের মাছ ব্যবসায়ী মো: মমিন (৫০) তার স্ত্রী লুবনা বেগম (৪৪) ও শিশু কন্যা সানজিদা (৯) একই সাথে বিষপান করে। বিষের তিব্রতায় প্রথমে সানজিদা মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে। পরে মমিন ও সর্বশেষ তার স্ত্রী লুবনা মারা যায়। প্রতিবেশীরা জানায়, তাদেরকে হাসপাতালে নেওয়ার আগেই তারা মারা যায়। তাদের আরেক মেয়ে স্বর্না বিষ না খাওয়ার কারণে বেঁচে যায়। স্বর্ণা ও সানজিদা স্থানীয় শ্রীধরপুর মহিলা মাদ্রাসার ছাত্রী।

স্ত্রী লুবনা বেগম পরকিয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পরায় তাদের স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া লেগে থাকতো। এনিয়ে গত ২৮ অক্টোবর বাড়ৈখালী ইউনিয়ন পরিষদে সালিশ মিমাংসা বসে। সালিশে কাজী ডেকে এনে স্বামী-স্ত্রীর তালাক সম্পাদন করা হয়। এর পর লুবনা বেগম তার বাবার বাড়ী একই ইউনিয়নের মদনখালী গ্রামে চলে যায়। তালাক লিপিবদ্ধ করার ৩ দিনে মাথায় স্বামী-স্ত্রী ইউনিয়ন পরিষদে হাজির হয়ে পুনরায় সংসার করার ইচ্ছা প্রকাশ করলে চেয়ারম্যান তাদেরকে মিলে মিশে থাকার পরামর্শ দেন। বুধবার দুপুর ৩ টার দিকে লুবনা বেগম তার স্বামীর বাড়ী আসেন। সন্ধ্যার আগে তারা স্বামী-স্ত্রী ছোট মেয়ে সানজিদাকে নিয়ে বাড়ৈখালী বাজারে কেনাকাটা করতে যান। সন্ধ্যায় বাড়ী ফিরে আসেন। এর কিছুক্ষন পর বাড়ীর পাশে একটি জমিতে গিয়ে ৩ জন মিলে একত্রে বিষপান করেন। প্রতিবেশীরা তাদেরকে হাসপাতালে নেওয়ার পূর্বেই তাদের মৃত্যু হয়।

Leave a Reply