আগাম উচ্ছে চাষ করে লোকসানের মুখে মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা

বৈরি আবহাওয়া ও বৃষ্টিপাতের কারণে জমির ফলন নষ্ট এবং উত্তোলন দেরিতে হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের আগাম উচ্ছে চাষিরা ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। যারা নিজেদের জমিতে উচ্ছে চাষ করেছেন তারা মূলধন ঘরে তুলে আনতে পারলেও বর্গাচাষিরা রয়েছেন লোকসানের মুখে। জমির গাছ নষ্ট হয়ে যাওয়ায় অনেক কৃষক একই জমিতে দুইবার উচ্ছে চাষ করেছেন।

এতে করে তারা কোন লাভের মুখ দেখছেন না। গত বছর উচ্ছে চাষে কৃষকরা লাভবান হওয়ায় এই বছর সেই লাভের আশায় তারা উচ্ছে চাষ করে লোকসানের মুখে পড়েছেন। বৈরি আবহাওয়া ও বৃষ্টির কারণে সিজন পিছিয়ে যাওয়ায় কৃষকরা উচ্ছের দাম কিছুটা কম পাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন জেলা কৃষি কর্মকর্তা।

মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া উপজেলায় এবার উচ্ছের আগাম চাষ হয়েছে। এখানকার কিছু কিছু কৃষক শীত মৌসুমের শুরুতে ৫০ টাকা কেজি দরে উচ্ছে বিক্রি করেন। কিন্তু বর্তমানে মাত্র ১০-১২ টাকা কেজি দরে জেলার অধিকাংশ কৃষককে উচ্ছে বিক্রি করতে হচ্ছে। উচ্ছের দামও বাড়ার সম্ববনা নেই। মুন্সীগঞ্জ সদরের চরকেওয়ার ইউনিয়নের উত্তর চরমশুরা ও গুচ্ছ গ্রাম এলাকায় প্রতিদিন দুইশ’ মণ উচ্ছে উত্তোলন হচ্ছে। এইসব উচ্ছে ঢাকার শ্যামবাজার, যাত্রাবাড়ি, কাওরান বাজার ও মতলবের নিমশার পাইকারি হাটে নিয়ে বিক্রি করছেন।

কৃষকেরা জানালেন, উচ্ছে রোপনের ৩০-৩৫ দিনের মাথায় বিক্রিযোগ্য হয়ে উঠে। বৃষ্টির কারণে উচ্ছে গাছ নষ্ট হয়ে এইবার তাদের জমিতে উচ্ছের ফলন কম হয়েছে। বদলী খরচ দিয়ে তাদের লাভের মুখ দেখার সম্ববনা নেই।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. হুমায়ুন কবীর জানান, বৈরি আবহাওয়ার কারণে ফলন কিছুটা কম হচ্ছে। তবে, আবহাওয়ায় এখন ভালো হওয়ায় ফলনও এখন ভালো হবে।

এদিকে, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত বছর এই জেলায় ৩০৮ হেক্টর জমিতে উচ্ছে চাষ হয়েছিলে। এই বছর এই পর্যন্ত ২০৮ হেক্টর জমিতে উচ্ছের আবাদ হয়েছে। গত বছরের চেয়ে এই বছরও উচ্ছের আবাদ কম হবে না। গত বছর হেক্টর প্রতি উচ্ছের ফলন হয়েছিলো ৭ দশমিক ৭৭ মেট্রিক টন।

পিবিডি

Leave a Reply