সিরাজদিখানে একটি ব্রীজের অভাবে হাজার হাজার মানুষের ভোগান্তি

নাছির উদ্দীন: সিরাজদিখানে ইছামতি নদীর উপর একটি ব্রীজের অভাবে হাজার হাজার মানুষ ভোগান্তিতে রয়েছে। শীত মৌসুমে খেয়া নৌকা বিকাল এর পর থেকে পাওয়া যায় না ঘাটে। অনেক সময় মাঝিদের খেয়া ভাড়ার অভাবে বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া নদী পার হননা নিন্মবিত্তরা। এ ছাড়াও কোন কারনে খেয়ার অপেক্ষায় ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকতে হয়। কোন উপায় না পেয়ে এভাবেই দূর্ভোগের মধ্য দিয়ে কেটে যাচ্ছে বছরের পর বছর।


কিন্তু ব্রীজ হওয়ার স্বপ্ন আর পুরন হচ্ছেনা এলাকাবাসীর। সব মিলিয়ে উভয় সংকটে পরেছে সিরাজদিখান উপজেলার ৩ টি ইউনিয়নের মানুষ। শুধু মাত্র একটি ব্রীজের অভাবে যুগযুগ ধরে চলছে এ ভোগান্তি। ভুইরা গ্রামের মোহাম্মদ আলী মেম্বার, গোবরদী গ্রামের আব্দুল্লাহ আল মামুন, মালখানগর গ্রামের সাদেক হোসেন, চিকনাইসার গ্রামের আরেফিন ফয়সাল, ছোট পাউলদিয়া গ্রামের আক্তার হোসেন, বালুচর এলাকার নাজমুল মোল্লা, বয়রাগাদি এলাকার বাবুর বড়ির কোরবান আলীসহ এলাকাবাসী অনেকেই জানান, বয়রাগাদী ইউনিয়নের ভুাইরা গ্রামে ইছামতি নদীর উপরে ব্রীজ নির্মানের প্রতিশ্রতি অনেকেই দিয়ে আসছে কিন্ত কথা রাখেনি কেউ। গুরুত্বপুর্ন ব্রীজ নির্মান করার প্রযোজন হয়ে পড়েছে। এই ঘাটটিতে ব্রীজ নির্মান হলে এ অঞ্চলের লোকজন সহজেই বালুচর ইউনিয়ন, বয়রাগাদী ইউনিয়ন ও মালখানগন ইউনিয়নের সাথে কম সময়ে কম খরচে যাতায়াত করতে পারবে। দীর্ঘ দিনের এলাকাবাসীর ব্রীজ নির্মনের দাবী। তাই উদ্ধর্তন কর্মকতার কাছে সু-দৃষ্টি কমানা করছে ভুত্তভোগী এলাকাবাসীরা।


উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানবীর মোহাম্মদ আজিম জানান, বয়রাগাদি ভ্ইুরা এলাকার ইছামতি নদী উপর দিয়ে এ ব্রীজটি একটি বড় প্রকল্প, স্থানীয় প্রকৌশলীদের দিয়ে এটা সম্ভব না, তবে আমি শুনেছি এটাও খুব শ্রীগ্রই হবে, সয়েল টেষ্ট নাকি হয়েছে। বালুচরের মোল্লার টেক ব্রীজটি হয়ে গেলেই এটার কাজ ধরবে, কারণ এ বীজটি হলে অল্প সময়ে সিরাজদিখান থেকে ঢাকা যাওয়া আসা করা যাবে। এটা বড় একটি নদী আমি স্থানীয় ও উপজেলা প্রকৌশলীদের কাছ থেকে শুনেছি এটা হবে প্রজেক্টের আওতায়।

Leave a Reply