মোল্লাকান্দির কয়েকটি গ্রাম পুরুষশূন্য, সংঘাতের আশঙ্কা

মুন্সীগঞ্জ সদরের মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের উত্তাপ এখনও থামেনি। সংঘর্ষের ঘটনায় পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে বেশ কয়েকটি গ্রাম। লুটপাটের আশংকা করছে গ্রামবাসী। পুলিশি অভিযান চলছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে।

গত ৩ জানুয়ারি মোল্লাকান্দি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান রিপন পাটওয়ারি ও বর্তমান চেয়ারম্যান কল্পনা বেগমের সমর্থকদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে ৭ জন আহত ও একজন নিহত হয়। গত ৬ জানুয়ারি সংঘর্ষে নিখোঁজ একজনের লাশ উদ্ধারের পর উত্তাপ আরো ছড়িয়ে পড়ে।

এর মধ্যে গত ৪ জানুয়ারি পুলিশ বিস্ফোরক আইনে ৩০০ জনকে অজ্ঞাতনামাকে আসামি করে মামলা দায়ের করে। পরে নিখোঁজ লাশ উদ্ধারের পর আরেকটি হত্যা মামলা দায়ের হয়। এরপর থেকেই গ্রেফতার আতঙ্কে ও সংঘাত এড়াতে পুরুষশূন্য হয়ে পড়েছে ইউনিয়নের চড়ডুমুরিয়া, কংশপুরা, চৈতারচর, আমঘাটাসহ বেশকয়েকটি গ্রাম।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আজ সোমবার সকালে বেশ কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের শব্দ পাওয়া যায়। চরডুমুরিয়া ও কংশপুরায় সংঘর্ষের চেষ্টা চলে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। পুরুষশূন্য গ্রামগুলোতে লুটপাট ও সংঘাতের আতংকে দিন কাটাচ্ছেন মহিলারা।

উত্তাপ ছড়ানো ও নতুন করে সংঘর্ষের কথা অস্বীকার করেছে দুপক্ষই। সংঘর্ষের জন্য একে অপরকে দোষ দিচ্ছে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপ।

মুন্সীগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আলমগীর হোসাইন জানান, মোল্লাকান্দির সংঘর্ষের ঘটনায় একটি বিস্ফোরক আইনে মামলা ও একটি হত্যা মামলা হয়েছে। বেশ কয়েকটি গ্রাম এখন পুরুষশূন্য। নতুন করে কোনো সংঘর্ষের আশঙ্কা আমরা দেখছি না। তারপরও সেখানে পুলিশ আছে এবং অভিযান চালাচ্ছে। নতুন করে কোনো সংঘাত যাতে না ঘটে সেজন্য আমরা তৎপর আছি।

এ পর্যন্ত চারজনকে আটক করে রিমান্ডে পাঠানো হয়েছে। পরিস্থিতি এখন শান্ত বলে জানান সদর থানার ওসি।

পরিবর্তন

Leave a Reply