মুন্সীগঞ্জে টমেটো চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকের

মোজাম্মেল হোসেন সজল: লোকসান গুনতে না হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের বিভিন্ন উপজেলায় টমেটো চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে। গত দুই বছর আলুতে লোকসান হওয়ায় মুন্সীগঞ্জের অনেক কৃষক এই বছর টমেটো চাষের দিকে ঝুঁকে পড়েছেন। কোন রকম ক্ষতিকারক কীটনাশক ব্যবহার না করে সম্পূর্ণ আধুনিক পদ্ধতিতে তারা টমেটোর আবাদ করছেন। জেলা কৃষি কর্মকর্তা বলেছেন, মুন্সীগঞ্জের টমেটো চাষিরা রাসায়নিক কীটনাশকের পরিবর্তে জৈব কীটনাশক ব্যবহার করছেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলার মুন্সীগঞ্জ সদর, গজারিয়া, টঙ্গীবাড়ী, সিরাজদিখান ও শ্রীনগর উপজেলায় এবার টমেটোর আবাদ হয়েছে। মুন্সীগঞ্জ সদরের মহাকালী ইউনিয়নের দক্ষিণ মহাকালী গ্রামের সাতানিখিল চকে কমপক্ষে ৪০-৫০ জন কৃষক সারিবন্ধভাবে টমেটো আবাদ করেছেন। টমেটোর জমি দেখলে মনে হবে যেন টমেটোর বাগান।

টমেটোর বাগানগুলো এখন সবুজে সমারোহ। দুই-একজন কৃষক তাদের জমির টমেটো বিক্রি করলেও অধিকাংশ কৃষকের টমেটো এখনও বিক্রি উপযোগী হয়ে উঠেনি। আর ক’দিন পরেই তারা তাদের জমি থেকে টমেটো তুলে বিক্রি শুরু করবেন। জমিতে এসেই পাইকাররা টমেটো কিনে নিয়ে মুন্সীগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জসহ ঢাকার বিভিন্ন পাইকারী আড়তে নিয়ে বিক্রি করবেন। আর টমেটো গাছের পরিচর্যায় স্থানীয়সহ রংপুরের নারী শ্রমিকেরাও কাজ করছেন।

মুন্সীগঞ্জের দক্ষিণ মহাকালী গ্রামের সামাদ বেপারীসহ টমেটো চাষিরা জানালেন, টমেটোর চাষ লাভবান হওয়ায় এই বছর টমেটোর আবাদ আরও বেড়েছে। তারা কোন ক্ষতিকারক কীটনাশক ব্যবহার করছেন না। যেসব গাছে ক্ষতিকারক কীটনাশক ব্যবহার করা হয়, সেসব গাছের টমেটোর মধ্যে বোটা পাওয়া যাবে না।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মো. হুমায়ুন কবীর জানালেন, রাসায়নিক কীটনাশকের পরিবর্তে জৈব কীটনাশক ব্যবহার করে মুন্সীগঞ্জের কৃষকেরা টমেটোর আবাদ করছেন এবং ক্ষতিকারক কোন ছত্রাকনাশক বা কীটনাশক প্রয়োগ করছেন না।

এদিকে, জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, মুন্সীগঞ্জে সোনালী, ক্যাপ্টেন, মানিক, রতন, মিন্টু সুপারসহ বিভিন্ন জাতের টমেটো হয়ে থাকে। গত বছর জেলায় ২০২ হেক্টর জমিতে টমেটোর আবাদ হয়েছিলো। এই বছর তা বেড়ে ২০৯ হেক্টর জমিতে টমেটোর চাষ হয়েছে এবং এখনও আবাদ শেষ হয়নি। এই বছর টমেটোর আবাদ প্রায় ৩০০ হেক্টর ছাড়িয়ে যাবে।

পূর্বপশ্চিম

Leave a Reply