‘উত্তরণ’-এর ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

রাহমান মনি: জাপানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের দ্বারা পরিচালিত দুটি প্রিয় সাংস্কৃতিক সংগঠন হচ্ছে ‘স্বরলিপি’ কালচারাল একাডেমি এবং ‘উত্তরণ’ বাংলাদেশ কালচারাল গ্রুপ, জাপান।

গত ৮ অক্টোবর স্বরলিপি তাদের ২৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করেছে। আর উত্তরণ পালন করল তাদের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ১৯৮৮ সালে প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পর থেকে নিয়মিতই বিভিন্ন আয়োজনে (জাপানিদের ও বাংলাদেশিদের) সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে জাপানের মাটিতে বাংলাদেশীয় সংস্কৃতি তুলে ধরার কাজটি করে যাচ্ছে নিরলসভাবে।

২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। টোকিওতে ৩ ডিসেম্বর (রোববার) আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে আমন্ত্রিত হয়ে এসেছিলেন রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান পিপলস্ ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটির (এপিএফএস) প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, জাপানে প্রবাসী বাংলাদেশিদের অকৃত্রিম বন্ধু কাৎসুও ইয়োশিনারি। এ ছাড়াও দূতাবাসের কর্মকর্তাগণ সস্ত্রীক/সপরিবারে এবং সর্বস্তরের প্রবাসীরা উপস্থিত ছিলেন। উল্লেখযোগ্যসংখ্যক জাপানিজ দর্শকসহ অন্য দেশের নাগরিকগণও উপস্থিত থেকে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

অনুষ্ঠান শুরুর প্রারম্ভে দল ম্যানেজার শরাফুল ইসলাম তার স্বাগতিক ও শুভেচ্ছা বক্তব্যে গত এক বছরে বাংলাদেশে খ্যাতিমান শিল্পী আবদুল জব্বার, গীতিকার নজরুল ইসলাম বাবু, নায়করাজ রাজ্জাক, শিল্পী আব্দুর রউফ, খ্যাতিমান শিল্পী, বাঁশিবাদক, গীতিকার ও সুরকার আবদুল বারী সিদ্দিকী এবং ঢাকার মেয়র (উত্তর) আনিসুল হকের প্রয়াণে গভীর শোক প্রকাশ করে সমবেদনা জানানো হয়। শোক প্রকাশ করে স্মরণ এবং শ্রদ্ধা জানানো হয় উত্তরণ-এর প্রাক্তন লিডার প্রয়াত সঞ্জয় দত্তের প্রতি। তাদের সকলের রুহের মাগফিরাত কামনা করে এবং আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। এ সময় ভিন দেশের নাগরিকরাও বাংলাদেশিদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেন, জাপানের মতো ব্যস্ততম জীবনে উত্তরণ নিজ দেশীয় সংস্কৃতিচর্চা এবং তা জাপানিদের মাঝে প্রসার করার নিরলস চেষ্টাকে আমি সাধুবাদ জানাই। গর্ববোধ করি একটি প্রবাসী সাংস্কৃতিক সংগঠনের ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন দেখে। আমি আমার ব্যক্তিগত এবং দূতাবাসের পক্ষ থেকে আপনাদের প্রতি আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞ এবং সাফল্য কামনা করি।

এপিএফএস-এর প্রতিষ্ঠাতা কাৎসুও ইয়োশিনারি তার শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, এপিএফএস এবং উত্তরণ দুটি ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন। ১৯৮৭ সালে এপিএফএস এবং ১৯৮৮ সালে উত্তরণ প্রতিষ্ঠিত হয়। এপিএফএস যখন প্রতিষ্ঠিত হয় তখন আমি ছাড়া বাকি ২০ জনই ছিল বাংলাদেশি, যাদের অনেকেই উত্তরণ-এর সদস্য হয় পরবর্তীতে। উত্তরণ জাপানের বিভিন্ন স্থানে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করে বাংলাদেশকে তুলে ধরছে বলে আমি বিশ্বাস করি। বাংলাদেশের সংস্কৃতি খুব ঐতিহ্যময়। এর শেকড় অনেক গভীরে। যেমন বাংলাদেশিদের হৃদয় বেশ বিশাল এবং অকৃত্রিম। আমি বাংলাদেশ এবং বাংলাদেশিদের খুবই পছন্দ করি এবং একই সঙ্গে ভালোবাসিও।

