মুন্সীগঞ্জের পর মিরসরাইতেও সাড়া পাচ্ছে না বিজিএমইএ

বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল
মুন্সীগঞ্জের বাউশিয়ায় পোশাক শিল্পের জন্য বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তোলার উদ্যোগে সাড়া পায়নি বিজিএমইএ। পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠনটি এখন চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে একই পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে। এতেও তেমন একটা সাড়া মিলছে না। প্লটের আবেদন করলেও জমি বরাদ্দের টাকা জমাদানে খুব বেশি আগ্রহ দেখাচ্ছেন না পোশাক শিল্প মালিকরা।

জানা গেছে, বাউশিয়ায় বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দেয় জমির মূল্য নিয়ে। প্রকল্প বাস্তবায়নের শুরু থেকে বাড়তে থাকে জমির মূল্য। এতে আগ্রহ হারাতে থাকেন উদ্যোক্তা ও প্রকল্পে অর্থায়নকারীরা।

সম্প্রতি জমি ও গ্যাস-বিদ্যুত্ সরবরাহের নিশ্চয়তায় বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেজা) আওতায় চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার
উদ্যোগ নিয়েছে বিজিএমইএ। প্লট বরাদ্দ পেতে সদস্যদের প্রতি আবেদনের আহ্বান করে সংগঠনটি। এরই মধ্যে আবেদন জমা দিয়েছে ১০০-এর বেশি প্রতিষ্ঠান। কিন্তু জমি বরাদ্দের বুকিং মানিবাবদ অর্থ পরিশোধ করছে না অধিকাংশই।

গত ১২ অক্টোবর জমি বরাদ্দের আবেদন আহ্বান করে বিজিএমইএ। গত শনিবার পর্যন্ত আবেদন করেছে ১২৩টি প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে বুকিং মানিবাবদ নির্ধারিত হারে অর্থ জমা দিয়েছে মাত্র ২৭টি প্রতিষ্ঠান। বুকিং মানি জমা দেয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ঢাকার রয়েছে ১০টি। বাকি ১৭টি প্রতিষ্ঠান চট্টগ্রামের। ৩০ নভেম্বরের মধ্যে বুকিং মানির ১৫ শতাংশ জমা দেয়ার সময় বেঁধে দিয়েছে বিজিএমইএ। বুকিং মানির বাকি ১০ শতাংশ পরিশোধ করতে হবে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে। এখনো যারা বুকিং মানি দেয়নি, তাদের বেঁধে দেয়া সময়সীমার মধ্যে তা জমা দিতে বলা হয়েছে।

জানতে চাইলে বিজিএমইএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এসএম মান্নান কচি বণিক বার্তাকে বলেন, এখন পর্যন্ত ১২৩টি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা আমাদের আহ্বানে সাড়া দিয়ে জমির জন্য আবেদন করেছেন। কিন্তু বুকিং মানিবাবদ অর্থ জমা দিয়েছে ২৭টি প্রতিষ্ঠান। আমরা বুকিং মানি জমা দিতে সময় বেঁধে দিয়েছি।

বুকিং মানিবাবদ অর্থ জমা দেয়া ঢাকাভিত্তিক প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে শমশের রেজিয়া ফ্যাশন লিমিটেড, এনার্জিপ্যাক ফ্যাশন্স লিমিটেড, ফারসিং নিট কম্পোজিট লিমিটেড, অনন্ত স্পোর্টস লিমিটেড, ডেনিম ফ্যাশন লিমিটেড, ইএইচ ফ্যাব্রিকস লিমিটেড, জেনেসিস ফ্যাশনস লিমিটেড, কলাম্বিয়া গার্মেন্টস লিমিটেড ও স্যামস অ্যাটায়ার লিমিটেড।

বিজিএমইএ সূত্র জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত মিরসরাইয়ে জমি পেতে আগ্রহী ১২৩ আবেদনের ৫৭টি ঢাকার ও ৬৬টি চট্টগ্রামের। গত শনিবার পর্যন্ত ৩৭৮ একর জমি বরাদ্দের আবেদন জমা পড়েছে। এর মধ্যে ১৯২ একর ঢাকাভিত্তিক শিল্প উদ্যোক্তাদের ও ১৯৫ একর চট্টগ্রামের উদ্যোক্তাদের।

পোশাক শিল্পের জন্য আলাদা পল্লীর বিষয়টি নিয়ে আলোচনা চলছিল দীর্ঘদিন ধরেই। ২০১৩ সালে রানা প্লাজা ধসের পর এ আলোচনা নতুন করে সামনে আসে। ভূমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়ায় প্রশাসনিক অনুমোদনসাপেক্ষে প্রকল্পের অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ দ্রুত এগিয়ে নিতে ২০১৪ সালের জুলাই মাসে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিজিএমইএকে বিশেষ দায়িত্ব দেয়া হয়। বিজিএমইএর আহ্বানে ৬০ কোটি ডলারের প্রকল্পে অর্থের জোগান দিতে রাজি হয় বেসরকারি খাতের চীনা প্রতিষ্ঠান ওরিয়েন্টাল ইন্টারন্যাশনাল হোল্ডিং (ওআইএইচ) করপোরেশন লিমিটেড। চীনের প্রধানমন্ত্রীর সফরে বিজিএমইএ ও ওআইএইচের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তিও সই হয়। কিন্তু জটিলতা দেখা দেয় জমির মূল্য নিয়ে। মুন্সীগঞ্জের ‘বাউশিয়া পোশাক পল্লী’ শীর্ষক প্রকল্পের জন্য নির্ধারিত জমির মূল্য বেড়ে হয় চার গুণ। ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় ওআইএইচের আগ্রহে ভাটা পড়ে। আবার ওআইএইচের কাছ থেকে বেশি দামে প্লট কিনতে বিজিএমইএর আগ্রহও কমে যায়।

বিজিএমইএ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান গত অক্টোবরে এ প্রসঙ্গে বলেছিলেন, মুন্সীগঞ্জের বাউশিয়ায় পোশাক পল্লী লাভজনক হচ্ছে না। সেখানে জমির দাম অনেক বেড়েছে। জমির দাম, অবকাঠামো সব মিলিয়ে উদ্যোক্তা ও আমাদের বিকল্প পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হচ্ছে। এরই মধ্যে আমরা চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের অর্থনৈতিক অঞ্চলে জমি বরাদ্দ পেতে বেজার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছি।

বাউশিয়া প্রকল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত সরকারি প্রতিষ্ঠান বিসিক সূত্রে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে মুন্সীগঞ্জে ৪৯২ একর জমি অধিগ্রহণ প্রক্রিয়া চূড়ান্ত করা হয় ২০১৩ সালে। জমির মূল্য ধরা হয় ৭৭৭ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। একই বছরের ১৩ নভেম্বর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে চারবার জেলা প্রশাসনের কার্যালয়ে অর্থ জমা দিতে বিজিএমইএকে অনুরোধ করা হয়। কিন্তু বিজিএমইএর পক্ষ থেকে কোনো সাড়া না পাওয়ায় অধিগ্রহণ বাতিল করা হয়েছে।

বনিক বার্তা

Leave a Reply