মুন্সীগঞ্জের মোল্লাকান্দি আবারও উত্তপ্ত

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে ১০ সদস্যের কমিটি গঠন করার এক সপ্তাহ পর আবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে মুন্সীগঞ্জের মোল্লাকান্দি ইউনিয়ন। সোমবার রাতে চরডুমুরিয়া গ্রামে আওয়ামী লীগ নেতাকে হুমকি ও গতকাল মঙ্গলবার আমঘাটা গ্রামে এক যুবককে মারধর ও একাধিক ককটেল বিস্টেম্ফারণের ঘটনায় আবারও উত্তপ্ত হলো মোল্লাকান্দি। বিস্টেম্ফারিত ককটেলের আলামত জব্দসহ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশের টহল কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এ ঘটনায় আওয়ামী লীগের দু’পক্ষই একে অপরকে দোষারোপ করেছে। অন্যদিকে পুলিশ সুপার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় গঠিত ১০ জনের কমিটি কাগজপত্রে থাকলেও বাস্তবে ওই কমিটির কোনো তৎপরতা নেই বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের দু’পক্ষের নেতারা।

গত ৭ থেকে ৯ ডিসেম্বর তিন দিনব্যাপী দফায় দফায় সংঘর্ষে অসংখ্য ককটেল বিস্টেম্ফারণে প্রকম্পিত মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের উত্তপ্ত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে দু’পক্ষের নেতাদের নিয়ে গত ১১ ডিসেম্বর পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে দু’পক্ষের ৫ জন করে ১০ জনের একটি কমিটি গঠন করে দেয় পুলিশ। কিন্তু এ কমিটি থাকার এক সপ্তাহ পর আবারও দু’পক্ষ বিরোধে জড়িয়ে পড়ে।

আওয়ামী লীগ নেত্রী ও মোল্লাকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান মহসিনা হক কল্পনা জানান, বিএনপি নেতা বোরহান মীর ও আওয়ামী লীগ নেতা আজাহার মোল্লার সন্ত্রাসী বাহিনী সোমবার রাতে চরডুমুরিয়া গ্রামের ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ফরহাদ খানের বসতঘরের বাইরে অবস্থান নিয়ে বাড়ি ছেড়ে চলে যেতে হুমকি দেয়। এ সময় ককটেলের বিস্টেম্ফারণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করলে ঘটনাটি রাতেই পুলিশকে জানানো হয়।

অপরদিকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাহার মোল্লা জানান, চরডুমুরিয়া ও কংসপুরা গ্রামের চিহ্নিত মাদক বিক্রেতারা এ ঘটনায় জড়িত। এর সঙ্গে তাকে সম্পৃক্ত করে ইউপি চেয়ারম্যানের অভিযোগ ঘটনাটি ভিন্ন খাতে নেওয়ার চেষ্টা বলে দাবি তার। তিনি অভিযোগে জানান, গতকাল মঙ্গলবার সকালে আমঘাটা গ্রামে এক যুবককে মারধর করেছে ইউপি চেয়ারম্যানের লোকজন।

সদর থানার এস আই মো. ইব্রাহিম শেখ সোমবার রাতে চরডুমুরিয়া গ্রামে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতিকে হুমকি, ককটেল বিস্টেম্ফারণ ও মঙ্গলবার এক যুবককে মারধরের সত্যতা নিশ্চিত করেন।

সমকাল

Leave a Reply