তবুও স্বপ্ন দেখছেন আলুচাষিরা

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: গত মৌসুমে উৎপাদিত আলুর দামে ধস নামায় দেড়শ’ কোটি টাকা লোকসান হলেও চলতি মৌসুমে আলু রোপণে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা। সকাল-সন্ধ্যা হিমাগার থেকে বীজ আলু নেওয়া, কোথাও জমি পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন, আবার কোথাও রোপণের কাজ করে যাচ্ছেন তারা।

এবার জেলার ৬টি উপজেলায় ৩৯ হাজার ৩শ’ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। শীতের আগমনের শুরুতেই আলু আবাদে জেলার বিস্তীর্ণ এলাকা এখন চলছে আলু রোপণের কাজ। কৃষকদের ব্যস্ততা দেখে বোঝার উপায় নেই, গেল মৌসুমে তারা লাখ লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছেন।

এদিকে কৃষকদের ব্যস্ততায় যুক্ত হয়ে মুন্সীগঞ্জের আবাদকৃত জমিতে আলু রোপণ করে যাচ্ছেন দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আগত লক্ষাধিক পুরুষ ও নারী শ্রমিক। তারা রোজ বা চুক্তি হিসেবে আলু রোপণ করছেন। নভেম্বরের শেষে শুরু হওয়া এ রোপণ কাজ চলবে ডিসেম্বরের কিছু সময় জুড়ে। পাশাপাশি বাড়ির আঙিনায় কৃষকদের সহযোগিতায় সার্বক্ষণিক কাজ করে যাচ্ছেন গৃহিণীরাও। টঙ্গিবাড়ীর ধামারন গ্রামের বাবুল মিয়ার স্ত্রী জুলেখা বেগম জানান, এবার তারা ৬০ শতাংশ জমিতে আলু রোপণ করছেন। তিনি বীজ কেটে দিয়ে স্বামীকে সাহায্য করছেন। প্রতিবেশী গৃহবধূরাও মজুরি পাওয়ায় আশায় এ কাজে যুক্ত হয়েছেন।

কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আলু আবাদের মৌসুম এলে রংপুর, দিনাজপুর, গাইবান্ধা, নীলফামারী, ময়মনসিংহ, কুড়িগ্রামসহ উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে শ্রমিকরা এখানে এসে থাকেন। বর্তমানে জেলার ৬টি উপজেলায় প্রায় এক লাখ শ্রমিক কৃষকের সঙ্গে আলু রোপণ কাজে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।

রংপুর জেলা থেকে আগত শ্রমিক আব্বাস মিয়া জানান, কোথাও চুক্তি অনুযায়ী আবার কোথাও দিনব্যাপী মজুরি নিয়ে তারা আলু রোপণ করছেন। আলু উত্তোলনের সময় তারা আবারও আসবেন।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা খোরশেদ আলম দেওয়ান জানান, চলতি মৌসুমে জেলায় ৩৯ হাজার ৩শ’ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৫ হাজার হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হয়ে গেছে। শীতের শুরুতেই সদর, সিরাজদীখান, লৌহজং, টঙ্গিবাড়ী, গজারিয়া ও শ্রীনগর উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে আলু আবাদের উৎসব শুরু হয়েছে। তবে সবচেয়ে বেশি আলু আবাদ হচ্ছে জেলা সদরেই।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, গত মৌসুমে জেলায় ৩৮ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়েছিল। চাহিদা চেয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় আলু উৎপাদন বেশি হওয়ায় এবার মুন্সীগঞ্জের আলু ব্যবসায়ীরা বস্তাপ্রতি ৭শ’ টাকা লোকসানের শিকার হন। প্রায় দেড়শ’ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে কৃষক ও ব্যবসায়ীদের।

সমকাল

Leave a Reply