সিপাহীপাড়াতে 9D, অসম্ভব রকমের বিস্ময়!

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তিতে এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। তারই ধারাবাহিকতায় মুন্সীগঞ্জ সদরের সিপাহীপাড়া ফারিন প্লাজার গ্রাউন্ড ফ্লোরে চালু হয়েছে আনন্দ পার্কের 9D. বিশ্বের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী স্থাপনা, জীব জানোয়ার, পরিবেশ প্রকৃতি, শূন্যতায় ভেসে চলা এবং অন্যগ্রহে ভেসে বেড়ানো সবই যেন বাস্তবতার অনুভূতির মধ্যে পরে 9D প্রযুক্তিতে। আনন্দ পার্কের এই 9D তে স্বপ্ন বাস্তবায়নের প্রায় শতাধিক আইটেম রয়েছে। যেখানে উপভোগকারীরা হারিয়ে যায় প্রতিটি ইভেন্টেই। রোববার বিকালে আনন্দ পার্কে যেয়ে দেখা যায়, মুন্সীগঞ্জ পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউটের তিনজন শিক্ষার্থীদের যারা 9D প্রযুক্তির শতাধিক আইটেমের মধ্যে পাঁচটি আইটেম দেখে বের হলেন, উপভোগকারী তিনজনের মধ্য থেকে সর্বপ্রথম অনুভূতির কথা জানতে চাওয়া হলো কম্পিউটার প্রথম পর্বের ছাত্র ইব্রাহিম খালিদের কাছে, হাস্যোউজ্জল ভঙ্গিতে এক কথায় বল্লেন, যতোটা সময় ধরে ইভেন্টগুলোর মধ্যে ছিলাম মনে হয়েছিলো স্বপ্নে বিভোর ছিলাম।


ইলেক্ট্রিক্যাল প্রথম পর্বের ছাত্র কিবরিয়া আহাম্মেদ বলেন, অনেক জায়গায় ঘুরতে চাইলেও আমাদের সাধ্য ও সামর্থের মধ্যে নাই যে, সে সব জায়গাগুলো ঘুরে আসবো। তবে নাইন ডির মাধ্যমে অসাধারণ কতোগুলো জায়গায় ঘুরে এলাম, বাস্তবতার সাধ অনুভবে কোন ঘাটতি ছিলোনা সেই সব দৃশ্যগুলো দেখে বলতে হয় দারুন উপভোগ্য জিনিষ। না দেখলে বিরাট বড় একটা মিস করা হতো। আই পি টি সির প্রথম পর্বের ছাত্র শুভর অনুভূতিগুলো প্রায় একই রকমের, স্বপ্নের দেশ থেকে যেন ঘুরে এলাম, প্রযুক্তির মাধ্যমে স্বপ্নের ঠিকানা বাস্তবে রূপ দেয়া। এই তিনজন শিক্ষার্থীদের মতো নাইন ডিতে বিভিন্ন রাইডস উপভোগ করা সকলের অভিমত একই নি:সন্দেহে চমৎকার, অভিভূত হবার মতো একটা টেকনোলজি। অপরূপ সুন্দর্যে কিছুটা সময়ের জন্য হারিয়ে যাওয়া। 9D’র পরিচালক শাহজালাল জানান, সকলকে সাধ্যের মধ্যে বিনোদন দেয়াই আনন্দ পার্কের মূল লক্ষ্য।

Leave a Reply