শুভেচ্ছা বক্তব্যে দলনেতা মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন বলেন, উত্তরণের প্রাণ হচ্ছেন দর্শকশ্রোতা, পৃষ্ঠপোষকগণ এবং শুভানুধ্যায়ী সুহৃদরা। আপনাদের ভালোবাসায় আজ আমরা এ পর্যন্ত আসতে পেরেছি। আশা করি ভবিষ্যতেও এ ধারা অব্যাহত রাখবেন। আমরা শুধু গান-বাজনা নিয়েই ব্যস্ত থাকি না, সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে বাংলাদেশের গরিব মেধাবী ছাত্রদের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করি। আপনাদের সহযোগিতা পেলে তা আরও বৃহৎ আকারে চালিয়ে যেতে চাই।

শুভেচ্ছা বক্তব্য পর্ব শেষ হলে নিয়াজ আহমেদ জুয়েল এবং মৌটুসী দত্তের পরিচালনায় শুরু হয় মূল পর্ব অর্থাৎ সাংস্কৃতিক পর্ব। এ পর্বের শুরুতেই ১৯৪৭ সালের দেশভাগের ইতিহাস বিষয়ক গান এবং গানের সঙ্গে ছোট নাটিকার মাধ্যমে স্বাধিকার আন্দোলনের ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মহান মুক্তিযুদ্ধে অসংখ্য শহীদের রক্ত এবং মা-বোনদের ইজ্জতের বিনিময়ে পাওয়া দেশমাতা এবং শহীদ মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের জন্য মায়ের হাহাকার অনন্ত প্রতীক্ষা সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তোলা হয়। অ্যামেচার অভিনেতা ও অভিনেত্রীরা প্রফেশনালদের চেয়েও যে কোনো অংশে কম নয় তা দর্শকদের প্রতিক্রিয়ায় প্রতীয়মান হয়েছে।

উদ্বোধনী সংগীত ‘এ সবুজ দেশ আমার’ বিজয়ের মাসে মঞ্চ আলোকিত করে শিল্পীরা লাল-সবুজ (বাংলাদেশের জাতীয় পতাকার আদলে) পোশাকে সমবেত কণ্ঠে পরিবেশনায় যথেষ্ট মুন্সীয়ানার পরিচয় দিয়েছে উত্তরণ। বিদেশি দর্শকরা বাংলাদেশ সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন সবুজের দেশ হিসেবে।

২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনে অনুষ্ঠানমালা ঢেলে সাজিয়েছিল উত্তরণ। প্রতিটি গান ছিল শ্রুতিমধুর। গান বাছাইয়ে ও দর্শকদের চাহিদার প্রতি নজর দেয়া প্রশংসিত হয়েছে। দর্শকশ্রোতারা প্রতিটি গান উপভোগ করেছেন। অনেকে ঠোঁট মিলিয়েছেন, কেউ-বা ওয়ান মোর ওয়ান মোর বলে বারবার আবেদন করেছেন। অনেকদিন বিরতির পর তুলি আবার নিয়মিত হওয়া দর্শকদের মাঝে সাড়া জাগিয়েছে।

জাপানে রকস্টারখ্যাত শিশুশিল্পী তাহসিন ইসলাম শব্দ এবার এলআরবি (ব্যান্ড)’র প্রতিষ্ঠিত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর ‘এক আকাশের তারা তুই একা গুনিসনে’ পরিবেশন করে স্টেজ মাতিয়েছে। শব্দ ২৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে নগরবাউল জেমস-এর ‘পাগলা হাওয়ার তরে’ গানটি কচিকণ্ঠে পরিবেশন করে রকস্টার খ্যাতি অর্জন করেছিল।

প্রবাস প্রজন্ম জাপান সম্মাননা ’১৪ প্রাপ্ত খ্যাতিমান শিল্পী, গীতিকার, সুরকার ও বাঁশিবাদক আব্দুল বারী সিদ্দিকী (প্রয়াত)’র সঙ্গে জাপান প্রবাসীদের একটি নিবিড় সম্পর্ক ছিল। তিনি অতিসম্প্রতি পরলোক গমন করেছেন। তার স্মৃতির প্রতি সম্মান জানিয়ে ইমতিয়াজ আহমেদ কোরেশী বাবু বারী সিদ্দিকীর অত্যন্ত জনপ্রিয় সংগীত ‘শোয়া চান পাখি আমার’ গানটি বাঁশিতে সুর তোলেন। এ সময় পুরো হলে পিনপতন নীরবতা বজায় রেখে মন্ত্রমুগ্ধের মতো সুরের মাধ্যমে বারী সিদ্দিকীকে উপলব্ধি করে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন।

প্রয়াত নায়করাজ রাজ্জাকের প্রতি সম্মান জানিয়ে বাংলা ছায়াছবি ‘পুত্রবধূ’তে রাজ্জাক-শাবানা জুটির দর্শক নন্দিত ‘জীবন আঁধারে’ গানটি পরিবেশন করেন মিথুন-রতন জুটি।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে প্রথমবারের মতো স্টেজে পারফর্ম করে দর্শকনন্দিত হয়েছে শিশুশিল্পী রিভু দত্ত। এ ছাড়াও শিশুশিল্পী নাসরা আহমেদ এবং শ্রেয়া পোদ্দারের নাচও দর্শক উপভোগ করেছেন।

