প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চনান বালাকে সুনামগঞ্জে বদলি

মুন্সিগঞ্জে প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগে বার্ষিক পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগে অবশেষে বির্তকিত প্রাথমিক জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা পঞ্চনান বালাকে সংশ্লিষ্ট বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অন্যত্র বদলি আদেশ জারি করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।

সংশ্লিষ্ট বিভাগের সূত্রের মতে পঞ্চনান বালাকে সুনামগঞ্জ জেলায় বদলি করা হয়েছে।

পঞ্চনান বালা মুন্সিগঞ্জে নানা ভাবে বির্তকিত ছিলেন। ঘুষ ছাড়া তিনি কিছুই বুঝতেন না। প্রাথমিক বিভাগের কর্মচারীদের তিনি নানাভাবে হয়রানি করেছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

বিগতদিনে তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে তার বিরুদ্ধে একটি উপজেলা থেকে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারাও অভিযোগ দায়ের করে ছিলেন।

আর সেই অভিযোগের তদন্তে মুন্সিগঞ্জে ইতোমধ্যে আসেন এই বিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

সেই সময় পিটিআইয়েতে তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের তদন্ত হয়। তদন্তের সময় তিনি সেখানে উপস্থিত থাকার চেষ্ঠা করলেও তদন্ত কর্মকর্তাদের বাধার মুখে তিনি সেখানে উপস্থিত হতে পারেননি বলে শোনা গেছে।

এই তদন্তের পর পরই মুন্সিগঞ্জে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটে।

আর সেই প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ইতোমধ্যে তথ্য প্রযুক্তি মামলায় পুলিশ ১৯জনকে গ্রেফতার করেছে। তারা এখন বর্তমানে জেল হেফাজতে রয়েছে।

প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় তার এই বদলিকে আরো জোরদার করেছে বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

১২ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় প্রথম শ্রেণি থেকে চতুর্থ শ্রেণি শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষার ধার্যদিন ছিল। কিন্তু ১১ ডিসেম্বর রাতেই সেই পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়ে যায়।

পরে মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসন সেই পরীক্ষা স্থগিত করেন। পরে জেলা প্রশাসনের ত্বত্তাবধানে নতুন প্রশ্ন তৈরি করে এখানকার শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়া হয়।

এখানকার প্রশ্নপত্র ফাঁসের দায়দায়িত্ব মুলত জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার ওপরই বর্তায় বলে অনেকেই মনে করেন।

তবে এই ঘটনায় ধারাবাহিকভাবে আরো অনেকেরই বদলি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে শোনা যাচ্ছে।

পঞ্চনান বালাকে ১৮ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিকভাবে মুন্সিগঞ্জ থেকে বিদায় দেয়া হয়েছে।

তার পরিবর্তে যশোর থেকে মুন্সিগঞ্জে যোগদান করার কথা রয়েছে তাপস কুমার অধিকারী’র।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তিনি মুন্সিগঞ্জের কর্মস্থলে এখনো যোগদান করেননি।

তাপস কুমার অধিকারী ইতোমধ্যে সারাদেশের মধ্যে শ্রেষ্ঠ জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা হিসেবে শ্রেষ্ঠ পুরস্কার অর্জন করেছেন।

তাই তিনি তার পচ্ছন্দের বদলির তালিকায় ছিলো ঢাকা জেলা। কিন্তু ঢাকা জেলায় বর্তমানে যিনি এই পদে দায়িত্ব পালন করছেন তার চাকরির বয়স আছে মাত্র ছয় মাস।

সেই কারণে সেখান থেকে তাকে এই মুহূর্তে অন্যত্র বদলি করা হচ্ছে না বলেই শোনা যাচ্ছে।

এই কারণে তাপস কুমার অধিকারী ঢাকাকে ছেড়ে মুন্সিগঞ্জের কর্মস্থলে যোগদান নাও করতে পারেন বলে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

মুন্সিগঞ্জ নিউজ

Leave a Reply