উজ্জ্বল সাহিত্যিক দম্পতি: পূরবী বসু ও জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত

শামীম আল আমিন: খুব সুন্দর একটি দিন। ঝকঝকে রোদ্দুর মাখা। সূর্যের তেজ প্রখর। কোথাও কোনো মেঘের চিহৃ নেই। এরপরও হঠাৎ করেই আষাঢ় মাসের মতো গুড় গুড় করে আকাশ ডাকতে শুরু করলো!

কিছুক্ষণের মধ্যেই চারপাশ অন্ধকার করে নেমে এলো মুষলধারে বৃষ্টি। সেকি বৃষ্টি! সবুজ চাদর বিছানো পাহাড়ি ভূমিতে তখন অদ্ভূত এক পরিবেশ! মাঝে মধ্যে যেন বজ্রপাতের শব্দও হচ্ছে। পাশের একটি রেস্ট হাউজের বারান্দায় আশ্রয় নিলাম আমরা।

আমরা মানে- আমি, আমার স্ত্রী আর আমাদের শিশু কন্যা। বৃষ্টি কমার জন্যে অপেক্ষা। কিন্তু এত জোরে বৃষ্টি হচ্ছে যে কমার কোনো লক্ষণই নেই। অপেক্ষা দীর্ঘায়িত না করে আমি মাথায় একটা পলিথিন পেঁচিয়ে ছুটলাম গাড়ির দিকে। কারণ আমাদের জন্যে দু’জন মানুষ অপেক্ষা করছেন।

বিয়ার মাউন্টেন থেকে আমাদের গাড়িটা ছুটলো সাহিত্যিক দম্পতি জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত ও পূরবী বসুর বাসার দিকে। সেখান থেকে দূরত্ব খুব বেশি না। পাহাড়ি আঁকাবাঁকা পথ পেরিয়ে যখন বাড়িটার সামনে পৌঁছলাম, তখন বৃষ্টি কিছুটা ধরে এসেছে।

বাড়ির গেইট ধরেই যেন দাঁড়িয়ে ছিলেন জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত। আমাদের প্রিয় দাদা। আমাদের আগমন টের পেয়ে নেমে এলেন পূরবী বসুও। অত্যন্ত বড় মাপের এই দু’জন মানুষের সাথে আমার পরিবারের অসাধারণ একটি সন্ধ্যা কাটলো। যা সারাজীবন মনে দাগ কেটে থাকবে। তাদের স্নেহ ও মমতা আমাদের জন্যে সবসময়ই ভালো লাগার।

এমনি করে নিউ ইয়র্কে কতবার যে দেখা হয়েছে তাদের সাথে। খুব ভালোলাগা কাজ করেছে সবসময়ই। বাংলাদেশে একাত্তর টেলিভিশনে সাক্ষাৎকার নেওয়ার মধ্য দিয়ে তাদের সাথে পরিচয়। এরপর বইমেলা কিংবা তাদের শান্তিনগরের বাড়িতে অনেকবারই দেখা হয়েছে। কিন্তু নিউ ইয়র্কে প্রথম দেখা হয় ২০১৬ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি, শনিবার।

নিউ ইয়র্কের বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র একটি পাঠচক্রের আয়োজন করেছিলো। জ্যাকসন হাইটসে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সেদিন এই দম্পতির দুটি বইয়ের উপর আলোচনা হয়। জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের ‘শূন্য নভে ভ্রমি’ এবং পূরবী বসুর ‘কিংবদন্তির খনা ও খনার বচন’। আলোচনায় অংশ নিয়েছিলাম আমিও।

এর কিছুদিন পরেই জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের একুশে পদক প্রাপ্তির আনন্দ সংবাদ আসে। তখন ঢাকায় গিয়েছিলেন তারা। ফিরে আসার পর ৪ মার্চ প্রিয় জ্যোতিদা’র একুশে পদক প্রাপ্তি উপলক্ষ্যে একটি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন কবিতার কাগজ ‘শব্দগুচ্ছ’-এর সম্পাদক হাসানআল আব্দুল্লাহ। সেই অনুষ্ঠানে জ্যোতিদা’কে নিয়ে কিছু কথা বলার সুযোগ হয়েছিল আমারও।

‘নারী’ নামে একটি মাসিক পত্রিকা বের হয় নিউ ইয়র্ক থেকে। সেটির উপদেষ্টা সম্পাদক পূরবী বসু। এই পত্রিকার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে এসেছিলেন কলরাডোর ডেনভার থেকে। সেই অনুষ্ঠানে ছিলাম সেখানেও।

১৬ সেপ্টেম্বর আমার মেয়ে অপর্ণার জন্মদিনে তারা আসবেন, এটা প্রায় নিশ্চিতই ছিলো। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আসতে পারেননি। পরে জেনেছি, ওই একই দিন পূরবী দি’রও জন্মদিন। অথচ আমার জানা ছিলো না। এক ধরনের অপরাধবোধ পেয়ে বসলো আমাকে। তবে ভালোলাগাও কাজ করছিল এই ভেবে, আমার মেয়ে আর পূরবী দিদির জন্ম একই দিনে।

সেদিন তিনি আসলে দু’টি কেক কাটা যেত। আসতে পারেননি। অবশ্য দূর থেকে শুভেচ্ছা বিনিময় করতে ভোলেননি। আমার পরিবারও তাকে জানালো হৃদয়ের উষ্ণতাভরা শুভ কামনা।

এরপর কয়েকদিন পরেই টেলিফোন করলেন পূরবী দিদি। জানালেন, ২৪ সেপ্টেম্বর দুপুরে আমি এবং আমার পরিবার যেন জ্যাকসন হাইটসে যাই। সেখানে একটি রেস্টুরেন্টে কয়েকজনকে নিয়ে বসবেন তারা। কিছুদিন ধরে জ্যোতি দাদা ও পূরবী দিদি তাদের কলরাডোর বাড়ি থেকে নিউ ইয়র্কের রকল্যান্ড কাউন্টির বাড়িতে এসে আছেন। কিছু কাজ করতে হচ্ছে। ফলে এর মধ্যে কয়েকবার শহরে এসেছেন।

পূরবী দিদির সেদিনকার কথায় আমি জানালাম, অবশ্যই জ্যাকসন হাইটসে যাবো। কিন্তু কেন যেতে বললেন, তার কোনো কারণ জানা ছিল না। গিয়ে জানলাম, সেদিন ছিল সুখী এই দম্পতির বিবাহবার্ষিকী। তাদের একসাথে ৫০ বছর কাটানোর দিন। ভাবতেই অভিভূত হয়ে গেলাম!

ভালোলাগায় মনটা ভরে গেল। দু’জনকে দেখে ভালোও লাগছিল। দাদা পড়েছিলেন সিল্কের পাঞ্জাবি আর দিদি রঙিন একটা শাড়ি। তারা নিশ্চয়ই মনে করেছেন, ৫০ বছর আগে ফেলে আসা তাদের স্বপ্নভরা সেই দিনটার কথা। সেখানে চমৎকার কিছু মুহূর্ত কেটেছে তাদের সাথে।

এভাবে অনেকবারই এই সাহিত্যিক দম্পতির সাথে নিউ ইয়র্কে দেখা হয়েছে আমার। নিউ ইয়র্কে এলে তারা আমাকে না দেখে ফিরে যান না, এটা আমার পরিবারের জন্যে পরম সৌভাগ্যের। বিরাট এক পাওয়া।

অনানুষ্ঠানিক আলাপচারিতা হয়েছে অনেকবারই, অনেক বিষয়ে। জেনেছি তাদের ব্যক্তিজীবন, লেখাপড়া, পেশাজীবন কিংবা সাহিত্যিক জীবনের জানা-অজানা অনেক কথা। গল্পের ছলে বলেছেন অনেক কিছুই। আবার জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত আমার ভ্রমণ উপন্যাস ‘তাসমান পাড়ে ভালোবাসার উৎসব’ এর জন্য একটা ভূমিকাও লিখে দিয়েছেন। এরমধ্যে অবশ্য দু’বার তাদের দু’জনকে একসঙ্গে বসিয়ে আনুষ্ঠানিক সাক্ষাৎকার নেওয়ার সুযোগও হয়েছিল আমার।

