ট্রাম্পের জাপান সফর

রাহমান মনি: গেল সপ্তাহে বিশ্ব মিডিয়াতে প্রধান শিরোনাম হিসেবে স্থান দখল করে নেয় মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এশিয়া সফর। নির্বাচিত হবার পর এটাই ছিল তার প্রথম এশিয়া সফর। এবং কোনো মার্কিন প্রেসিডেন্টের গত ২৫ বছরের মধ্যে দীর্ঘতম সফর। ১১ দিনব্যাপী এই সফরে তিনি জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, চীন, ভিয়েতনাম ও ফিলিপিন সফর করেন। এর আগে এই রেকর্ডটি ছিল জর্জ বুশ সিনিয়রের ঝুলিতে।

জাপানে তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ট্রাম্প ৫ নভেম্বর ’১৭ টোকিও পৌঁছান এবং ৭ নভেম্বর দক্ষিণ কোরিয়ার উদ্দেশে জাপান ত্যাগ করেন। তিনদিনের এই রাষ্ট্রীয় সফরে ট্রাম্প রাষ্ট্রীয় কূটনীতির পাশাপাশি বিনোদন কূটনীতি একই সঙ্গে চালান। যা গলফ কূটনীতি হিসেবে জাপানে পরিচিতি পেয়েছে।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের গলফ কূটনীতি নতুন নয়। এর আগেও উভয় নেতা গলফ কূটনীতিতে জড়িয়েছেন। ২০১৬ সালে ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে প্রথম কোনো রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে আবে নিউইয়র্কের ট্রাম্প টাওয়ারে বিজয়ী ট্রাম্পকে অভিনন্দন জানাতে যান। সেখানে ৯০ মিনিট তাদের বৈঠক হয়। দেড় ঘণ্টাব্যাপী আলোচনা শেষে আবে সাংবাদিকদের বলেন, আমি আজকের আলোচনা থেকে বুঝতে পেরেছি যে, ট্রাম্প এমন একজন নেতা যার ওপর আমি বিরাট আস্থা স্থাপন করতে পারি। আমি মনে করি, আমরা আস্থার এক সম্পর্ক গড়ে তুলতে পারি। উক্ত উষ্ণ বৈঠকের পর উভয় নেতা গলফ খেলায় মেতে ওঠেন। আবে এবং ট্রাম্পের মধ্যে বন্ধুত্ব বেশ ঘনিষ্ঠ।

সেই ট্রাম্প যখন জাপান সফর করবেন তখন আবে তাকে আরও বেশি উষ্ণ অভ্যর্থনা জানাতে কোনো প্রকার কার্পণ্য করবেন না যে, তা সহজেই অনুমেয় ছিল। হয়েছেও তাই, শুধু ট্রাম্প সস্ত্রীকই যে উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়েছেন তা কিন্তু নয়। মার্কিন ফার্স্ট ডটার খ্যাত ট্রাম্পের কন্যা ইভানকাও পেয়েছেন উষ্ণ অভ্যর্থনা। ইভানকা আদায় করে নিয়েছেন ৫০ মিলিয়ন ডলার। ইভানকার নেতৃত্বে দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘ওয়ার্ল্ড অ্যাসেম্বলি ফর উইমেন’ উন্নয়শীল দেশগুলোর নারী উদ্যোক্তাদের সহায়তা দিয়ে থাকে।

শুধু তাই নয়, জাপান সফরের সময় ইভানকার সম্মানে এক নৈশভোজে যোগ দেন আবে। টোকিওর হোশিনাইয়ায় ঐতিহ্যবাহী ‘রিওকান ইন’ এ উক্ত নৈশভোজে আবে ২ ঘণ্টার মতো সময় দেন। যা বিরল একটি ঘটনা, কারণ প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা মাত্র ইভানকা সরকারের উচ্চপদস্থ কোনো কর্মকর্তা কিংবা ট্রাম্প প্রশাসনের কোনো মন্ত্রী নন। এমন একজন বেসরকারি ব্যক্তির জন্য আয়োজনে আবের যোগদান এবং ২ ঘণ্টা সময় দেয়া আবের জন্য কিছুটা হলেও ইমেজ নষ্ট হয়েছে।

ট্রাম্পের সফরকালীন জাপান বিশেষ করে টোকিওর মেট্রোপলিটন শহর নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে ফেলা হয়েছিল। টোকিও শহরে অতিরিক্ত ১০ হাজার পুলিশ অফিসার ট্রাম্পের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কাজ করেছে নিরলসভাবে। গোয়েন্দা বিভাগের ঘুম হারাম করা হয়েছিল। এছাড়াও রেল স্টেশন, বিভিন্ন উদ্যান, লোক সমাগম হয় এমন স্থানগুলোতে চৌকি বসিয়ে চেক করা হয়। সরিয়ে ফেলা হয় ময়লা ফেলার বক্সগুলোও।

ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হিসেবে যতটা সফল তার চেয়েও বেশি সফল একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হিসেবে। প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার পূর্ব থেকেই তিনি সফল ব্যবসায়ী, বলা যায় এই ব্যবসায়ী পরিচিতিই তার প্রেসিডেন্ট প্রার্থীয় মুখ্য ভূমিকা রাখে। আমেরিকার ট্রাম্প টাওয়ারের মালিক, রিয়েল এস্টেট ডেভেলপার, টেলিভিশন প্রডিউসার ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেশ-বিদেশে সম্পত্তির পরিমাণ টাকার অঙ্কে ৩.৫ বিলিয়ন ডলার।

রাজনীতি, কূটনীতি ভালো না বুঝলেও (অকপটে তা স্বীকারও করেন) ব্যবসাটা তিনি বেশ ভালোই বোঝেন। তাই প্রথমবারের জাপান সফরে এসে তিনি ব্যবসাটা ভালোই বাগিয়ে নিয়েছেন। এই ব্যবসা সুদূরপ্রসারী ব্যবসা। তবে তা যতটা না তার নিজের জন্য তার চেয়েও বেশি তার দেশ যুক্তরাষ্ট্রের জন্য। আর এখানেই বোধ হয় যুক্তরাষ্ট্রের বিশেষত্ব।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-উত্তর আমেরিকায় অঙ্গুলির নির্দেশে রচিত জাপান সংবিধানের ৯নং অনুচ্ছেদে (শান্তিবাদী সংবিধান) বহির্বিশ্বের সঙ্গে কোনো ধরনের যুদ্ধে না জড়ানোর প্রতিশ্রুতি রয়েছে। সেই থেকে জাপানের নিরাপত্তা আমেরিকার হাতে ন্যস্ত এবং এই জন্য জাপানকে বিলিয়ন বিলিয়ন অর্থ গুনতে হয় প্রতি বছর। তারপরও তার আরও চাই। আর এই চাওয়ার মধ্যে কোনো রাখঢাক রাখেননি ট্রাম্প।

২০১৬ সালের নভেম্বরে ট্রাম্প আবে ৯০ মিনিটব্যাপী বৈঠকে ট্রাম্প বলেন, জাপানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে জাপানের ভূখণ্ডে মোতায়েন হাজার হাজার মার্কিন সৈন্যের ভরণপোষণের জন্য জাপানের উচিত আরও অর্থ পরিশোধ করা। এ সময় তিনি উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র (সম্ভাব্য) হামলার হুমকি মোকাবিলার জন্য জাপানকে (সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়াকেও) তাদের নিজস্ব পরমাণু অস্ত্র তৈরির পরামর্শ দেন এবং সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

আমেরিকার করা সংবিধানে কাঁচি চালিয়ে আবে যখন সংশোধনের উদ্যোগ নেন তখন আর বোঝার অপেক্ষা রাখে না যে, কোথায় তার খুঁটির জোর। বিশেষজ্ঞরা ধরে নিয়েছিলেন, যে অঙ্গুলির নির্দেশে শান্তিবাদী সংবিধান রচিত হয়েছিল সেই একই অঙ্গুলির নির্দেশেই তা সংশোধন কি জাতীয় স্বার্থ জড়িয়ে থাকতে পারে।

এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, আমেরিকা তার স্বার্থ আদায় ছাড়া এক চুল পরিমাণও নড়াচড়া করে না। আমেরিকা ঠিকই অনুধাবন করতে পেরেছিল যে, জাপানিরা যোদ্ধা জাতি। তারা এমনি এক জাতি যারা ঘুরে দাঁড়াতে দেরি করবে না। কারণ প্রথম বিশ্বযুদ্ধে হেরে যাবার পরও মাত্র তিন দশকের মাথায় আরেকটি বিশ্বযুদ্ধে জড়াবার মতো শক্তি তারা সঞ্চয় করেছিল। শুধু শক্তি সঞ্চারই নয়, বেশ ভালো শক্তি দিয়েই তারা ঝাঁপিয়ে পড়েছিল এবং অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিলও। তাই সময়মতো সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েই সেদিন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আত্মসমর্পণ করা সত্ত্বেও সম্রাট হিরোহিতোকে কোনো যুদ্ধাপরাধের দায়ে দায়ী না করে চাপিয়ে দেয়া সংবিধান রচনায় সম্মত করে আমেরিকা তার নিজের স্বার্থই হাসিল করেছিল। সংবিধান কূটনীতিতে সঠিক কাজটিই করেছিল সেদিন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ উত্তর জাপানি জাতি খেয়ে না খেয়ে, দেশ পুনর্গঠনে বিনা পারিশ্রমিকে শ্রম দিয়েছিল বলেই জাপান দুই দুইটি বিশ্বযুদ্ধে জড়ানোর পরও অন্যতম অর্থনৈতিক পরাক্রমশালী শক্তিতে পরিণত হয়েছিল। এসবই তাদের লড়াকু জাতির প্রমাণ বহন করে।

