বিএনপির ৭ নভেম্বর পালন

রাহমান মনি: কিশোর-কিশোরীর প্রেম যেমন শাসন করে বা ধমক দিয়ে ছোটানো যায় না বরং আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে ওঠে, ঠিক তেমনি বিএনপিপ্রেমী নেতাকর্মীদেরও ভয়ভীতি, হামলা-মামলা, গুম কিংবা খুন করে ফেরানো যাবে না। কারণ, এ প্রেম দেশপ্রেম। বিএনপি দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করে স্বনির্ভর সোনার বাংলা গড়ার কাজ করে। তাই, দেশপ্রেম থেকেই বিএনপিপ্রেম। দলের আদর্শের প্রেম। এ প্রেম ছুটবার নয়। যত অত্যাচার হবে বিএনপির জনসমর্থন ততই বাড়বে। শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়ার সৈনিকরা পিছু হটবার নয়।

যেমনভাবে পিছু হটেনি শহীদ জিয়া। দেশে যখনি ক্রান্তিকাল চলে এসেছে তখনি শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান দক্ষ নাবিকের মতো হাল ধরেছেন। কখনো বা তিনি নিজে, কখনো বা সিপাহী-জনতার মাধ্যমে। ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর তেমনি একটি উদাহরণ। এভাবেই মূল্যায়ন করে ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর পালন করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) জাপান শাখা।

৭ নভেম্বর বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট পালন করে বিপ্লব ও সংহতি দিবস হিসেবে।
ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যে পালন করছে জাপান বিএনপি।

দিবসটি পালনে ১২ নভেম্বর টোকিওর কিতাসিটি অউজি হোকুতোপিয়াতে এক আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

সান্ধ্যকালীন এ আলোচনা সভাটি ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক নুর খান রনির পরিচালনায় সভাপতিত্ব করেন জাপান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মো. মোফাজ্জল হোসেন। এ সময় মঞ্চে আরো উপস্থিত ছিলেন সাধারণ সম্পাদক মীর রেজাউল করিম রেজা, সিনিয়র সহসভাপতি মো. আলমগীর হোসেন মিঠু এবং উপদেষ্টা কাজী এনামুল হক।

পবিত্র কোরান তেলাওয়াতের মাধ্যমে সভার কাজ শুরু হয়। বাংলায় তরজমাসহ পবিত্র কোরান থেকে তেলাওয়াত করেন মো. আবু তাহের রিপন।

ঐতিহাসিক এ দিনটির তাৎপর্যে বক্তব্য রাখেন মো. সেলিম আহমেদ, শাওন আহমেদ, শেখ ইমন, সফিকুল আলম সফিক, আবু তাহের রিপন, মাসুদ পারভেজ, তৌহিদুল ইসলাম হেলাল, সাদেকুল হায়দার বাবলু, মো. ওমর ফারুক রিপন, মো. মোস্তাফিজুর রহমান জনি, রবিউল আলম সাব্বির, মো. হাইয়ুল ইসলাম, জুয়েল পাঠান, মো. আবুল খায়ের, মোল্লা দেলোয়ার হোসেন, মো. আশরাফুল ইসলাম শেলী, কাজী ইনসানুল হক, লিটন মাহমুদ, মো. আলমগীর হোসেন মিঠু, মীর রেজাউল করিম রেজা, কাজী এনামুল হক, মো. মোফাজ্জল হোসেন প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর বাঙালি জাতির জীবনে এক অবিস্মরণীয় দিন। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সিপাহী (সৈনিক)-জনতা ঢাকার রাজপথে নেমে এসেছিল জাতীয় স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব সুরক্ষা ও হারানো গণতন্ত্র পুনরুজ্জীবনের দৃঢ় প্রত্যয় বুকে নিয়ে। ৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক বিপ্লব তাই অত্যন্ত তাৎপর্যম-িত। সৈনিকদের সঙ্গে যোগ দিয়েছিলেন আপামর জনতা। মূলত এই দিনের মাধ্যমে বাংলার মানুষ স্বাধীনতা এবং গণতন্ত্রের পূর্ণ স্বাদ পান। যদিও ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারিতে তা আবার খর্ব করা হয়।
তারা বলেন, বাঙালি জাতি লড়াকু জাতি। সংগ্রাম করেই আজ স্বাধীন জাতিতে পরিণত। ২০০ বছর শাসনকারী ব্রিটিশদের তাড়ানো হয়েছে আন্দোলন করেই। ’৫২-র ভাষা আন্দোলন, ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ, ’৯০-এর গণঅভ্যুত্থানÑ এ সবই আন্দোলনের ফসল। আন্দোলন বিফল হয়নি স্বাধীনচেতা এ জাতির। ইনশাআল্লাহ বিনা ভোটে সরকার বনে যাওয়া হাসিনা সরকারকেও আন্দোলনের মধ্যে ভোটাধিকার আদায় করে এবং ভোটযুদ্ধেই ব্যালটের মাধ্যমে পরাজিত করে তাদের হটানো হবে। ফেরাউন কিংবা নমরুদই যেখানে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে পারেনি আর এ তো হাসিনা। তার ক্ষমতাও চিরদিন থাকবে না।

