ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ডিভাইডার ॥ পারাপারে বাধা

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মেঘানা সেতু থেকে মেঘনা গোমতী সেতু পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার পথে সম্প্রতি ডিভাইডার স্থাপন নিয়ে ক্ষোভ ছড়িয়ে পরেছে। গজারিয়া উপজেলার এই ১৩ কিলোমিটার মহাসড়কে ডিভাইডার স্থাপন মাত্র ৪টি পকেট রাখা হয়েছে। এই পকেট দিয়ে এপার থেকে ওপারে যেতে পারে। কিন্তু বিশাল এলাকায় এবং গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্ক রোড বরাবর পকেট না থাকায় সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া কোন ফুট ওভার ব্রিজও নেই। তাই এক প্রান্তের জনপদের মানুষ অপর প্রান্তের জনপদে যেতে বিপাকে পরেছে। কারণ মহাসড়কে কোন ধীর গতির বাস সার্ভিসও নেই। ছোট ধরনের কোন যাও চলতে দিচ্ছে না। তাই স্কুল, কলেজ, হাসপাতাল, থানা, হাটবাজারে যেতে সমস্যা হচ্ছে। ওপারের মানুষ এপারে এবং এপারের মানুষ ওপারে আসতে কঠিন সমস্যা হচ্ছে। অনেকে ঝুকি নিয়ে উচু ডিভাইডারও কষ্টে পার হচ্ছে। কিন্তু রোগীরা আসতে পারছে না। পীক্ষার্থীরা বিপাকে পরেছে। কয়েক কিলোমিটার পথ ঘুরে আসতে হচ্ছে।

অ্যাডভোকেট মৃণাল কান্তি দাস এমপি রবিবার এই তথ্য দিয়ে জানান, জরুরি অবস্থায় ছোট যানে হাসপাতালে যেতেও বাধা হাইওয়ে পুলিশ আটকে দিচ্ছে। ডিভাইডারে এভাবে বন্ধ করে রাখায় উন্নয়ন প্রকল্পও বন্ধ হয়ে গেছে বলে জানান, গজারিয়া ইউএনও সাইফুল ইসলাম। ইট বালু এপর থেকে ওপারে নেয়া যাচ্ছে না। ইটবালু নিয়ে কোন ছোট যান মহাসড়কে উঠতে দিচ্ছে না। ডিভাইডারের পকেটে আসার জন্য মহাসড়কে চলা ছাড়া নির্দিষ্ট গন্তব্যে যেতে পারছে না। এতে গজারিয়াবাসী চরম ক্ষুব্ধ। যে কোন সময় মহাসড়ক অবরোধ করতে পারে। তাই দ্রুততম সময়ে সমস্যাটি সমাধান সমাধান জরুরি।

জনকন্ঠ

Leave a Reply