উত্তর কোরিয়া কর্তৃক বিভিন্ন উসকানি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ-উত্তর বরাবরই ছিল। বর্তমানে উত্তরাধিকার সূত্রে পাওয়া নেতা কিম জং উন এর শাসনামলে তা বৃদ্ধি পেয়েছে মাত্র। এর পেছনেও যে মার্কিন স্বার্থসংশ্লিষ্টতা নেই তা হলফ করে কেউ বলতে পারবে না। ভবিষ্যতেই হয়তো বা ইতিহাস বলে দিবে। যেমনটি এখন জানা যাচ্ছে সাদ্দাম-গাদ্দাফিদের উৎখাতের পেছনে কোনো স্বার্থ জড়িত ছিল। ইরাক এবং লিবিয়ার জনগণ তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন তখন। গণতন্ত্রের স্বাদ এখন তাদের কাছে ফাঁকা বুলি ছাড়া আর কিছুই নয়। সাদ্দাম কিংবা গাদ্দাফির সময়ে ইরাকি কিংবা লিবিয়ানরা না খেয়ে মারা গেছে, ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছে এমনটি খোদ আমেরিকাও বলতে পারবে না। কিন্তু এখন? বিশ্ববাসীর কাছে তা ক্রমশই স্পষ্ট।

জাপানের মাটিতে পা রেখেই ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে ধ্বংস করে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন। আর এই জন্য জাপানকে বলি হতে হবে অর্থনৈতিকভাবে।

জাপানে ট্রাম্প বলেছেন, জাপানের নিজস্ব সৈন্যবাহিনী গড়তে হবে। আর এই সেনাবাহিনী পরিচালনা করতে যেসব অস্ত্র প্রয়োজন হবে তা যুক্তরাষ্ট্র থেকেই আনতে হবে। অর্থাৎ ট্রিলিয়ন ট্রিলিয়ন ডলারের অস্ত্র ব্যবসা। অস্ত্র বিক্রি করেই ক্ষান্ত হবে না মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এগুলো ব্যবহারের রক্ষণাবেক্ষণেও মার্কিন স্বার্থ জড়িত থাকবে। কারণ, ব্যবহারে পরামর্শক নিতে হবে যুক্তরাষ্ট্র থেকে এবং রক্ষণাবেক্ষণ অর্থাৎ কারিগরি সহায়তাও দেবে যুক্তরাষ্ট্র। অর্থাৎ দীর্ঘমেয়াদি জাপানকে শোষণের এক মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে ট্রাম্পের জাপান সফর বলা যায়।

৬ নভেম্বর ট্রাম্প জাপানের সম্রাট আকিহিতো এবং সম্রাজ্ঞী মিচিকোর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

এদিন দুই নেতার মধ্যে শীর্ষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠক শেষে উভয় নেতা যৌথ বিবৃতি দেন। পরে তারা সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে তারা সাংবাদিকদের প্রশ্নবাণে জর্জরিত হয়। যার বেশির ভাগই ছিল উত্তর কোরিয়া সংক্রান্ত।

সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে সন্ত্রাসের মদদদাতা হিসেবে চিহ্নিত করা হবে কি না তা নিয়ে ভাবছেন এবং খুব শীঘ্রই তা জানান দিয়ে এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়ে সন্ত্রাসমুক্ত বিশ্ব গড়ার প্রতিশ্রুতি দেন।

ট্রাম্প বলেন, আমার সঙ্গে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের সঙ্গে আলাপ হবে বলে আশা করছি। যেখানে আমরা উত্তর কোরিয়ার ব্যাপারে পুতিনের সাহায্য চাইব এবং এ ব্যাপারে চীনকেও আরও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে। তিনি জাপান-আমেরিকার সম্পর্ককে অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়েও গভীর বলে মন্তব্য করেন।

এদিকে ট্রাম্পের জাপান সফর এবং আবের সংবিধান পরিবর্তনের বিরোধিতা করে এক বিরাট র‌্যালি হয়। ৪০ হাজারেরও বেশি লোক এতে অংশ নিয়ে থাকে। তারা সবাই যুদ্ধ নয়, শান্তির পক্ষে সেøাগান দেয়।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply