বিএডিসির আলু বীজের চাহিদা নেই মুন্সীগঞ্জে

মোজাম্মেল হোসেন সজল: বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) আলু বীজের চাহিদা নেই মুন্সীগঞ্জের কৃষকদের কাছে। এই জেলার কৃষকদের বিএডিসির আলু বীজের প্রতি অনিহা থাকায় বাজারে এর দামও নেই। প্রতি বছর বিএডিসির আলু বীজ ডিলারদের লোকসান গুনতে হওয়ায় এই বছর অনেক ডিলার বিএডিসির হিমাগার থেকেও আলু বীজ উত্তোলন করেনি। যারা উত্তোলন করেছেন, তাদের কমদামে বিক্রি করতে হচ্ছে। মুন্সীগঞ্জে বিএডিসির অধিকাংশই আলু বীজ অবিক্রিত অবস্থায় পড়ে আছে।

এদিকে, যে সব ডিলার আলু বীজ উত্তোলন না করবে তাদের ডিলারশীপ স্থগিত করার নোটিশ দিয়েছে বিএডিসি কর্তৃপক্ষ।

মুন্সীগঞ্জের বিএডিসি’র কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বীজ উত্তোলনের জন্যই ডিলারশীপ দেয়া হয়েছে। আর আলু বীজ উত্তোলন না করলে লাইসেন্স থাকা না থাকা একই কথা।

আলু উৎপাদনের ব্র্যান্ডিং জেলা মুন্সীগঞ্জ। কিন্তু গত বছর মুন্সীগঞ্জের কৃষক ও ব্যবসায়ীরা আলুর দাম পায়নি। এই জেলার কৃষকেরা হল্যান্ড থেকে আমদানিকৃত ডায়মন্ডের বাক্স আলু বীজের প্রতি ঝুঁকে পড়ছে। আলু উৎপাদনের পর কিছু আলু বীজের জন্য হিমাগারে রেখে সেই বীজ এই বছর রোপণ করছে। এতে করে এখানকার কৃষকদের কাছে বিএডিসির আলু বীজের চাহিদা নেই। আবার এই বছর চাহিদা না থাকায় বাক্স আলু বীজেরও দাম পড়ে গেছে।

মুন্সীগঞ্জ জেলার ৬টি উপজেলায় ১৯৪ জন ডিলার রয়েছে। এদের প্রত্যেকের জন্য ৫টন করে বিএডিসির আলু বীজের বরাদ্দ রয়েছে। চাহিদা না থাকায় ৫০ জন ডিলার আলু বীজ উত্তোলন করেনি। বিএডিসি এ গ্রেড কেজি প্রতি ২৩ টাকা এবং বি গ্রেড ২২ টাকা করে ডিলার কাছ থেকে নিচ্ছে। ৪০ কেজি ওজনের এক বস্তা বিএডিসির আলু বীজ সংগ্রহ করতে ডিলারদের খরচ পড়ছে ১ হাজার ৫০ টাকা। কিন্তু বর্তমানে এক বস্তা আলু বীজ বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৩ থেকে ৪শ’ টাকায়। আবার হল্যান্ডের ৫০ কেজি ওজনের এক বস্তা আলুর ক্রয় দাম পড়েছে ৫হাজার ১শ’ থেকে ৫ হাজার ২শ’ টাকা। এই আলু বীজ বাজারে বিক্রি হচ্ছে ২হাজার ৫শ’ থেকে ২ হাজার ৭শ’ টাকায়।

আলু বীজে লোকসানের মুখে পড়ে তাদের পথে বসার কথা জানালেন মুন্সীগঞ্জ জেলা বিএডিসি বীজ ডিলার কৃষি কল্যাণ সমিতির সহসভাপতি জসিমউদ্দিন দেওয়ান। তিনি বলেন, কয়েক বছর ধরে বিএডিসির আলু বীজ উত্তোলন করে বহু টাকা লোকসান গুনতে হয়েছে। এতে তিনি নিঃস্ব হয়ে এই বছর আলু উঠাননি বিএডিসি থেকে।

জেলা বিএডিসি বীজ ডিলার কৃষি কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক আহমেদ উল্লাহ জানান, ডিলার সমিতি থেকে প্রতি কেজি আলু বীজের দাম ১৫ টাকার নিচে নির্ধারণ করে দেয়ার জন্য ডিডি সাহেবকে অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু দাম নির্ধারণ করে নেয়া হয়েছে ২৩-২৪ টাকা। কিছু কিছু ডিলার আলু বীজ উত্তোলন করলেও তারা ক্রয়কৃত বা অর্ধেক মূল্যেও বিক্রি করতে পারছে না। বীজ উত্তোলন না করলে ডিলারদের লাইসেন্স স্থগিত করে দেয়ার নোটিশ দিয়েছে বিএডিসির ঢাকা অঞ্চলের উপপরিচালক (বীজ বিপণন) একেএম ইউসুফ হারুন। তিনি বিএডিসির উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে সরজমিন এসে তদন্ত করে এর সুরাহা করার অনুরোধ জানান।

জেলা বিএডিসি বীজ ডিলার কৃষি কল্যাণ সমিতির সভাপতি মোবারক আলী দেওয়ান জানালেন, দোকানে এনে আলু বীজ বিক্রি করতে পারছেন না। বিএডিসির আলু বীজ দোকানে আনতে খরচ পড়েছে বস্তাপ্রতি ৯৫০ টাকা। কিন্তু বিক্রি হচ্ছে মাত্র ২৫০ থেকে ৩শ’ টাকায়। গত বছর হল্যান্ড থেকে আমদানিকৃত ডায়মন্ডের বাক্স আলু থেকে কৃষকেরা বীজ সংগ্রহ করে সেই আলু বীজ এই বছর তারা রোপণ করছেন। এতে করে বিএডিসির আলু বীজ কিনতে কৃষকেরা আগ্রহী নয়।

মুন্সীগঞ্জের বিএডিসি’র উপপরিচালক ড. মো. ইব্রাহিম খলিল জানালেন, বিএডিসির আলু বীজ নিয়ে মুন্সীগঞ্জের কৃষকদের কাছে প্রচারণা নেই। হল্যান্ড থেকে আমদানিকৃত বাক্স আলুর চেয়ে বিএডিসির আলু বীজের মান অনেক ভালো। কি কারণে মুন্সীগঞ্জের কৃষকরা বিএডিসির আলু বীজ না ব্যবহার করে বাক্স আলুর প্রতি এতো আকৃষ্ট তা গবেষণার বিষয়।

এদিকে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও স্থানীয় বিএডিসি অফিস জানিয়েছেন, জেলায় ৭৭ হাজার মেট্রিক টন আলু বীজের চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে কোল্ড স্টোরেজগুলোতে কৃষকেরা বীজের জন্য সংরক্ষণ করে প্রায় ৫০ হাজার মেট্রিক টন। চলতি আলু মৌসুমে জেলায় বিএডিসির ৩ হাজার মেট্রিক টন আলু বীজের চাহিদাপত্র দেয়া হয়। বরাদ্দ হয়েছে ১ হাজার ৭৫০ মেট্রিক টন। এরমধ্যে জেলার একমাত্র বিএডিসির হিমাগারে আছে ৫৭৪ মেট্রিক টন আলু বীজ। এরমধ্যে এই সরকারি এই হিমাগারে অবিক্রিত অবস্থায় আছে ১৮১ মেট্রিক টন আলু বীজ।

পিবিডি

Leave a Reply