যখনই তাদের সাথে কথা বলেছি, রীতিমতো মুগ্ধ হয়েছি। বিশেষ করে এই দম্পতির একের প্রতি অপরের ভালোবাসা আর শ্রদ্ধাবোধ দেখে। তারা পরস্পর নিজেদের প্রতি, তাদের কাজের প্রতি ও স্বকীয় ধারার প্রতি প্রচণ্ড যত্নবান। একবার নিউ ইয়র্কের জনপ্রিয় টেলিভিশন টিবিএন২৪-এর হয়ে সাক্ষাৎকার নিয়েছিলাম। সেই সাক্ষাৎকারে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা হয়েছে। তাদের সাহিত্যিক জীবনের কিছু কথা, চুম্বক অংশ এবার তুলে দিলাম পাঠকদের জন্যে।

প্রথম প্রশ্নটা ছিল জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের প্রতি। “বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন ১৯৭১ সালের। মহান মুক্তিযুদ্ধের বছরের। স্বাধীনতার পর পরই যা ঘোষণা করা হয়। অনেক বছর হয়ে গেল। তবু কেমন অনুভূতি হয়, সেকথা ভাবতে? ”

তিনি বললেন, “যাদের সাথে পুরস্কারটা পেয়েছিলাম, তারা প্রত্যেকেই গুণী মানুষ। আমি তখন নতুন, লেখালেখি করছি মাত্র কয়েক বছর। ১৯৭২ সালে সদ্য মুক্তিযুদ্ধ শেষ হবার পর যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরে বাংলাদেশ উন্নয়ন সম্মেলন হচ্ছিল। আমি সেখানে উপস্থিত ছিলাম। হঠাৎ মাইকে ঘোষণা করা হলো, ছোটগল্পের জন্য বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন লেখক জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত। তখন স্বভাবতই আমাকে দাঁড়াতে হলো।”

তিনি আরও বললেন, “আমি অত্যন্ত খুশি ছিলাম। বিশেষ করে বছরটার কারণে। আমার সাথে যারা পুরস্কারটা পেয়েছিলেন তারা সবাই আমার অগ্রজ, আমি ছাড়া এখন কেউই বেঁচে নেই। ওই বছর আরও যারা পুরস্কারটা পেয়েছিলেন, তারা হচ্ছেন, কবিতার জন্যে হাসান হাফিজুর রহমান, উপন্যাসে জহির রায়হান, শিশু সাহিত্যে এখলাসউদ্দিন আহমদ, প্রবন্ধ-গবেষণায় মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী এবং আনোয়ার পাশা। প্রত্যেকেই বড় মানুষ।”

“বাংলা একাডেমি পুরস্কার পাওয়ার অনেক বছর পরে পেয়েছেন একুশে পদক। অনেকদিন পরে হলেও সম্মানজনক এই পুরস্কার পাওয়ার অনুভূতি কী?”

উত্তরে জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বলেন, “একুশে পদক পাওয়ার পর, আমি অত্যন্ত আনন্দিত হয়েছি, নিঃসন্দেহে। মনে হয়েছে এটি আমার সাহিত্য জীবনের বড় একটি প্রাপ্তি। বাংলা একাডেমি পুরস্কার পাওয়ার পর মাঝখানে অনেক বছর চলে গেছে। এরপরও একুশে পদক পাওয়া নিতান্তই আনন্দের ব্যাপার।”
আলাপচারিতায় এবার পূরবী বসুকেও যুক্ত করি। জানতে চাই, “আপনিও বাংলা একাডেমি পুরস্কার পেয়েছেন। স্বামী-স্ত্রী দু’জনই সম্মানজনক এই পুরস্কার পেয়েছেন, সাহিত্যকর্ম করে নিজ নিজ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন, কেমন লাগে? ”

তিনি হেসে বললেন, “ভালো লাগে। পুরস্কার উৎসাহ দেয়, কিন্তু এটা কথা নয়। তবুও দু’জনই সাহিত্যের জন্যে বড় পুরস্কারটা পেয়েছি, ভালো তো লাগেই। দায়িত্ব আরও বেড়ে যায়।”

জানতে চাইলাম, “আপনি মূলত গবেষণাধর্মী লেখা ও প্রবন্ধ লেখেন। লেখায় থাকে অসাম্প্রদায়িক চেতনা আর নারীর অধিকারের বিষয়টিও। গল্পও লেখেন। সেই বিষয়ও ব্যাতিক্রম। আপনার লেখা নিয়ে কিছু বলুন।”

