লৌহজংয়ে যুবলীগ নেতা হত্যাকাণ্ডে পুলিশ ও পরিবারের পৃথক বক্তব্য

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের উপজেলায় যুবলীগ নেতা আসাদুজ্জামান মোল্লা(২৬) হত্যাকান্ডে পুলিশ ও পরিবারের সদস্যদের দুই রকম বক্তব্য পাওয়া গেছে। পুলিশ ও পরিবার কাছ থেকে মিলছে হত্যা কান্ড সংঘটিত হওয়ার দুই রকম কারন। হত্যাকান্ডের দুই দিন অতিবাহিত হলেও উদঘাটন হয়নি ক্লু।

শনিবার দুপুরে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালেমরদেহটি ময়না তদন্তের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার লৌহজং উপজেলার মেদিনীমন্ডল ইউনিয়নের যশলদিয়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। শাওন স্থানীয় ওয়ার্ড কমিটির যুবলীগের প্রচার বিষয়ক সম্পাদক।
নিহতের ভাই মোঃ রহিম জানান, লৌহজং থানায় শাওনকে প্রধান আসামী করে শওকত, রাজা, শহীদ, কাইয়ুম, আশিক গাজী, রিফাতসহ অজ্ঞাতনামা ১০-১২ জনকে আসামী করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। আসামীরা অস্ত্রের ব্যবসাসহ মাদকদ্রব্যের ব্যবসা করতো, যা আমার ভাই দেখে ফেলেছিল। এই ঘটনার পর থেকে কথাকাটাকাটি হতো। বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার দিকে বাসা থেকে ধরে নিয়ে মেরে ফেলে। উঠিয়ে নিয়ে যাওয়ার সময় বাসায় আমার মা ছিল শুধু, অনেক আবেদন করার পরেও তারা মানেনি।

লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনিচুর রহমান জানান, আসাদুজ্জামান মাদকাসক্ত অবস্থায়বাবা-মা সহ পরিবারের সদস্যদের উপর মারধোর করতেছিল। খবর পেয়ে মালোশিয়ায় থাকা তার ভাই মোবাইলে স্থানীয় শাওনকে বাড়িতে যেতে বলে। এসময় শাওন সহ স্থানীয়দের সাথে আসাদুজ্জামানের হাতাহাতি কথাকাটাকাটি হয়। পরবর্তীতে ১০-১২ জন স্থানীয়রা যশলদিয়া পানি শোধনাগার পাল্টা এলাকায় পিটিয়ে আহত করে, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

আসাদুজ্জমান অস্ত্রের বিষয়টি দেখে ফেলায় তাকে হত্যার মূল কারন বলে জানতে চাইলে লৌহজং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান, আমি ঘটনার যেই কারনটি বলেছি, আসল ঘটনাটি এটিই হয়েছে। এখন তো অনেকেই অনেক কথা বলবে। মালোশিয়া থেকে যেই ভাই ফোন দিয়েছিল, সে শাওনের বন্ধু। ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলে বিস্তারিত বলা যাবে বলে জানান তিনি।

মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম পিপিএম জানান, ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করে বিস্তারিত বলা যাবে এবং বিস্তারিত খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

বিডি২৪লাইভ

Leave a Reply