দৃশ্যমান পদ্মাসেতুর ৩০০ মিটার

পদ্মাসেতুর দ্বিতীয় স্প্যান ৭বি (সুপার স্ট্রাকচার) ৩৮ ও ৩৯ নম্বর পিলারের ওপর বসানো হয়েছে। দ্বিতীয় স্প্যানটি বসানোর মাধ্যমে সেতুর ৩০০ মিটার দৃশ্যমান হলো। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর সেতুর জাজিরা প্রান্তে ৩৭ ও ৩৮ নম্বর পিলারের ওপর প্রথম স্প্যানটি বসানো হয়।

রোববার (২৮ জানুয়ারি) সকাল থেকেই শুরু হয় স্প্যান ওঠানোর আনুষঙ্গিক আনুষ্ঠানিকতা। এর আগে স্প্যানটি ৩৮ ও ৩৯ নম্বর পিলারে বরাবর রাখা হয়।

পদ্মা সেতুর প্রকৌশলীরা বাংলানিউজকে জানান, ধূসর রঙে রাঙানো ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্য ও ৩ হাজার ১৪০ টন ওজনের স্প্যানটি পিলার দু’টির লিফটিং ফ্রেম ও বেয়ারিংয়ের ওপর রাখা হয়েছে। স্থায়ীভাবে স্প্যানটি বসতে আরোও সময় লাগবে। ৩ হাজার ৬শ’ টন ধারণ ক্ষমতার Tian Yi ক্রেনের মাধ্যমে ৩৮ ও ৩৯ নম্বর পিলারের ওপর স্প্যানটি রাখা হয়েছে। এখন স্প্যান বসানোর বাকি কাজ করা হচ্ছে।ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমশনিবার (২৭ জানুয়ারি) বিকেলে জাজিরা প্রান্তে আলো স্বল্পতা এবং সার্ভে করতে প্রকৌশলীদের সমস্যা হওয়ায় রোববার (২৮ জানুয়ারি) পিলারের ওপর স্প্যান বসানোর হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলীরা।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুতে ৪২ পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর

Comments are closed.