শেষ দিনে দুর্ভোগে ইজতেমার মুসল্লীরা, আখেরী মোনাজাতে অংশ নিতে পারেনি অর্ধ লক্ষ মানুষ

জসীম উদ্দীন দেওয়ান : আইন শৃঙ্খলা থেকে শুরু করে মুন্সীগঞ্জের মিরকাদিমে আয়োজিত তিন দিনের ইজতেমার প্রথম দুই দিনের পরিবেশ পরিস্থিতি পুরোপুরি ছিলো চমৎকার। তৃতীয় দিন শনিবার বেলা সাড়ে এগারোটায় আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে তিন দিনের এই আঞ্চলিক ইজতেমার সমাপ্তি ঘটার কথা থাকলেও বৈরী আবহাওয়া বাঁধ সাধে। শেষ মেষ উলট পালট হয়ে যায় অনেক কিছু।

দেশ জুড়ে নিম্ম চাপের প্রভাবে শুক্রবার শেষ রাতে বৃষ্টির কবলে পরে ইজতেমার মুসল্লীরা। চারটি খিত্তার ভিতরে থাকা প্রায় লাখো মুসল্লীরা বৃষ্টিতে ভিঁজতে থাকে। চান্দিনার উপরে থাকা চট ভেদ করে ময়দানে বৃষ্টির পানি গড়িয়ে পরে এবং এর সাথে সাথে শীতের তীব্রতা বাড়তে থাকলে বিপাকে পরে মুসল্লীরা। মুসল্লীদের দুর্ভোগ বাড়তে থাকলে ফজর নামাজের শেষেই ইজতেমার সময় কয়েক ঘন্টা সংক্ষিপ্ত করার সিদ্ধান্ত আসে। মোনাজাতের নির্ধারিত সময় বেলা সাড়ে এগারোটাকে তিন ঘন্টা নামিয়ে সকাল আটটা ৩৭ মিনিটে মাত্র পাঁচ মিনিট সময় ধরে মোনাজাতের হাত তোলেন লাখো মানুষ।

বিশ্ববাসীর কল্যান কামনা করে মোনাজাত পরিচালরা করেন, কাকরাইলের মুরব্বী মাওলানা ফারুক সায়েদ। এদিকে বেলা এগারোটায আখেরী মোনাজাতকে টার্গেড করে থাকা বিভিন্ন উপজেলার মানুষেরা মোনাজাতে অংশগ্রহণ করতে না পেরে হতাশার কথা জানান। দুর দুরান্তে থাকা অনেকেই সকালে মোনাজাত হয়ে যাবার বিষয়টি পুরোপুরি বিশ্বাস করতে না পেরে munshigonj24.com এর কাছে মুঠো ফোন করে বিষয়টি নিশ্চিত হবার চেষ্টা করেন। অন্যদিকে মিরকাদিম পৌরবাসী মোনাজাত শুরু হবার সংবাদটি পেয়ে তড়িগড়ি করে ময়দানের উদ্দেশ্যে ছুটে গেলেও স্বল্প সময়ের মোনাজাতে অংশ নেয়া সম্ভব হয়ে ওঠেনি তাদের।

মোনাজাত অংশ নিতে সাড়ে আটটা থেকে নয়টা পর্যন্ত পৌরসভার পাড়া মহল্লার সড়কগুলোতে ছুটাছুটি করতে দেখা যায় এখানকার মানুষদের। লাখো মানুষের সাথে সাথী হয়ে আল্লাহর দরবারে কিছু চাইতে না পেরে হতাশ হয়েছেন তারা।

Leave a Reply