শৈতপ্রবাহকে হার মানায় খেজুররস

মোঃ রিয়াদ আহমেদ : শৈতপ্রবাহকে হার মানিয়ে মুন্সীগঞ্জের গাছিরা ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন খেজুররস আহরণে। গাছিরা হিমেল হাওয়ার মধ্যে রস আহরণের গাছে গাছে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। আবহমানকাল থেকে বাঙালীর ঐতিহ্যের সাথে খেজুররস ও শীতকাল একাকার হয়ে আছে।শীতের সকালে গাছ থেকে খেজুররসের হাঁড়ি নামিয়ে কলসে করে গ্রামে গ্রামে বাজারে বাজারে ঘুরে ঘুরে বিক্রয় করা হয়। এছাড়াও শীত আসলে বাড়ি বাড়ি ধুম পড়ে যায় খেজুর মিঠাই তৈরি পিঠা বানাতে, ব্যস্ত থাকে মা-খালারা। শিশু, যুবক, বৃদ্ধ সবাই মেতে ওঠে পিঠা খাওয়ার উৎসবে। তাই প্রতিবছর খেজুররস সংগ্রহের প্রস্তুতি শুরু হয় শীতের শুরুতেই। এবারো তার ব্যতিক্রম হয়নি গত বছরের নভেম্বরের শুরুতেই খেজুরগাছ কাটার কাজ শেষ করেছেন গাছিরা। গাছের মাথায় একই স্থানে অনেকখানি বাকল তুলে সেখানে হাঁড়ি বেঁধে এ রস সংগ্রহ করছেন তারা। তা দিয়ে তৈরি হচ্ছে খেজুর মিঠাই।

জেলার গাছি ফারুখ বেপারী বলেন, কিছুদিন যাবত কনকনে শীতে রসের ব্যাপক চাহিদা তাই এই শৈতপ্রবাহকে তুচ্ছ মনে করে ভোর সকালে গাছ থেকে খেজুররস সংগ্রহ করছি। তিনি আরও জানান, অন্য মৌসুমে তারা বিভিন্ন কাজ করেন। কিন্তু শীত এলেই তারা খেজুরগাছ কাটায় ব্যস্ত থাকে। এ ছাড়া শীতের সময় ধনী-গরিব সবার কাছে খেজুরের গুড়ের বেশ কদর থাকে।এবং সকালে খেজুররসও জনপ্রিয় তা ঘুরে ঘুরে বিক্রয় করা হয়। তাদের নিজেদের কোনো গাছ নেই তাদের অন্যের গাছ কেটে রস সংগ্রহ করতে হয়। তাই গাছের মালিককে রসের একটা অংশ দিতে হয়। তারপরও প্রতি বছর তারা রস বিক্রয় করে লাভবান হয়। বাড়ির উঠানের একপাশে স্তূপ করা থাকে অসংখ্য ছোট-বড় রসের হাঁড়ি সকালে ও বিকালে বিভিন্ন জায়গায় তা বিক্রয় করা হয়।

জেলা কৃষি অফিসের সূত্রে জানা যায়, প্রকৃতির ভারসাম্য বজায় রাখতে খেজুরগাছের ভূমিকা অনেক।মুন্সীগঞ্জ জেলায় এখনো বেশকিছু খেজুরগাছ রয়েছে। খেজুরগাছ ও রসের সঠিক ব্যবস্থাপনার অভাবে ক্রমেই তা হ্রাস পাচ্ছে।

Leave a Reply