প্রথমবারের মতো ‘চ্যারিটি বাজার’ আয়োজনেই বাজিমাত

রাহমান মনি: জাপানের মাটিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের কর্তৃক আয়োজিত ‘চ্যারিটি বাজার’ আয়োজন করে বাজিমাত করেছে। বাংলাদেশ ‘উইমেনস অ্যাসোসিয়েশন জাপান’-এর ব্যানারে আয়োজিত ‘চ্যারিটি বাজার’ আয়োজন করা হয়েছিল মূলত বাংলাদেশে বন্যাকবলিত কুড়িগ্রাম এলাকার দুস্থ মহিলাদের বন্যা-উত্তর সহযোগিতার হাত বাড়ানোর জন্য।

জাপানের মাটিতে এই প্রথমবারের মতো এই জাতীয় আয়োজন অনুষ্ঠিত হলো ‘বন্যাদুর্গত বা বিভিন্ন দুর্যোগপূর্ণ অবস্থায় স্বদেশের তরে জাপান প্রবাসীরা বরাবরই উদ্যোগ নিয়ে থাকে। তবে চ্যারিটি বাজার এই প্রথম এবং এতে বিপুল সাড়া মেলে যা আয়োজকদের তো বটেই, অন্যদেরও এ ধরনের আয়োজনের উৎসাহ জোগায়।

চ্যারিটি বাজারের মাধ্যমে আয়কৃত অর্থ কুড়িগ্রাম এলাকায় দুস্থ মহিলাদের জন্য পাঠানো হবে বলে আয়োজকদের সূত্রে জানা যায়।

জাপান প্রবাসী মহিলাদের দ্বারা পরিচালিত অনলাইন শপিং ব্যবসায়ীরা চ্যারিটি বাজারে বিভিন্ন পসরা সাজিয়ে বসেন। এসব পসরার মধ্যে বুটিক, তৈরি পোশাক, কুটির শিল্প, চামড়া ও পাটজাত সামগ্রী, বিভিন্ন গৃহস্থালি সামগ্রী, আসবাবপত্র, এক্সেসরিজ, বই, বাংলাদেশে উৎপন্ন পণ্য, জাপানে মহিলাদের হাতে তৈরি বিভিন্ন মুখরোচক খাবার, ফ্যাশন, বিউটি পার্লার অন্যতম ছিল।

মোট ১৭টি স্টল ছিল আয়োজনে। এসব স্টলগুলো হচ্ছে; ভোজন বিলাস (তানিজা, স্বপ্না, লায়লা), ইউনিক ওয়ার্ল্ড (পোশাক ও জুয়েলারি), সাতরং (তৈরি পোশাক), অপ্সরার গহনার বাক্স (জুয়েলারি), সুপ্রভা ফ্যাশন হাউজ (শাড়ি, পোশাক ও ফ্যাশন), মীনা বুটিক (বুটিক), দ্যা এঞ্জেল ফ্যাশন (বুটিক), ডেসটিনি ইঙ্ক (খড়ি), নূপুর গ্রন্থ জগৎ (বই), জেরি নেট (স্ন্যাক্স এবং প্রাণ সামগ্রী), বিজেআইটি (বুটিক), ইরাকই (পোশাক ও জুয়েলারি), নাবা মিষ্টান্ন অ্যান্ড স্ন্যাক্স (খাবার), ফুড কর্নার (খাবার) এবং ফ্লাওয়ার ফাইরিজ বিউটি স্যালুন (বিউটি পার্লার)। এছাড়াও উইমেনস অ্যাসোসিয়েশনসের নিজস্ব দুটি স্টল ছিল। যার একটি খাবার এবং অন্যটি ফ্রি মার্কেট।

প্রতিটি স্টলেই ভিড় ছিল। বেচাকেনাও ভালো ছিল। তবে খাবারের স্টলগুলোতে উপচেপড়া ভিড় ছিল। প্রবাসে স্বদেশী ভাবি/বোনদের হাতে বানানো হরেক রকমের স্বদেশী খাবার প্রবাসীরা উপভোগ করেন। এছাড়াও আয়কৃত অর্থ বাংলাদেশের দুস্থ মহিলাদের বন্যাপরবর্তী পুনর্বাসনের বিষয়টিও কাজ করেছে সবার মনে। তাই, সবাই কেনাকাটার মাধ্যমে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছেন।

১৮ নভেম্বর শনিবার টোকিওর কিতা সিটি উকিমা ফুরেআইকান-এ দিনব্যাপী চ্যারিটি বাজার আয়োজনে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমার প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা প্রচার করা হলেও তিনি দেশের বাইরে থাকায় তার প্রতিনিধিত্ব করেন দূতাবাসের ইকোনমিক মিনিস্টার ড. সাহিদা আক্তার। এছাড়াও দূতাবাসের অধিকাংশ কর্মকর্তাগণ সস্ত্রীক/সপরিবারে উপস্থিত থেকে নারীদের উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়ে একাত্মতা প্রকাশ করেন। বেশ কিছু জাপানি অতিথিরাও চ্যারিটি বাজার উপভোগ করেন।

