সংসার জোড়া লাগালেন এএসপি কাজী মাকসুদা লীমা

বিয়ের ৫ বছর পর থানায় বসে কাবিন রেজিষ্ট্রি
মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখান থানায় গত শুক্রবার রাতে ভেঙে যেতে বসা সাড়ে ৫ বছরের সংসার জোড়া লাগালেন সিরাজদিখান সার্কেল এএসপি কাজী মাকসুদা লীমা। তাঁর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় থানায় মামলা না নিয়ে সংসারটি জোড়া লাগানো হয়। শুধু তাই নয় সাংসার ভেঙে যেতে বসা ওই দম্পত্তির দীর্ঘ ৫ বছরের কোন কাবিন রেজিষ্ট্রি না থাকলেও দেড় লাখ টাকা দেন মোহরে ওই রাতেই কাবিন রেজিষ্ট্রির ব্যবস্থা করা হয়। তাঁর এই উদ্যোগে একটি সংসার জোড়া লেগেছে । এ নিয়ে এলাকাবাসী সিরাজদিখানের সার্কেল এএসপি কাজী মাকসুদা লিমা-কে জানিয়েছেন সাধুবাদ।

জানা যায়, গত সাড়ে ৫ বছর আগে সিরাজদিখান উপজেলার দক্ষিন তাজপুর গ্রামের আব্দুল খালেক মিয়ার ছেলে মো.আল আমিন (২৬)-এর সঙ্গে একই উপজেলার ইছাপুরা ইউনিয়নের চন্দদুল গ্রামের মো.ইব্রাহিম মিয়ার মেয়ে মাকসুদা আক্তারের (২১) সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। দর্জি দোকানের কর্মচারী আল আমিন ও মাকসুদার সংসার বিয়ের পরে ভালই চলছিল। তাদের ঘরে তানজিদ শেখ নামে একটি ২ বছরের সন্তানও আছে। বিয়ের সময় মাকুসাদার বয়স ছিল মাত্র ১৪ বছর। বাল্য বিয়ের সময় কোনো কাবিন রেজিস্ট্রি হয়নি। বিয়ের ২ বছর পর থেকেই স্বামী-স্ত্রীর মাঝে ছোট খাটো বিষয় নিয়ে ঝগড়া হয়। স্ত্রীর অভিযোগ স্বামী তাকে টর্চার করে। টর্চারের মাত্র বেড়ে যাওয়ায় উপায় না দেখে স্ত্রী মাকসুদা গত শুক্রবার সিরাজদীখান থানায় স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করতে আসে। থানায় ঢুকতেই এএসপি কাজী মাকসুদা লীমা’র সামনে পড়ে গৃহবধু মাকসুদা। এএসপি নিজেই জিঞ্জাসা করেন আপনারা কার কাছে যাবেন। উত্তরে গৃহবধু জানান, স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করতে এসেছি। এ কথা শুনে এএসপি তার রুমে নিয়ে যান ওই গৃহবধুকে এবং ভুক্তভোগী মাকসুদার সব কথা শোনেন ।

গত শুক্রবার দু’পক্ষের অভিাভাককে থানায় ডেকে এনে ধৈর্য সহকারে উভয়ের কথা শুনে। তিনি উভয়কে স্মরণ করিয়ে দেন একটি সংসারের ভাল মন্দের কথা। সুখ দুঃখ সংসারে থাকবে। অভাব অনটনে সংসার ভেঙে যায়। কিন্তু নিজেদের মধ্যে মিল থাকলে অভাবও সংসারে হানা দিতে পারেনা। অনেক কষ্টও জয় হয় স্বামী স্ত্রীর ভালবাসার কারণে। তাঁর এ কথা শুনে উভয়েই অনুতপ্ত হয়। এবং তাঁরা সংসার করার অগ্রহ প্রকাশ করে। এসময় এএসপি মাকসুদা উভয়কে ধৈর্য্যরে সাথে সংসার করতে বলেন। বিয়ের কাবিন যেহেতু নেই তাই দেড় লাখ টাকা দেন মোহরে থানায় বসে স্বামী স্ত্রীর কাবিন রেজিস্ট্রি করা হয়। এরপর উভয় পরিবার ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে তাদের দুজনকে মিলিয়ে দেয়া হয়। এসময় মিষ্টিও খাওয়ানো হয় সবাইকে এবং সার্কেল এসএসপি কাজী মাকসুদা লীমা দুজনকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। এএসপি মাকসুদার এ প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সিরাজদিখান উপজেলা সুধী সমাজসহ সমাজের নানান শ্রেনীর লোকজন।

আল-আমিন জানান,সংসার জীবনে আমাদের দু‘জনের অনেক ভূল-বুঝাবুঝি ছিল লীমা স্যার আমাদের চোখ খুলে দিয়েছেন এখন আমরা অনেক সুখী ,আশা করি ভবিষ্যতে আমাদের সংসারে আর কোন সমস্যা হবে না ।’

এ ব্যাপরে এএসপি কাজী মাকসুদা লীমা জানান, ‘সমাজের অনেক লোকের মাঝে পুলিশ সম্পর্কে অনেক সময় অনেক খাপার ধারণা আছে। কিন্তু আমরাও মানুষ। আমদেরও ভাই, বোন,স্বামী-স্ত্রীসহ সমাজ সংসার রয়েছে। সংসারের সমস্যাটা আমরাও বুঝি। তাই মামলা করলে অনেক ঝামেলা। সংসারও ভাঙতে পারে। নিজের বিবেকের তাড়নায় চেষ্টা করলাম সংসারটি জোড়া লাগাতে। আপাতত জোড়া লাগাতে সক্ষম হয়েছি। কাবিন রেজিষ্ট্রি ও করিয়েছি। সবচেয়ে বড় কথা মামলা না নিয়ে আগে সংসারটি জোড়া লাগাতে পেড়েছি।’

ক্রাইম ভিশন

Leave a Reply