আধারায় দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ট্রলার চালক জেসমিনের সংসার

স্বামীর মৃত্যুর পর দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জেসমিন দুই বছর ধরে ইঞ্জিনের ট্রলার চালিয়ে দুই মেয়ে নিয়ে কষ্টে জীবিকা নির্বাহ করছেন। তার এই কঠিন সময়ে কেউ এগিয়ে আসেনি, জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা কিংবা কোন সরকারি সাহায্য। এই জন্মান্ধ নারী মানুষের নানা কটূ মন্তব্য উপেক্ষা করে টানছেন সংসারের ঘানি।

মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার চলাঞ্চলের আধারা ইউনিয়নটি রজতরেখা নদী দুই ভাগে ভাগ করে রাখলেও দুই অংশের সেতুবন্ধন জেসমিন। বয়স ৩০ কোঠায়।

ট্রলারচালক স্বামী সবুজ মিয়া দুইবছর আগে মারা গেলে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জেসমিন দুই সন্তান নিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়ে। নিরুপায় হয়ে স্বামীর ইঞ্জিন চালিত ট্রলারটি নিয়ে জীবন সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ে।রোদ, বৃষ্টি ঝড় ভ্রুক্ষেপ না করে প্রতিদিন সকাল ৬ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত চিতলিয়া বাজার ঘাট ও বকচর ঘাটে যাত্রীর অপেক্ষায় থাকেন জন্মান্ধ এই নারী।

জেসমিনের স্বপ্ন দুইমেয়েকে শিক্ষিত করে ভালো ঘরে বিয়ে দেয়া। বড় মেয়ে লাবনী ৭ম শ্রেণিতে এবং ছোট মেয়ে নাদিয়া পড়ছে ৪র্থ শ্রেণিতে। ট্রলার চালানোর কারণে অনেকে নানা কথা বলে লজ্জা দেয় জেসমিনকে। কিন্তু তাতেও দমে যাননি এই নারী। স্থানীয় ইউপি সদস্য জানান, সরকারিভাবে তার নামে কোন সাহায্য নেই বলে কিছু করারও নেই। অসহায় জেসমিনের স্বপ্ন পূরণে সরকার বা বিত্তবানরা এগিয়ে আসবেন এমনটাই প্রত্যাশা তার।

বাংলাভিশন

Leave a Reply