বারী সিদ্দিকীর প্রতি জাপান প্রবাসীদের বিনম্র শ্রদ্ধা

প্রবাস প্রজন্ম জাপান সম্মাননা ’১৪ প্রাপ্ত খ্যাতিমান সংগীত শিল্পী, সুরকার, গীতিকার ও বাঁশিবাদক বারী সিদ্দিকীর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়েছে জাপান প্রবাসী বাংলাদেশ কমিউনিটি।

শিল্পী বারী সিদ্দিকীর প্রয়াণে তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর জন্য বাংলাদেশ কমিউনিটি জাপান এক শোকসভার আয়োজন করে রাজধানী টোকিওর কিতা সিটি আকাবানে কিতা কুমিন সেন্টারে ও বিশ্বজিৎ দত্ত বাম্পার পরিচালনায় শোকসভার শুরুতেই শিল্পী বারী সিদ্দিকী, স্বাধীনতা যুদ্ধের কণ্ঠ যোদ্ধা শিল্পী আব্দুল জব্বার, নায়করাজ রাজ্জাক, ঢাকা উত্তরের মেয়র আনিসুল হক এবং সদ্য প্রয়াত চট্টলাবীর খ্যাত সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরীসহ মহান মুক্তিযুদ্ধে বীর শহীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো এবং রুহের মাগফেরাত কামনা করে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।

এরপর গোলাম মাসুম জিকোর গ্রন্থনা, সম্পাদনা ও কণ্ঠে শিল্পী বারী সিদ্দিকীর জীবনালেখ্যে একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শন করা হয় মেয়র আনিসুল হকের ওপর। প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শনে সহায়তা করেন মো. মোস্তাফিজুর রহমান জনি।

এরপর শিল্পী আব্দুল বারী সিদ্দিকীকে প্রবাস প্রজন্ম জাপান সম্মাননা দেওয়ার প্রেক্ষাপট এবং তার জাপান সফরের যাবতীয় স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য রাখেন রাহমান মনি। এছাড়াও তার সান্নিধ্য স্মৃতিচারণ করেন কাজী ইনসানুল হক। এ সময় বারী সিদ্দিকীর পুত্র সাব্বির সিদ্দিকীর সঙ্গে টেলিফোনে শোকসভার বিস্তারিত জানানো হয়। সাব্বির সিদ্দিকী জাপান প্রবাসীদের আয়োজনে আবেগে আপ্লুত হয়ে জাপান প্রবাসীদের কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, আজ যদি আমার আব্বা তার প্রতি আপনাদের ভালোবাসার কথা জানতে পারতেন তাহলে কতো-ই না খুশি হতেন, সুদূর জাপানে বসেও আপনারা আমার আব্বার প্রতি যে শ্রদ্ধা দেখাচ্ছেন তার কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই। আমার আব্বা গান এবং শ্রোতাদের খুব ভালোবাসতেন। তার শেষ সময়গুলোতে এমনো হয়েছে যে, সকালে হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিয়েছেন আর বিকেলে শো করেছেন। তার সৃষ্টির মাধ্যমেই তিনি থাকবেন আমাদের মাঝে। আপনারা আমার আব্বার জন্য দোয়া করবেন।

এরপর কমিউনিটি নেতৃবৃন্দদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন নুর খান রনি, অ্যাডভোকেট হাসিনা বেগম রেখা, আলমগীর হোসেন মিঠু, পপি ঘোষ, সালে মো. আরিফ, দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব মো. বেলাল হোসেন প্রমুখ। বক্তারা বলেন, বারী সিদ্দিকী তার সৃষ্টির মধ্য দিয়েই আমাদের মাঝে আজীবন থাকবেন।

বক্তব্য পর্ব শেষ হলে শিল্পীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তার জনপ্রিয় গানগুলো প্রবাসী শিল্পীরা পরিবেশন করেন। শিশু শিল্পী তনুতা ঘোষ তার একমাত্র মেয়ের জন্য করা বারী সিদ্দিকীর ‘তুমি আইও পরানের বন্ধু, আইও বাউল বাড়ী’ গানটি তার মিষ্টি গলার কচি কণ্ঠে পরিবেশন করে শ্রোতাদের প্রশংসা কুড়ায়। উত্তরণ বাংলাদেশ কালচারাল গ্রুপের সদস্যরা একে একে বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় গান পরিবেশন করে বারী সিদ্দিকীর প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এছাড়াও স্বরলিপি কালচারাল একাডেমি টোকিও’র বাদল বারী সিদ্দিকীর গাওয়া অত্যন্ত জনপ্রিয় সংগীত শোয়া চান পাখি গানটি পরিবেশন করেন। শেখ মঞ্জুর মোর্শেদ, চৌধুরী শাহীন, সানাউল হক, নুরখান রনি, তপন ঘোষ, মোফাজ্জল হোসেন, আশরাফুল ইসলাম শেলী, আলমগীর হোসেন মিঠু, মাসুম আহমেদ, সালেহ মো. আরিফ আয়োজন সহায়তা করে জাপান প্রবাসীদের মহতী আয়োজনকে সার্থক করে তুলেন। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন রাহমান মনি।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply