সিরাজদিখানে ভাড়া বাসায় দ্বিতীয় স্ত্রী সহ পাওয়া গেল এসআইকে !

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) আসাদুজ্জামান পলাশ দ্বিতীয় স্ত্রী সহ হাতে নাতে ধরা পড়লেন। শনিবার দুপুর ১টার দিকে জেলা শহরের মাঠপাড়া এলাকা থেকে পুলিশ হেডকোয়াটারের একটি টিমের কাছে ধরা পড়েন।

এ দিকে ওই এসআই নারি নির্যাতন মামলায় সাময়িক বরখাস্ত রয়েছেন। এসআই আসাদুজ্জামানের বিরুদ্ধে গাজিপুর আদালতে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া দ্বিতীয় বিয়ে, চেক জালিয়াতী, নারী নির্যাতন ও প্রতারনার অভিযোগে পৃথক ৪টি মামলা রয়েছে।

পুলিশ হেডকোয়াটারের ইন্সপেক্টর মো: সালাউদ্দিন জানায, এসআই আসাদুজ্জামান ২০১৩ সালে ময়মনসিংহ জেলা গফরগাওঁ থানার বাসুটিয়া গ্রামের জাহাঙ্গীর হোসেনের মেয়ে তাহমিনা আক্তার রুপালী (২৪) কে বিয়ে কেেরন। এরপর ২০১৫ সালে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়াই লিনা বেগমকে বিয়ে করেন। দ্বিতীয় স্ত্রীর ঘরে একটি মেয়ে রয়েছে। এ ঘটনাটি জানার পর স্বামী এসআই আসাদুজ্জামানের কাছে জানতে চাইলে প্রথম স্ত্রীর উপর অমানবিক নির্যাতন নেমে আসে। এরপরই এসআই আসাদুজ্জামান দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে অনত্র বসবাস করে আসছে। এ ঘটনায় প্রথম স্ত্রীর বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন ও মেয়ে বাদি হয়ে গাজিপুর আদালতে মোট ৪টি মামলা দায়ের করেন। এসব মামলায় এসআই আসাদুজ্জামান ও তার মা জেল খেটে বর্তমান জামিনে মুক্ত রয়েছেন। ইন্সপেক্টর মো: সালাউদ্দিন আরও জানান, প্রথম স্ত্রীর বাবা জাহাঙ্গীর হোসেন আইজিপি বরাবর অভিযোগ দিলে গোয়েন্দা শাখার কর্মকর্তারা তদন্ত শুরু করে। তিনি বলেন তদন্তকারী দলের কাছে ২ দফা জিজ্ঞাসাবাদে তিনি দ্বিতীয় বিয়ের কথা অস্বীকার করে আসছিলেন।

অবশেষে শনিবার দুপুর ১টার দিকে তদন্তকালে শহরের মাঠপাড়া এলাকার একটি ভাড়া বাসায় দ্বিতীয় স্ত্রী সহ তাকে পাওয়া যায়।

এ ব্যাপারে মুন্সীগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম বিডি২৪লাইভকে জানায়, এসআই আসাদুজ্জামান পলাশের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতনের মামলা হওয়া গত তিন মাস যাবত সাময়িক বরখাস্ত রয়েছে।

Leave a Reply