বরাবরের মতো এবারও দলীয় সংগীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে উত্তরণ বাংলাদেশ কালচারাল গ্রুপ, জাপান-এর ২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাপ্তি টানা হয়। এ সময় প্রবাসীদের দ্বারা পরিচালিত বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

ফুলেল শুভেচ্ছা জানানোর সময় কিছুটা হযবরল অবস্থার সৃষ্টি হয়। কে কার আগে কাকে ফুল দেবে, আর কে-ই বা ফুল গ্রহণ করবে তার কোনো দিকনির্দেশনা না থাকায় এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এছাড়া ফুলেল শুভেচ্ছার সময় অনুষ্ঠান তাড়াহুড়া করে শেষ করার প্রবণতা লক্ষ্য করা গেছে। ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত উত্তরণ-এর কোনো দলীয় ছবি তোলা সম্ভব হয়নি। সেলফি প্রিয়রা এতে হতাশ হয়েছেন।

২৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীটি স্মরণীয় করে রাখার জন্য ‘উত্তরণ, ২৯’ নামে একটি স্মরণিকা বের করা হয়। স্মরণিকাতে রাষ্ট্রদূত, ম্যানেজার, দলনেতার বাণীসহ বিভিন্ন বিষয় স্থান পায়। স্থান পায় যেরোম গোমেজের রচনায় নাটিকা ‘বেওয়ারিশ ২০১৬’। পাঁচ পৃষ্ঠাব্যাপী নাটিকায় দৃশ্যপট বিস্তারিত বর্ণনা থাকলেও বাস্তবে মঞ্চে এর মঞ্চায়ন দেখা যায়নি। এ যেন ‘কাজির গরু কেতাবে আছে কিন্তু গোয়ালে অবস্থান নেই’র মতো অবস্থা। নাটিকাটি যে মঞ্চায়ন হবে না এমন কোনো ঘোষণাও দেয়া হয়নি উত্তরণ-এর পক্ষ থেকে। ফলে অনেক দর্শক শেষ পর্যন্ত অপেক্ষায় ছিলেন নাটিকাটি দেখার জন্য, পর্দা নেমে যাওয়ার পর অনেকে বুঝতে পারেন যে নাটিকাটি হচ্ছে না। তাই তারা এ যেন শেষ না হইয়াও শেষ হইয়া গেল’র মতো গোলকধাঁধায় পড়েন।

অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে শুভেচ্ছা বক্তব্য পর্ব মূল পর্দার বাইরে হওয়ায় এবং সেখানে উত্তরণ-এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী বা এই জাতীয় কোনো ব্যানার না থাকায় অতিথিরা কোথায় দাঁড়িয়ে বা কোন আয়োজনে বক্তব্য রাখছেন তা বোঝা যায়নি। ব্যানার না করলেও অন্তত সøাইড শো-তে তা তুলে ধরা যায়। এতে করে ভবিষ্যতে সংগঠনের প্রয়োজনেই তা কাজে আসবে। স্মরলিপি আয়োজিত প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতেও একই পরিস্থিতি পরিলক্ষিত হয়েছে। এ জায়গায় দুটি সাংস্কৃতিক সংগঠনের মিল রয়েছে। এ ছাড়াও মিল রয়েছে তারা উভয়ে একে অপরের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও ফুলেল শুভেচ্ছা জানানোর মধ্যে।

জাপানে অনেকেই দীর্ঘদিন যাবৎ বসবাস করছেন, জাপানের নিয়মকানুন জানেন কিন্তু মানেন না। এই না মানার প্রবণতা দিন দিন প্রকট থেকে প্রকটর হচ্ছে। প্রতিটি হলের একটি নিয়মকানুন রয়েছে। সেই নিয়মকানুন না মানলে পরবর্তীতে হল পেতে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। তারচেয়েও বেশি দেশের বদনাম হয়।

যেসব হলে পানাহার নিষেধ সেসব হলে পানাহার তো করেনই, সঙ্গে উচ্ছিষ্টগুলোও রেখে যায়। শিশু সন্তানের ডাইপার বদল করে, বেবি ফুড খাওয়ানোর পর অবশিষ্টগুলো রেখে যায়। শ্রম, মেধা এবং অর্থ দিয়ে করা স্মরণিকাগুলো যেখানে-সেখানে ফেলে যাওয়া যে আয়োজকদের কতটা কষ্ট দেয় তা অনুমান বোধ হয় দর্শকরা অনুধাবন করতে পারেন না, নইলে এমনটি করেন কেন?

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply