মুন্সীগঞ্জে ব্যাটারী চালিত রিকশা বন্ধ

মুন্সীগঞ্জ পৌর এলাকায় বন্ধ করা হয়েছে ব্যাটারী চালিত রিকশা। সড়ক দুর্ঘটনা ও বিদ্যুৎ অবচয়সহ নানা সমস্যার কারণে জেলা প্রশাসন, পুলিশ ও পৌরসভা কর্তৃপক্ষের সম্মিলিত সিদ্ধান্তে ১ ডিসেম্বর থেকে পৌর শহরে ব্যাটারী চালিত রিকশা বন্ধ করা হয়েছে। জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা পরিবর্তন ডট কমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, তিন মাস সময় দেওয়া হয়েছিলো ব্যাটারী চালিত রিকশা চালকদের। তারা যেন এই তিন মাসে রিকশা থেকে ব্যাটারী খুলে পায়ে চালিত রিকশায় রুপান্তর করে। সভায় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ১ ডিসেম্ভর শুক্রবার থেকে মুন্সীগঞ্জ পৌর এলাকায় ব্যাটারী চালিত রিকশা চলাচল বন্ধ ঘোষণা করা হয়।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বেপরোয়া রিকশা চালানোর জন্য প্রতিনিয়ত দুঘর্টনা ঘটেই চলছে। চাকায় ওড়না পেচিয়ে অনেক যাত্রী আহত ও নিহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। ব্যাটারি চালিত রিকশার ড্রাইভার রোডের কোন আইন কানুন না মেনে একে অপরের সাথে প্রতিযোগিতায় মেতে উঠে। প্রতিদিন কোন কোন সড়কে ছোট-বড় সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছিলেন জনগন। এছাড়াও ব্যাটারী চালিত রিকশা চার্জের জন্য অতিরিক্ত বিদ্যুৎ প্রয়োজন। অতিরিক্ত বিদ্যুৎ যোগান দিতে গিয়ে ঘন ঘন লোডশেডিং দেখা দেয়। সড়কে জনগনের নিরাপত্তা ও বিদ্যুৎ অপচয়ের বৃহৎ সার্থে মুন্সীগঞ্জ পৌর এলাকায় ব্যাটারী চালিত রিকশা চলাচল বন্ধ করা হয়েছে।
কয়েকমাস আগ থেকেই ব্যাটারী চালিত রিকশা বন্ধ হওয়ার কথা থাকলেও বিভিন্ন সমস্যার কারণে তা বন্ধ করা হয়নি। তারপরেও জনগনের স্বার্থে জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার এবং পৌর মেয়র সম্মিলিত ভাবে ব্যাটারী চালিত রিকশা বন্ধ করার ঘোষণা দেন।

সরেজমিনে দেখাযায়, শুক্রবার থেকেই মুন্সীগঞ্জ পৌর এলাকায় প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি ব্যাটারী চালিত রিকশা। ব্যাটারী চালিত রিকশা শহরে প্রবেশ করতে না দেওয়ায় পৌর এলাকা এখন যানজট মুক্ত।

তবে পৌর এলাকায় ব্যাটারি চালিত রিকশা বন্ধে যানজট কমলেও হঠাৎ করে গনপরিবহন কমে যাওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছে জনসাধারণ।

বেশ কয়েকজন পৌরবাসী পরিবর্তন ডট কমকে জানান, অনেক দুর্ঘটনায় পড়তে হয়েছে এই ব্যাটারী চালিত রিকশার জন্য। বন্ধ করে দেওয়ায় ভালো হয়েছে। পায়ের রিকশা স্বাস্থ্যসম্মত ও চলতে আরাম দায়ক। কয়েকদিন শহরবাসীর একটু কষ্ট মনে হলেও বিষয়টি ঠিক হয়ে যাবে।

তবে এর বিরোধিতা করে কেউ কেউ জানান, মুন্সীগঞ্জে গনরিবহন সংকটে মানুষের ভোগান্তি বাড়ল। অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগও কমল।
মাসখানেক আগে ব্যাটারী চালিত রিকশা বন্ধ করার জন্য জনগনের চলাচলের সুবিধার্থে মুন্সীগঞ্জ পৌর মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব প্রায় ১০০টি পায়ে চালিত রিকশা চালকদের মাঝে বিতরণ করেছেন।

পরিবর্তন

Leave a Reply