৪০ লাখ বস্তা অবিক্রিত আলু হিমাগারে, লোকসানের পরিমান ছাড়াবে পাঁচশ কোটি টাকা

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : বাজারে চাহিদা না থাকায় মুন্সীগঞ্জের ৭০ টি হিমাগারে সংরক্ষিত ৭০ লাখ বস্তা আলু থেকে অবিক্রিত রয়েছে প্রায় ৪০ লাখ বস্তা আল্। আলুর ন্যায্য মুল্য না পাওয়ায় এ জেলায় কৃষক ও ব্যবসায়ীদের লোকসানের পরিমান ছাড়াবে পাঁচশ কোটি টাকা। ব্যংকের লোন পরিশোধ করতে না পারায় যেমন বিপাকে কৃষক ও ব্যবসায়ীরা, তেমনি হিমাগারগুলো বন্ধের আশঙ্কায় সংশ্লিষ্টরা। তবে এই বড় অংকের লোকসানের পরিমান কিছুটা কমাতে বেশ কয়েকটি পরামর্শ তোলে ধরেন, বাংলাদেশ কোল্ড ষ্টোরেজ এসোসিয়েশন।

বংলাদেশ কোল্ড ষ্টোরেজ এসোসিয়েশন এর হিসেব মতে এবার মুন্সীগঞ্জে সংরক্ষিত আলুর প্রায় ৬০ শতাংশই অবিক্রিত হয়ে রয়ে গেছে হিমাগার গুলোতে। যার প্রধান কারণ বাজারে চাহিদার ঘাটতি। মুন্সীগঞ্জে এবার উৎপাদিত আলুর পরিমান প্রায় ১৪ লাখ মেট্টিক টন হলেও , জমি থেকে আলু বিক্রি ও দেশীয় পদ্বতিতে সংরক্ষিত আলুর পরিমান সাড়ে আট লাখ মেট্টিক টন। কৃষি দপ্তরের হিসেব মতে বাকি সাড়ে পাঁচ লাখ মেট্টিক টন আলু প্রায় ৭০ লাখ বস্তায় ভরে সংরক্ষন করা হয় ৭০ টি হিমাগারে। যা হতে কৃষক ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা সাত মাসে বিক্রি করতে পেরেছে মাত্র ৩০ লাখ বস্তা আলু।

হিমাগার কর্তৃপক্ষের সহায়তায় প্রতিবছরের মতো এবারও কৃষক ও ব্যবসায়ীরা প্রতি বস্তা আলুর বিপরীতে পাঁচশ টাকা করে ব্যংক ঋন সহায়তা পেয়েছে। যা ৭০ লাখ বস্তায় ৫০ টাকা করে ব্যাংক সুদ ধরে মোট ঋনের হিসেবে দাঁড়ায় তিনশ ৮৫ কোটি টাকা। কৃষকরা আরো জানান, এর সাথে প্রতি বস্তায় তিনশ করে হিমাগারের ভাড়া এবং অনেকেই আত্মীয় স¦জনদের কাছ থেকে নেয়া ঋনের বোঝাও বয়ে বেড়াচ্ছে। ফলে দিশেহারা কৃষকরা শুধু হিমাগারের ভাড়া ও ব্যংক ঋণ থেকে বাঁচতে হিমাগারে আলু রেখে আত্মসর্মপন করা ছাড়া কোন উপায় পাচ্ছেনা বলে জানান মুন্সীগঞ্জের ৮৮ হাজার আলু চাষিদের অনেকেই। তবে হিমাগার গুলোতে আলু রেখে দিয়ে আত্মসমর্পনের অঘোষিত সন্ধি হলেও। স্বজনদের কাছ থেকে নেয়া ঋন পরিশোধের আর কোন উপায় পাচ্ছেনা অনেকেই। এমন পরিস্থিতিতে কেউ কেউ ভিটে বাড়ি বিকি করার কথাও ভাবছেন। অন্যদিকে গিমাগার কর্র্তৃপক্ষ বলছেন, আর মাত্র মাস দেড়েক পর কৃষকদের প্রায় জমি থেকে নতুন আলু উত্তোলন হবার কথা রয়েছে। সেক্ষেত্রে হিমাগারে সংরক্ষিত আলুর চাহিদা একে বারেই না থাকার সম্ভবনা রয়েছে। ফলে আত্মসমর্থিত কৃষকরা কোন রকম বেঁচে গেলেও, হিমাগার শিল্পকে টিকিয়ে রাখা কোন ভাবেই সম্ভব হবেনা বলে মনে করছেন তাঁরা। জমি থেকে হিমাগার পর্যন্ত প্রতি বস্তা আলুর গড় খরচ ১৩শ টাকা দাঁড়ালেও, বর্তমানে তা বিক্রি করতে হচ্ছে এর অর্ধেক দামে।

কৃষক ও ব্যবসায়ীদের বাঁচাতে এবং হিমাগারগুলো রক্ষার্থে আলু খাদ্যাভাস বৃদ্ধি, ত্রান কার্যে আলু বিতরণ, বাংলাদেশে আশ্রিত নয় লাখ রোহিঙ্গাদের ভাতের পাশাপশি আলু খাবারের ব্যবস্থা, ভিজিএফ-ভিজিডি কার্ডে অন্যান্য খাদ্যের সাথে আলু রাখ। চাল, আটার পাশাপাশি পুলিশ, অনসার এবং অন্যান্য সংস্থার রেশন ব্যবস্থাপনায় পরিমিত আলু রাখা ও বিদেশে রপ্তানী ব্যবস্থাপনায় বিশেষ নজরসহ সরকারের কাছে বেশ কয়েকটি প্রস্তাবনার কথা জানালেন, বাংলাদেশ কোল্ড ষ্টোরেজ এসোসিয়েশনের সভাপতি, মোশরাফ হোসেন পুস্তি।

এবার টন প্রতি গড়ে তিনহাজার টাকা লোকসান হয়েছে জমি থেকে সরাসরি ও দেশীয় পদ্ধতীতে রাখা মোট সাড়ে আট লাখ টন বিক্রিত আলুতে। যেখানে কৃষক ও ব্যবসায়ীদের মোট লোকসানগনতে হয় দুইশত ৫৫ কোটি টাকা। আর বর্তমান গড় বাজার দর ধরে, টন প্রতি পাঁচ হাজার টাকা লোকসানে বাকি সাড়ে পাঁচ লাখ মেট্টিক টনে, লোকসান হচ্ছে দুইশ ৭৫ কোটি টাকা। বর্তমান পরিস্থিতিতে এই মৌসুমে আলু চাষি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের মোট পাঁচশ ৩০ কোটি টাকা লোকসান হলেও, হিমাগারগুলোতে সংরক্ষিত আলু বিক্রিত না হলে লোকসানের পরিমান হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যাবার সম্ভবনা রয়েছে বলে মনে করছেন বাংলাদেশ কোল্ড ষ্টোরেজ এসোসিয়েশন।

এবার হিমাগারে সংরক্ষিত আলুর পরিমান ৭০ লাখ বস্তা ।
এ পর্যন্ত বিক্রিত বস্তার পরিমান: ৩০ লাখ বস্তা।
অবিক্রিত বস্তার পরিমান: ৪০ হাজার বস্তা।
প্রতি বস্তায় ৫০০ টাকা ধরে মোট ব্যাংক ঋন : তিন কোটি ৫০ লাখ।
৫০ টাকা সুদসহ দাঁড়াবে : তিন কোটি ৮৫ লাখ টাকা।
উৎপাদিত আলুর মোট পরিমান ১৪ লাখ মেট্টিক টন।
প্রতি কেজি বিক্রিতে গড়ে তিন টাকা লোকসানে সাড়ে আট লাখ টনে লোকসান : দুইশ ৫৫ কোটি টাকা।
প্রতি কেজি পাঁচ টাকায় হিমাগারের সংরক্ষিত সাড়ে ৫৫ লাখ টনে লোকসান : দুইশ ৭৫ কোটি টাকা
মোট লোকসানের পরিমান পাঁচশ ৩০ কোটি টাকা।

Leave a Reply