বক্তারা বলেন, আজ দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াকে খুব বেশি প্রয়োজন ছিল। ১৯৭১ সালে মার্চে উত্তাল দিনগুলোর ২৫ মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান যখন গ্রেপ্তার হওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিয়ে বাসায় থেকে অবশেষে পাকবাহিনী কর্তৃক গ্রেপ্তার হলেন, আওয়ামী লীগের নেতা নামধারীরা নিরাপদ আশ্রয়ে চলে গেলেন, নেতৃত্বশূন্য হয়ে দিশেহারা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে গেলেন তখনি ২৬ মার্চ ’৭১ কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে জিয়ার কণ্ঠে স্বাধীনতার ঘোষণা বাঙালি জাতির প্রাণ সঞ্চারণ করে। যুদ্ধের ময়দানে থেকে ৯ মাস যুদ্ধ করে পাক হানাদার বাহিনীকে হটিয়ে বাংলার আকাশে স্বাধীনতার পতাকা ওড়ান।

ঠিক একইভাবে ১৯৭৫-এর ৩ নভেম্বর থেকে চলা অভ্যুত্থান, পাল্টা অভ্যুত্থানে দেশ যখন অচল প্রায়, মহান স্বাধীনতার ঘোষক, বীর মুক্তিযোদ্ধা জেনারেল জিয়াউর রহমানকে সপরিবারে সেনানিবাসে বন্দী করে রাখা হয়। এই অরাজক পরিস্থিতিতে ৭ নভেম্বর স্বজাতির স্বাধীনতা রক্ষায় অকুতোভয় দেশপ্রেমিক সৈনিক ও জনতার সম্মিলিত উদ্যোগে জিয়াউর রহমান মুক্ত হন। জিয়ার কণ্ঠ শুনে মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলে। বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব প্রভাবমুক্ত হয়ে শক্তিশালী সত্তা লাভ করে। বলা যায় তখন দ্বিতীয়বারের মতো দেশ স্বাধীন হয়।

তারা আরও বলেন, ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট থেকে ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর পর্যন্ত তো দেশ পরিচালনায় আওয়ামী লীগই ছিল। হত্যা, ক্ষমতার জন্য লড়াই, অভ্যুত্থান, পাল্টা অভ্যুত্থানÑ সবই তো তারাই করেছে। তার আগে আওয়ামী লীগ বিলুপ্ত করে বাকশাল করা হয়েছে। জিয়া ক্ষমতা গ্রহণ করে সকল বাকস্বাধীনতা ফিরিয়ে দেন, আওয়ামী লীগ নাম দিয়ে রাজনৈতিক দল নিবন্ধন করে আবার রাজনীতির সুযোগ নেয় তারা। অথচ সবকিছুতেই তারা বিএনপির দোষ দেয়। বক্তারা জানতে চান তখন কি বিএনপি ছিল? যার জš§ই হয়নি তার ওপর দোষ চাপানো শুধু অন্যায়ই নয়। রীতিমতো ফৌজদারি অপরাধও বটে।

বক্তারা বলেন, বাংলাদেশের মানুষ আজ শান্তিতে ঘুমাতে পারে না। আর বিএনপির সমর্থক হলে তো কথাই নেই। একেকজনের মাথার ওপর একাধিক মামলা। প্রতিদিন তাদের কোনো না কোনো মামলার জন্য আদালত প্রাঙ্গণে যেতে হয়। নিকটজন মারা গেলেও কবরে মাটি দিতে যাওয়ার মতো পরিস্থিতিও তাদের নেই। তবে এই অবস্থা আর বেশি দিন নয়। তাদের বিদায় ঘণ্টা বেজে গেছে। তাই মরণ কামড় দিতে চেষ্টা করছে। কিন্তু কোনো কিছুতেই তা আর রক্ষা হবে না।

সাপ্তাহিক

Leave a Reply