কাকরাইলে মা-ছেলে খুনের ঘটনায় এক নায়িকা গ্রেপ্তার

রাজধানীর কাকরাইলে মা ও ছেলে খুনের ঘটনায় শারমিন আক্তার মুক্তা নামে কথিত এক নায়িকাকে আটক করেছে পুলিশ। মুক্তা নিহত শামসুন্নাহারের স্বামী আবদুল করিমের তৃতীয় স্ত্রী। মা-ছেলে হত্যাকা-ের চাঞ্চল্যকর তথ্য পেতে আবদুল করিম ও মুক্তাসহ চারজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

পুলিশ সূত্র জানায়, ভোগ্যপণ্য আমদানি-রপ্তানি ছাড়াও চলচ্চিত্র প্রযোজনা করেন আবদুল করিম। সেই সূত্রে দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির একাধিক নায়িকার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে করিমের। শারমিন মুক্তা তাদেরই একজন। একপর্যায়ে তার সঙ্গে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন করিম। এর পর ২০১৩ সালে তারা বিয়ে করেন নরসিংদী শহরে গিয়ে। শামসুন্নাহার ও মুক্তা ছাড়াও আরও এক স্ত্রী রয়েছে এই চিত্র প্রযোজকের। মুক্তাকে মেনে নিতে পারেননি শামসুন্নাহার। স্ত্রীর চাপে পড়ে গত বছর মুক্তাকে ডিভোর্স দেন করিম।

কিন্তু ডিভোর্সের কিছু দিন যেতে না যেতেই মুক্তা-করিম আবারও অবৈধভাবে মেলামেশা শুরু করেন, যা শামসুন্নাহের কানে গড়ায়। এতে ফের করিম ও শামসুন্নাহার দম্পতির মধ্যে ঝগড়া-বিবাদ শুরু হয়। বয়স্ক স্ত্রীকে মারধরও করতেন করিম। এমনকি বছরখানেক আগে কাকরাইলের ওই বাড়িতে এসে শামসুন্নাহারকে মারধর করেন মুক্তা ও তার লোকজন। এ নিয়ে কানাডা ও লন্ডনে অবস্থারত শামসুন্নাহারের দুই ছেলে রীতিমতো বাবার প্রতি ক্ষুব্ধ ছিলেন। কিন্তু পড়ালেখা আর বয়সে কম হওয়ার কারণে ছোট ছেলে শাওন সব কিছু দেখেও নিশ্চুপ ছিলেন। খবর : আমাদের সময়-এর।

নিহত শামসুন্নাহের ভাই আশরাফ আলী জানান, হত্যাকা-ের তিন দিন আগেও শামসুন্নাহার তার ভাই আশরাফ আলীকে ফোন দেন। ওই ফোনকলে তিনি ভাইকে জানান, আমি পারিবারিক অসুবিধায় আছি। আমার নিরাপত্তা নেই। থানায় জিডি করতে চাই। কিন্তু দাম্পত্য কলহ বাড়ার আশঙ্কায় জিডি করা হয়ে ওঠেনি। আশরাফ আলী পুলিশকে জানান, এই হত্যাকা-ের জন্য তার ভগ্নিপতি আবদুল করিম দায়ী। তারা মামলা করবেন। ভগ্নিপতিকে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই সবকিছু বেরিয়ে আসবে বলেও মনে করেন আশরাফ আলী।

পুলিশের ধারণা, পারিবারিক কলহের কারণেই মা-ছেলে খুন হয়েছেন। এ ছাড়া আবদুল করিমের ব্যবসায়িক বিরোধও পুলিশ উড়িয়ে দিচ্ছে না। তবে পারিবারিক বিরোধ বা আবদুল করিমের একাধিক বিয়ে ও অনৈতিক সম্পর্কের বিষয়টি জোর দেওয়া হচ্ছে। কারণ হত্যাকারীদের মূল টার্গেট ছিল শামসুন্নাহার। প্রত্যক্ষদর্শী হওয়ার কারণে ছেলে শাওন খুন হন। আর খুনিরা ভাড়াটে বলে মনে করা হচ্ছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার কৃষ্ণপদ রায় বলেন, সবদিক মাথায় রেখে তদন্ত চলছে। যারা আটক আছেন, তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করা হলে তদন্তকাজ আরও এগিয়ে যাবে বলে আশাবাদী তিনি।

এদিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ময়নাতদন্তের পর গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে লাশ নেওয়া হয় বারডেম হাসপাতালের হিমঘরে। নিহতের অপর দুই ছেলের একজন অনিক কানাডায়, অন্যজন মুন্না লন্ডনে রয়েছেন। তারা দেশে ফিরলে লাশ দাফন করা হবে গ্রামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ সদরের আদালতপাড়ার বিটিশীল মন্দির এলাকায়।

তদন্তসংশ্লিষ্ট এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, শামসুন্নাহার এ বছরই হজ পালন করেছেন। তিনি ধার্মিক ছিলেন। প্রতি শনিবার স্থানীয় নারীদের নিয়ে বাসায় তালিম দিতেন তিনি। তার বাসায় প্রায়ই বোরকা পরিহিত নারীরা আসতেন। ওই বাড়িতে কোনো ধরনের ক্লোজড সার্কিট ক্যামেরা (সিসিটিভি) ছিল না। তবে খুনিদের শনাক্ত করতে আশপাশের ভবন, অফিস ও রাস্তার সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে।

রাজধানীর কাকরাইলের ৭৯/১ বাসভবনের পাঁচতলার নিজ ফ্ল্যাট থেকে বুধবার মা শামসুন্নাহার ও তার ছেলে শাওনের লাশ উদ্ধার করা হয়। শামসুন্নাহারকে মারা হয় নিজ ঘরে। আর সিঁড়িতে ছেলেকে। গতকাল ঘটনাস্থলে গিয়ে বাসা তালা মারা দেখা গেছে। আর সিঁড়িতে এখনো লেগে আছে ছোপ ছোপ রক্তের দাগ।

রুপালী আলো

Leave a Reply