বিচারপতি সিনহার পদত্যাগ ছাড়া উপায় ছিল না: অ্যাটর্নি জেনারেল

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার পদত্যাগে বিচার বিভাগ ভারমুক্ত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

তিনি বলেন, আমি প্রথমেই বলেছি। বিচার বিভাগ ভারমুক্ত হলো। বিচার বিভাগের কোনো ব্যক্তি যদি দুর্নীতি ও চরিত্র স্খলনে জড়িত থাকেন, কোনোমতে তার বিচার বিভাগে থাকা উচিত নয়। তাই পদত্যাগ ছাড়া তার কোন উপায় ছিল না। তার পদত্যাগে বিচার বিভাগে কোনো প্রভাব পড়বে না। রবিবার নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধান বিচারপতি পদত্যাগ করেছেন। রাষ্ট্রপতির কাছে পদত্যাগপত্র পৌঁছেছে। পরবর্তী প্রক্রিয়া কী? এমন প্রশ্নের জবাবে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, রাষ্ট্রপতির কাছ থেকে আইন মন্ত্রণালয়ে যায় এবং গেজেট প্রকাশিত হতে হবে। সংবিধানে আছে, স্বহস্তে দরখাস্ত করে রাষ্ট্রপতির কাছে দাখিল করা হলে এটি (পদত্যাগপত্র) কার্যকর হবে।

অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, আমি আগেই বলেছি, সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগ বলতে শুধু প্রধান বিচারপতিকেই বোঝায় না। আপিল বিভাগের সব বিচারপতি এবং প্রধান বিচারপতিকে বোঝায়। যেদিন অন্য বিচারপতিরা প্রধান বিচারপতির সঙ্গে একত্রে বসে মামলা নিষ্পত্তিতে অনীহা প্রকাশ করলেন এবং রাজি হলেন না, সেদিনই জিনিসটা ফয়সালা হয়ে গেছে। সেদিনই কিন্তু আমি বলেছিলাম, ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বলেছিলাম, প্রধান বিচারপতি হিসেবে ফিরে এসে দায়িত্ব গ্রহণ করা ওনার জন্য সুদূর পরাহত।

পদত্যাগী বিচারপতি এস কে সিনহার বিরুদ্ধে এতগুলো অভিযোগ সত্ত্বেও তাকে দেশ ছেড়ে চলে যেতে দেওয়া হলো, দেশের বাইরে গিয়ে তিনি পদত্যাগ করলেন এতে করে বিচার বিভাগের প্রতি মানুষের আস্থার চিড় ধরানোর সুযোগ করে দেওয়া হলো কিনা-জানতে চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, একজন ব্যক্তির ব্যাপারে যদি কোনও রকম অভিযোগ থাকে এবং সবচেয়ে বড় কথা, তিনি প্রধান বিচারপতি; তার ব্যাপারে তো সাধারণ আদালতে গিয়ে মামলা করা যায় না। এটা রাষ্ট্রপতির গোচরে গেছে, রাষ্ট্রপতি অন্য বিচারকদের এটা জানিয়েছেন। অন্য বিচারপতিরা তার (এসকে সিনহা) সঙ্গে বসতে রাজি হননি। এটিই হলো বাস্তবতা।

দুর্নীতি দমন কমিশন বিচারপতি সিনহার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিষয়ে তদন্ত করতে পারবে কিনা জানতে চাইলে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, এটি রাষ্ট্রতির বিষয়। রাষ্ট্রপতি কী করবেন সেটি তিনিই জানেন।

বিচারপতি সিনহার দেওয়া রায় সম্পর্কে জানতে চাইলে মাহবুবে আলম বলেন, রায় উনি একা দেননি। আমাদের বিচার বিভাগে এককভাবে কোনও বিচারপতি বিচার করেন না। আপীল বিভাগে বিশেষ করে, বিচার যেগুলো করা হয়েছে, অন্য বিচারপতিরাও ওনার সঙ্গে ছিলেন। সুতরাং, ওইসব রায়ে কোনও প্রভাবই পড়বে না এবং রায়ের কার্যকারিতাও কোনোরকম ক্ষুণ্ন হবে না মনে করেন অ্যাটর্নি জেনারেল।

জনকন্ঠ

Leave a Reply