১০ মাস পর এলাকায় আসলেও নেতাকর্মীদের সাথে দেখা করেননি মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি

আরিফ হোসেন: মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ দীর্ঘ ১০ মাস পর তার নির্বাচনী এলাকায় আসলেও নেতাকর্মীদের সাথে দেখা করেননি। এমনকি নেতাকর্মীদের শুভেচ্ছার প্রতিউত্তর দেওয়ার জন্য তিনি গাড়ীর গ্লাস পর্যন্ত খোলেননি। দীর্ঘদিন পর এমপির আগমন উপলক্ষে রবিবার সকাল ৯ টা থেকে প্রায় ৫ শতাধিক নেতাকর্মী ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের ছনবাড়ী চৌরাস্তায় অবস্থান নেয়। দুপুর ১২ টার দিকে তিনি ঢাকা থেকে ছনবাড়ী আসলে নেতাকর্মীরা তার গাড়ির সামনে জড়ো হয়ে স্লোগান দিতে থাকে। কয়েকজন ফুলের তোরা নিয়ে এগিয়ে যান। কিন্তু এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ কারো সাথে কথা বলেননি।

অথচ তার নেতাকর্মীরা জানিয়ে ছিলেন তিনি ছনবাড়ীতে পথসভা করবেন। এসময় এমপিকে শুভেচ্ছা জানানোর জন্য উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি আলহাজ্ব সেলিম আহমেদ ভূইয়া, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব তোফাজ্জল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম মামুন, জেলা পরিষদ সদস্য নুরজাহান বেগম, মনির হোসেন মিটুল, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ফিরোজ আল মামুন, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব নেছারউল্লাহ সুজন, ইউপি চেয়ারম্যান আজিজুল ইসলাম, আ ঃ বারেক খান বারী, জাকির হোসেন, আজিম হোসেন খান, উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জহিরুল হক নিশাত শিকদার, সাধারণ সম্পাদক হামিদুল্লাহ খান মুন সহ ছাত্র লীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। দীর্ঘ দিন পর মুন্সীগঞ্জ-১ নির্বাচনী এলাকায় এমপির আগমন উপলক্ষে তার সমর্থকদের মধ্যে আনন্দ উচ্ছাস বিরাজ করছিল। কিন্তু দীর্ঘ দিন পর অনেক সময় ধরে অপেক্ষা করেও এমপির সাক্ষাত না পেয়ে তার নেতা কর্মীদের অনেকেই হতাশ হয়ে ফিরে যান।

উল্লেখ্য গত বছর ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসে মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের এমপি সুকুমার রঞ্জন ঘোষ ও সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্র লীগ নেতা গোলাম সারোয়ার কবির গ্রুপের মধ্যে পাল্টা পাল্টি কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া,সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। প্রায় এক ঘন্টা ব্যাপী চলা সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রনে আনতে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড ফাকা গুলি ও কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে। সংঘর্ষে দুই গ্রুপের অন্তত ১০ জন আহত হয়। দুই গ্রুপই পাল্টাপাল্টি মামলা দায়ের করে। সংঘর্ষের দুই দিন পর উপজেলার ঝুমুর সিনেমা হলের সামনে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেওয়ার সময় অসুস্থ্য হয়ে পরলে তাকে দ্রুত ঢাকায় প্রেরণ করা হয়।

এর পর থেকে আর তিনি এলাকায় আসেননি। তার এই দীর্ঘ বিরতিতে দলীয় অনেক নেতাকর্মী মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের আরো ৩ মনোনয়ন প্রত্যাশী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাবেক স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ বদিউজ্জামান ভূইয়া ডাবলু, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ কমিটির সাবেক সহ সম্পাদক গোলাম সারোয়ার কবির ও সিরাজদিখান উপজেলা চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন আহমেদের পিছু নেন। তার অনুপুস্থিতির কারনে শ্রীনগর ও সিরাজদিখান উপজেলার উন্নয়ন কাজে ভাটা ও প্রশাসনিক কাজে সেচছা চারিতার প্রশ্ন উঠে।

দুই উপজেলায় অন্তত কয়েক শত অনুষ্ঠানের ব্যানারে প্রধান অতিথী হিসাবে তার নাম থাকলেও তিনি কোন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হতে পারেননি। এতে তার ঘনিষ্ট নেতা কর্মীদের মধ্যে হতাশা দেখা দেয়। রবিবার এমপির আগমনকে কেন্দ্র করে তার সমর্থকদের মধ্যে নতুন ভাবে চাঙ্গা ভাব দেখা দিলেও তার আচরণে নেতাকর্মীদের ফের হতাশা দেখা দিয়েছে।

Leave a Reply