পূরবী বসু বললেন, “আমার আসলে সবসময়ই বিশেষ আকর্ষণ বা ইচ্ছা থাকে সমাজে যারা নাকি নিপীড়িত, অবদমিত, তাদের জন্যে বলা, তাদের হয়ে কিছু করা। আমি দেখেছি মেয়েরা কেবল বাংলাদেশে নয়, পুরো পৃথিবী জুড়ে বৈষম্যের শিকার। যদিও তারা সংখ্যালঘু নয়। সেজন্যেই নারী এবং বাংলাদেশে যেসব গোষ্ঠী বৈষম্যের শিকার, তাদের জন্যে আমি লিখি।”

“এছাড়া আমি অনেক সময় বিজ্ঞানের নানা তথ্য এবং অনেক বিষয় একেবারে হুবহু সাহিত্যের ভেতরে দিয়ে দেই। কোনরকম নড়চড় না করে। তো যেটা নাকি বাংলাদেশের সাহিত্যে কেউ খুব একটা করে না। আমি দেখিনি। জানি না, এটা হয়তো সাহিত্যের মর্যাদা ক্ষুণ্ন করে, অথবা সাহিত্যরস থেকে লোকে বঞ্চিত হয়। কিন্তু আমি মনে করি, বিজ্ঞানের সত্য ঘটনাগুলো মাঝে মাঝে হুবহু সাহিত্যের ভেতরে প্রকাশ করলে, তাতে সাহিত্যের মান ক্ষুণ্ন হবে না। এটা আমার এক ধরনের এক্সপেরিমেন্ট।”

“পাঠকের কাছ থেকে কেমন সাড়া পেয়েছেন’ যুক্ত করি এই প্রশ্নটি। পূরবী বসু বললেন, ‘ভালো সাড়া পেয়েছি। অবশ্য কেউ কেউ বলেছে, তারা সাহিত্যরস থেকে বঞ্চিত হয়েছেন। আবার এটাও শুনেছি এটা একটা নতুন ধারা, নতুন মাত্রা সৃষ্টি করেছে।”

“দু’জনেই সাহিত্যকর্ম করছেন এবং অত্যন্ত সফল। একে অপরের প্রতি সহযোগিতার বিষয়টি যদি বলেন। এমনকি কিছু রয়েছে, নাকি লেখালেখির ক্ষেত্রে আপনারা নিজেদের মতো? ”- প্রশ্নটি ছুড়ে দিতেই পূরবী বসু লুফে নেন।

বলতে শুরু করেন, “আমার যখন বিয়ে হয়েছিল, তখন বয়স ছিল ১৮ বছর। বলতে গেলে, আমি জ্যোতির সঙ্গেই বড় হয়েছি। বিয়ের আগে আমি কচিকাঁচার আসরে লিখতাম। ছোটদের লেখা। বড়দের লেখা, গল্প লিখতে শুরু করেছি বিয়ের পরে। ফলে জ্যোতির কাছে আমি অনেক ঋণী। তাছাড়া ও একজন বড় লেখক। ওকে বিয়ে করার জন্যে এটাও একটা বড় কারণ ছিল। লেখক জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত আমাকে আকর্ষণ করেছিল।”

“যাই হোক, ওর কাছে লেখালেখির বিষয়ে আমি সবসময়ই সহযোগিতা পাই। কিন্তু একটা জিনিস সে কখনো করে না, করলে আমি হয়তো আরও ভালো লিখতাম। সে আমার সমালোচনা কখনও করে না। অভিভূত পাঠকও নন। সে মনে করে, আমি একজন লেখক। আমি আমার নিজের মতো করে লিখবো। পাঠক সেটা বিচার করবে। শুধু কিছু বানানের সংশোধন ছাড়া সে আমার লেখা সংস্কারের কোনও কথা বলে না।”