অপরাহ্নে বাংলাদেশ উইমেনস অ্যাসোসিয়েশন জাপানের অন্যতম উপদেষ্টা মুনশী রোকেয়া সুলতানা রেণু সংগঠনটির পরিচালনা পর্ষদের নাম ঘোষণার সঙ্গে সবাইকে পরিচয় করিয়ে দেন। ঘোষণা অনুযায়ী জেসমিন সুলতানা কাকলী (সভানেত্রী), রুমানা রউফ সোমা (সহ-সভানেত্রী), সুবর্ণা নন্দী রিমা (সাধারণ সম্পাদক), আসমা আখতার পারভীন বহ্নি (যুগ্ম সম্পাদক), সালমা আকতার লাকী (হিসাব রক্ষক) এবং রোকেয়া পারভীন তানিয়া (দফতর সম্পাদক) মোট ছয় সদস্যবিশিষ্ট পরিচালনা পর্ষদ গঠন করা হয়। এছাড়াও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমাকে প্রধান উপদেষ্টা এবং ড. সাহিদা আক্তার ও মুনশী রোকেয়া সুলতানা রেণুকে উপদেষ্টা করে তিন সদস্যবিশিষ্ট উপদেষ্টা পর্ষদের নাম ঘোষণা করা হয়। উপস্থিত সবাই করতালির মাধ্যমে সদস্যদের অভিনন্দন জানান।

বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ইন জাপান (বিসিসিআইজে)’র পক্ষ থেকে কমিটিকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান ব্যবসায়ী সানাউল হক ও চৌধুরী শাহীন।
এরপর জাপান প্রবাসী নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মুনশী কে. আজাদ, আবদুর রহমান, কাজী ইনসানুল হক, খন্দকার আসলাম হিরা, বাদল চাকলাদার, কাজী আসগর আহমেদ সানী, এমডি নাসিউল হাকিম, কামরুল আহসান জুয়েল, মো. শাহ্ হোসেন, এনায়েত উদ্দিন, মো. কায়সার খান এবং রাহমান মনি প্রমুখ।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে নেতৃবৃন্দ উইমেনস অ্যাসোসিয়েশনের সাফল্য কামনা করে বলেন, নারীরা এখন আর পিছিয়ে নেই। বাংলাদেশেও এখন নারীরা অনেক এগিয়ে গেছেন। দেশের শাসন ভার থেকে শুরু করে সংসদ পরিচালনা, রাজনীতি, কর্পোরেট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিচালনায় সর্বস্থানেই নারীদের পদচারণা। এমনকি প্রতিরক্ষা বাহিনীতেও নারীরা অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন। তাই প্রবাসেও বাংলাদেশি নারীরা এগিয়ে যাবেন তা একান্ত কাম্য।

তারা বলেন, একজন ভালো মা একজন আদর্শ সন্তান জন্ম দিতে পারেন। সেই আদর্শ সন্তানই দেশ গঠনে, সৃষ্টির কল্যাণে নিজেকে নিবেদিত করেন। তাই মায়েদের স্থান সবার উপরে।

তারা আরও বলেন, একটি সংগঠন করা খুবই সহজ। প্রবাসে আরও সহজ। কিন্তু একটি সংগঠনকে টিকিয়ে রাখা খুবই কঠিন একটি কাজ। আর নারীদের ক্ষেত্রে আরও বেশি চ্যালেঞ্জের। বাংলাদেশিদের নিয়ে পাশাপাশি দুটি মিথ প্রচলিত রয়েছে। তা হচ্ছে একজন বাংলাদেশি অনেক ভালো কাজ করতে পারেন। কিন্তু অনেক বাংলাদেশি মিলে একটি ভালো কাজ করতে পারেন না। তাই বাংলাদেশ উইমেনস অ্যাসোসিয়েশনের কাছে অনুরোধ থাকবে তারা যেন সেই প্রচলিত মিথকে মিথ্যায় পরিণত করেন। এখানে যেন ইগো বা নেতৃত্বের অথবা পদলোভীদের কোন্দলে পড়ে বহুবিভক্ত হয়ে না পড়েন।

চ্যারিটি বাজার-এর অন্যতম আকর্ষণ ছিল ‘র‌্যাফেল ড্র’। প্রতিটি র‌্যাফেলের মূল্য ছিল ৫০০ ইয়েন। অন্যতম প্রধান আকর্ষণ ছিল সিম ফ্রি মোবাইল এবং মূল্যবান ঘড়ি। আর এ দুটি স্পনসর করেছিল জেবি নেট এবং ডেসটিনি ইন্ক। প্রথম পুরস্কার ব্রান্ডের ঘড়িটি জিতে নেন বিসিসিআইজে মেম্বার, প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী সানাউল হক।
উইমেনস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সংগঠনে নিজেকে নিবেদিত করে বাংলাদেশের সুনাম বৃদ্ধিতে কাজ করার (একতাবদ্ধ থেকে) অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

স্থানীয় স্বরলিপির সদস্যরা সঙ্গীতানুষ্ঠান পরিচালনা করেন ‘চ্যারিটি বাজার’-এ।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply