প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

আমি কাজী নজরুল ইসলাম (পিন্টু) কাজীর বাগ, মালখানগর, সিরাজদিখান। এই মর্মে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানাচ্ছি যে, ক্রাইমভিশন টুয়েন্টিফোর ডট কম অনলাইন পোর্টালে গত ১০ অক্টোবর “সিরাজদিখানে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডোর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ ভাংচুর থানায় অভিযোগ” শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। সেখামে আমার একটি বক্তব্য দেওয়া হয়েছে তথ্য ভুল, মিথ্যা ও বানোয়াট, আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। মোক্তার হোসেন নামের ক্রাইমভিশন অনলাইনের একজন সাংবাদিক তালতলা বাজার আসে। আমরা কয়েখজন বসে আছি, সেখানে এসে জিজ্ঞেস করে, তালতলা বাজারে মারামারি হয়েছে কিনা রবিনদের সাথে ও মামুমদের সাথে। আমরা বলি দেখি নাই শুনেছি। তাতে সে নিউচে প্রকাশ করে আমি নাকি সত্যতা স্বীকার করে বলেছি। মামুন সন্ত্রাসী। সে আমার নাম দিয়ে মিথ্যা রিপোর্ট করেছে। এটা ঠিক না। ফেসবুকের মাধ্যমে সংবাদটি দেরিতে জানতে পারলাম, এজন্য প্রতিবাদ দিতে দেরি হল।

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

গত ১০ অক্টোবর “সিরাজদিখানে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডোর বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর বিক্ষোভ ভাংচুর থানায় অভিযোগ” শিরোনামের একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয় ক্রাইমভিশন টুয়েন্টিফোর ডট কম অনলাইন পোর্টালে। যা তথ্য ভুল, মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে হেয় করার জন্য, আমার বিরুদ্দে দীর্ঘদিন যাবৎ একটি মহল উঠে পরে লেগে আছে, তাই সংবাদিকরদের ভুল তথ্য দিয়েছে। সাংবাদিকদের সঠিক তথ্য সংগ্রহ এবং আমার বিরুদ্দে মিথ্যা তথ্য প্রকাশের আগে আমার বক্তব্য নেওয়া উচিত ছিল বলে মনে করিলাম এবং সাংবাদিক মোক্তারকে প্রতিবাদ ছাপাতে বললাম তিনি বেশ কিছুদিন ঘুরিয়ে ছাপাবেন না বলে দেন। এজন্য প্রতিবাদ প্রকাশে দেরি হলো।

প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখ রয়েছে, এলাকাবাসী আমার বিরুদ্ধে সন্ধ্যার পর বিক্ষোভ, ভাংচুর ও থানায় অভিযোগ করেছে। রাতের বেলায় বিক্ষোভ একটি সরকার নিবন্ধতি সংগঠনের কার্যালয় ভাংচুর করে। এগুলো করল কারা? তাদের ছবিগুলো ক্রাইমভিশন পেজে আপ রয়েছে। ছবিগুলো দেখে তাদের বায়োডাটা দেভলেই বুঝতে পরবেন। তারা এক রাজনৈতিক নেতার ক্যাডার এবং তার নির্দেশে অপকর্ম করছে। এই ক্যাডার গ্রুপের নেতা রবিন বাবু । আর আমার বিরুদ্ধে অপপ্রচার করছে তারা। থানায় তাদের নেতার নির্দেশে অভিযোগ হয়। আমরা অভিযোগ করতে গেলে তা থানায় নেয় না। সংবাদ প্রচারের ৩ দিন আগে এলাকায় রবিন বাবু গ্রুপ আমার বাড়ির সামনে রাকিব নামের একটি ছেলেকে মারধর শুরু করে, আমি থামাতে গেলে রবিন ও তার দলবল আমার উপর হামলা করে।

এসময় এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে তারা সটকে পড়ে। ছেলেটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়, অবস্থার অবনতি ঘটলে তাকে ঢাকা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। এ সময় আমাকে ও আমার সংগঠনের কয়েকজনের নামে তারা থানায় অভিযোগ করে। ছেলেটি সুস্থ্য হয়ে ফিরে আসলে তার স্বজনরা থানায় অভিযোগ করতে গেলে পুলিশ অভিযোগ নেয় নাই।অথচ ঘটনা কি নিয়ে আর অভিযোগ আমার বিরুদ্দে এবং পত্রিকায় এমনভাবে সংবাদ প্রকাশ হয়, তাতে আমি মাদক, সন্ত্রাসীসহ নানা অপকর্মের হোতা বানানো হয়। এভাবে আমার মান সম্মান ক্ষুন্ন করা কোন পত্রিকার কাজ কিনা সেটা প্রশ্ন রইল সম্পাদকের প্রতি। আমাকে বিভিন্নভাবে ক্ষতি করার অপচেষ্টা করে যাচ্ছে। আমি ২০ বছর যাবৎ প্রবাসী, স্পেনের সিটিজেন। প্রতি বছর ৩-৪ মাস আমি দেশে থাকি।

স্থানীয় রাচনীতির কারণে আমার বিরুদ্ধে ক্ষমতাধর একটি পক্ষ বিভিন্ন কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। আমি সংগঠনের মাধ্যমে অসহায় শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরন, দুঃস্থ অসহায়দের বিভিন্ন সহযোগীতা করে আসছি। এলাকায় উচিৎ বিচার না করলে প্রতিবাদ জানাই। তাই অনেকে আমার কাছে সহযোগিতার জন্য আসে এগুলো অনেকের সহ্য হচ্ছে না। প্রকাশিত সংবাদে আরো যে সব তথ্য রয়েছে সম্পূর্ণ মিথ্যা, সাংবাদিকদের প্রতি আমার আহবান কারো ইশারায় কাজ না করে সঠিক তথ্য উদঘাটন করুন অনেক কিছু পাবেন। তালতলা বাজারের মধ্যে আমাদের সংগঠনের কার্যালয়। সেখানে অন্য কক্ষে নারীদের সাথে শারীরিক সম্পর্ক, মাদক ও চাঁদাবাজি! একটু হাতিয়ে দেখুন কারা করছে। আমি য়াকায় বেশি থাকি গ্রামে সপ্তাহে ২ দিন থাকি। সূর্যসেনা সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের কার্যালয় ভাংচুর করে এবং রাতের অন্ধকারে আগুন দিয়ে তারাই জ্বালিয়ে দেয়। এরা ভাল লোক না সন্ত্রাসী? আমাদের সংগঠনে অর্ধশত সদস্য রয়েছে যদি আমরা তাদের মত ভাংচুর মারামারি করতাম তাহলে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হত। আমরা ভদ্রতা জানি, আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল, বর্বরতা পছন্দ করি না তবে অন্যায়ের প্রতিবাদ করি। যেজন্য কিছু স্বার্থান্বেষীর কাছে আমরা অপছন্দের।

মামুন আহম্মেদ
সভাপতি
সূর্যসেনা সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন
তালতল বাজার, সিরাজদিখান, মুন্সিগঞ্জ।

প্রেস বিজ্ঞপ্তি

Leave a Reply