এখান থেকে কথা টেনে নিয়ে জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বলেন, “আমি সবসময়ই চেয়েছি, লেখক জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের ছায়া যেন পূরবী বসুর উপর না পড়ে। আমি কখনোই ভাবিনি পূরবী আমার মতো করে কিছু লিখবে। শুরু থেকেই আমি বলেছি, তোমার মতো করে তুমি লিখবে। নিজস্ব ধারায় লিখবে। যার ফলে কিছু বানানের সংশোধন ছাড়া কোনরকম সম্পাদনা আমি করি না। এই বিশ্বাস থেকে সে লেখক তার নিজের গুণে। ফলে তাকেই পাঠক জানুক। চিরকাল সেটাই চেয়েছি। তাছাড়া আমার সবসময়ই মনে হয়েছে, কেবল সময়ের ব্যবধান। যতই সময় এগিয়েছে, আমার মনে হয়েছে বাংলা সাহিত্যের প্রধানতম একজন লেখক হিসেবে পূরবী প্রতিষ্ঠিত হবে। সে হয়েছে।”

জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত আরও বলেন, “শুধু তো তাই নয়। আমার লেখালেখির পেছনেও পূরবীর অনেক অবদান রয়েছে। মাঝখানে তো আমি অনেক বছর লেখা এক ধরনের ছেড়েই দিয়েছিলাম। পূরবীই আমাকে লেখায় ফিরিয়ে এনেছে।”

“বিজ্ঞানী থেকে কীভাবে লেখক হলেন?”- জানতে চাই পূরবী বসুর কাছে। তিনি বলেন, “আমি তো প্রধানত বিজ্ঞানী। লেখালেখি শুরু করেছিলাম কৌতুহল থেকে। সাহিত্যের প্রতি আমার সবসময়ই আগ্রহ রয়েছে। তবে কখনও ভাবিনি সাহিত্যিক হিসেবে আমি প্রতিষ্ঠিত হবো বা লোকে জানবে। সবসময়ই ভেবেছি বিজ্ঞানী হিসেবে মানুষ আমাকে চিনবে। বিশেষ করে ১৯৯১ সালে দেশে ফেরার কারণেই আমি লেখায় মনযোগ দিতে পেরেছি। বেক্সিমকোতে চাকরি নিয়ে দেশে যাই, তারপর ব্র্যাকে স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালকের দায়িত্বও পালন করেছি। এক দশক দেশে থাকার কারণেই মূলত আমার সাহিত্যকর্ম এগিয়েছে। নাহলে আমার সাহিত্যকর্ম হয়তো শুরুই হতো না।”

“গবেষণাধর্মী অনেক লেখাই তো আপনি লিখেছেন। গবেষক হিসেবে যখন লিখেছেন, তা প্রকাশের সাথে, সাহিত্যকর্ম প্রকাশ হবার অনুভূতির কী পার্থক্য, নাকি একইরকম লেগেছে সবসময়ই?”

এই প্রশ্নের উত্তরে পূরবী বসু বলেন, “দেখুন, আমার অন্তত ৪০টি গবেষণাধর্মী লেখা পৃথিবীর বড় বড় জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এগুলো লেখা যেমন কঠিন ও সময়সাপেক্ষ, তেমনি প্রকাশ করার বিষয়টি আরও কঠিন। কয়েক হাত ঘুরে, রিভিউ কমিটির মূল্যায়নের পর তা ছাপা হয়। এরপরও আমি বলবো, আমার একটি গল্প প্রকাশের অনুভূতি আজও সেইসব জার্নালে লেখা প্রকাশ হবার চেয়ে অনেক আনন্দময়। কারণ আমি এটা বুঝি, বিজ্ঞানের গবেষণায় আমি যেখান থেকে শুরু করেছি, তার আগে কেউ না কেউ কাজটাকে সে পর্যন্ত টেনে এনেছে। মানে অন্যের কাজকে এগিয়ে নিয়েছি আমি। কিন্তু সাহিত্য কেবলই আমার। এজন্যে এক্ষেত্রে আমার ভালো লাগার অনুভূতিও অনেক বেশি।”

“জ্যোতিপ্রকাশ দত্তকে দেশের মানুষ চেনে স্বার্থক ছোটগল্পকার হিসেবে। আপনার গল্পের ধরন সম্পর্কে কিছু বলুন।”

জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত বলেন, “শুরুতে আমিও চলতি ধারার গল্পই লিখতে শুরু করেছিলাম। সবাই যেমন লেখে। সামান্য কিছুকাল পরে মনে হয়েছিল, এরকম গল্প তো সবাই লিখছে। আমি এমন গল্প লিখবো যা সবার চেয়ে আলাদা হবে। আমার গল্পের জন্যেই আমি পরিচিত হবো। সেইভাবে আমি গল্প লিখতে শুরু করি। আর আমার যারা পাঠক আছেন, তারা সবাই জানেন আমার গল্প অন্যদের চেয়ে আলাদা। অনেকেই বলেন, আমার গল্প পড়লেই বোঝা যায়, এটা জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের গল্প।”

“কিন্তু এই আলাদা হবার কারণ কী? ” পাল্টা প্রশ্ন জুড়ে দেই। ব্যাখ্যা করেন জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত।
বলেন, “প্রথমত গল্পের ভাষা। আমি আমার গল্পের ভাষা এমনভাবে তৈরি করেছি যা সকলের ভাষার চেয়ে আলাদা। আমি তৎসম এবং তদ্ভব শব্দ প্রচুর ব্যবহার করি। তৎসব শব্দের বাড়াবাড়ি আছে। দেশি-বিদেশি শব্দ সবই ব্যবহার করি। আমার যে শব্দটি প্রয়োজন, আমি সেই শব্দটিই ব্যবহার করি। ভাবি না, এটা কোন রকমের শব্দ। আমি পাঠকের সুখপাঠ্যতার দিকে নজর দেই। আমি এমনভাবে বাক্য গঠন করি, যেটি পড়তে ভালো লাগে। বাক্যটি যেন নতুন হয়। সমৃদ্ধ হয়।”

“আপনি ভিন্ন একটি ধারা তৈরি করেছেন উপন্যাসের ক্ষেত্রেও। নাম দিয়েছেন ছোট উপন্যাস। বিষয়টি কী, একটু বিস্তারিত যদি বলেন।”

জ্যোতিপ্রকাশ দত্ত হেসে উত্তর দেন, “দেখলাম সকলেই আমাকে জিজ্ঞেস করেন উপন্যাস লিখবেন না। আমি বলি,নিশ্চয়ই লিখবো। কিন্তু কখনোই লেখা হয়নি। একমাত্র আমার সেই প্রথম জীবনের রহস্য উপন্যাস ‘কুয়াশা’ ছাড়া। তারপরে লিখতে গিয়ে মনে হলো, উপন্যাস তো কতই লেখা হচ্ছে, দিস্তা-দিস্তা কাগজে উপন্যাস লিখছে, হাজার-দেড় হাজার পৃষ্ঠার উপন্যাস লেখা হচ্ছে, ৫০-৬০ পৃষ্ঠার উপন্যাস রয়েছে প্রচুর। আমি এমন এক রকমের উপন্যাস লিখবো যেটি আলাদা হবে। হাজারে হাজারে উপন্যাসের ভেতর থেকে সবাই জানবে এটি জ্যোতিপ্রকাশ দত্তের উপন্যাস। সেই চিন্তা থেকেই ছোট উপন্যাস লেখা।”

“এই উপন্যাসের ভেতরে আমি মিশিয়েছি কবিতা এবং ছোটগল্পকে। ভাষা এবং ফর্মও আলাদা। আমার উপন্যাসের ফর্ম যদি দেখেন, চলতি উপন্যাসের ফর্ম এটি নয়। এটি অনেক বেশি মিলবে ছোটগল্পের সঙ্গে। যেমন আমার ‘শূন্য নভে ভ্রমি’ উপন্যাসের প্রথম চ্যাপ্টারে সবমিলিয়ে তিন-চারটে বাক্য রয়েছে। আট-দশ লাইন। আবার দেখা গেল কোনো চ্যাপ্টারে পাঁচ-ছয়-দশ পৃষ্ঠা লিখে দিলাম। পরের পরিচ্ছেদ হয়তো দুই লাইনের। গঠনও ভিন্ন।”

এরপর আরও নানা বিষয় নিয়ে কথা হয়েছে। উজ্জ্বল এই সাহিত্যিক দম্পতির সাথে। কথা চলছেই, চলবেও। তবে কিছু কথাকে অক্ষরবন্দি করে রাখার জন্যেই আমার লেখাটি। আনন্দ-অনভূতি নিয়ে অনেকদিন কথা বলে যেতে চাই আমার জ্যোতিদা আর পূরবীদির সাথে।

শামীম আল আমিন :
লেখক ও সাংবাদিক
ইমেইল: amin.one007@gmail.com
ছবি কৃতজ্ঞতা: লেখক ও বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

বিডিনিউজ

Leave a Reply