মুন্সীগঞ্জে আলুর ন্যায্যমূল্য নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জে ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে চলতি মৌসুমের আলু উত্তোলন শুরু করবেন কৃষকরা। গত দুই বছর লোকসানের কবলে পড়ে সর্বস্বান্ত হয়ে পড়া কৃষকরা একটু ভালো ফলনের আশায় আলুগাছ পরিচর্যায় এখন ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। গত দুই মৌসুমে আলুর ফলন ভালো হলেও বস্তাপ্রতি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা লোকসান হওয়ায় এবার লাভবান হবেন কি-না তা নিয়েও কৃষকরা রয়েছেন দুশ্চিন্তায়।

জেলার প্রধান অর্থকরী ফসল আলু উত্তোলনের সময় ঘনিয়ে আসায় ৬টি উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকাজুড়ে রোপণ করা আলুক্ষেতের পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক ও শ্রমিকরা। গতকাল বুধবার সরেজমিন বিভিন্ন এলাকা ঘুরে সবুজের সমারোহ লক্ষ্য করা গেছে। কৃষক ও শ্রমিকরা গজিয়ে ওঠা আলুগাছের পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। টঙ্গিবাড়ীর ধামারণ গ্রামের কৃষক সাহাবুদ্দিন হাওলাদার জানান, পরপর দুই বছর লাখ লাখ টাকা লোকসানের শিকার হন তিনি। এবারও তিনি ৬০০ শতাংশ জমিতে আলু রোপণ করেছেন গত দুই মৌসুমের লোকসানের ঘাটতি কমানোর আশায়। ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে জেলার বিস্তীর্ণ এলাকায় আলু উত্তোলন শুরু হবে। তাই শেষ সময়ে এসে গজিয়ে ওঠা গাছ দেখে আলুর ফলন ভালো হবে মনে করা হলেও তিনিসহ অন্য কৃষকরা আলু ন্যায্যমূল্যে বিক্রি করতে পারবেন কি-না, তা নিয়ে রয়েছেন দুশ্চিন্তায়।

টঙ্গিবাড়ীর ধামারণ গ্রামের কৃষি জমিতে কথা হয় গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার একাধিক পুরুষ ও নারী শ্রমিকের সঙ্গে।

নারী শ্রমিক কাজলী দাস বলেন, পুরুষ শ্রমিকদের মতো তারা একই পরিশ্রম করছেন। কিন্তু তাদের মজুরি দেওয়া হয় ২৫০ টাকা আর পুরুষ শ্রমিকদের দিচ্ছে ৩৫০ টাকা। স্থানীয় শ্রমিকদের মজুরি দেওয়া হচ্ছে ৪০০ টাকা। মজুরি বৈষম্যের এ বিষয়টি নিয়ে কাজলী দাস ও অন্য নারী শ্রমিকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

মুন্সীগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, গত মৌসুমে ৩৯ হাজার ৩০০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের পর ১৩ লাখ ৫১ হাজার ১২৯ টন আলু উৎপাদন হয়। এর মধ্যে ৬০ থেকে ৬৫ হাজার টন আলু বীজ হিসেবে সংরক্ষণ করা হয়। জেলার ৭৪টি হিমাগারে ধারণ ক্ষমতা ৫ লাখ টন। প্রায় ৮ লাখ টন আলু বিভিন্নভাবে সংরক্ষণসহ কম মূল্যে বিক্রি করে দেওয়া হয়। চাহিদার চেয়ে দেশের বিভিন্ন জেলায় আলু উৎপাদন বেশি হওয়ায় গত দুই মৌসুমে মুন্সীগঞ্জের আলু ব্যবসায়ীরা বস্তাপ্রতি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা লোকসানের শিকার হন।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তা মো. আল মামুন সমকালকে জানান, চলতি মৌসুমে জেলায় ৩৮ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। জেলায় ৭৮ হাজার কৃষক পরিবারের ৪ লাখ ৬৮ হাজার সদস্য কৃষিকাজের সঙ্গে জড়িত।

সমকাল

Leave a Reply