আধিপত্য নিয়ে মুখোমুখি ৫ নৌ-ডাকাত গ্রুপ

কাজী সাব্বির আহমেদ দীপু: মুন্সীগঞ্জ সদরের পদ্মার চরে গতকাল শুক্রবার পুলিশের সঙ্গে নৌ-ডাকাতদের বন্দুকযুদ্ধের নেপথ্যে রয়েছে পদ্মা ও মেঘনা নদীর মোহনায় আধিপত্য নিয়ে ৫ নৌ-ডাকাত গ্রুপের বিরোধ। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার নৌ-ডাকাত রিংকু গ্রুপ ও মমিন মিজি গ্রুপের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে বলে গ্রামবাসী জানিয়েছে।

এ ঘটনায় মমিন মিজি গং বৃহস্পতিবার রাতে সদর থানায় রিংকুসহ তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দাখিল করে। এতে গতকাল শুক্রবার সদর থানা পুলিশ পদ্মার চরের সরদারকান্দি এলাকায় অভিযানে গেলে নৌ-ডাকাত রিংকু গ্রুপের সঙ্গে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধ হয় যায় বলে পুলিশ ও গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে।

নদী তীরের গ্রামবাসী জানায়, মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার সীমানা ঘেঁষা মেঘনা ও পদ্মা নদীতে দীর্ঘ বছর ধরে একাধিক নৌ-ডাকাত গ্রুপ বিভিন্ন নৌযানে ডাকাতি ও চাঁদাবাজিতে লিপ্ত। পাশাপাশি চলছে পদ্মায় জেগে ওঠা চরের মাটি কেটে বাল্ক্কহেডে ভরে তা বিভিন্ন ইটভাটায় বিক্রি করা। বর্তমানে মেঘনা ও পদ্মা নদীতে সক্রিয় রয়েছে ৫ নৌ-ডাকাত গ্রুপ। এগুলো মধ্যে চারটিই মুন্সীগঞ্জের চরাঞ্চলের আধারা ইউনিয়নের কালিরচর, চরআবদুল্লাপুর, নমকান্দি, দেওয়ানকান্দিসহ আশপাশের গ্রামের। এ গ্রুপগুলোর একটির নেতৃত্বে থাকা রিংকু শুক্রবার বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। অপর তিনটির নেতৃত্বে রয়েছে- মমিন মিজি, জোড়া হত্যা মামলার আসামি উজ্জ্বল মিজি এবং নৌ-ডাকাত বাবলা। অপর গ্রুপটির নেতৃত্ব দিচ্ছে মতলবের ষাটনল এলাকার এক নৌ-ডাকাত। তারা পদ্মা-মেঘনা তীরের বিভিন্ন গ্রামের প্রবাসীদের বাড়িঘর টার্গেট করে ডাকাতি করে। আর এই অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাতে গিয়ে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রায়ই নৌ-ডাকাত গ্রুপগুলো অবৈধ আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে গোলাগুলিতে লিপ্ত হয়।

স্থানীয় গ্রামবাসী জানায়, চরাঞ্চলের চার গ্রুপের মধ্যে রিংকু ও উজ্জ্বল মিজি গ্রুপ ঐকবদ্ধ হয়ে বর্তমানে নৌপথের পাশাপাশি নদীর তীরের বিভিন্ন গ্রামে প্রবাসীদের বাড়িতে ডাকাতি করে আসছিল। দুই গ্রুপের ঐক্যে কোণঠাসা হয়ে পড়া মমিন মিজি গ্রুপ ও বাবলা গ্রুপ আধিপত্য পুনরুদ্ধারের চেষ্টা চালায়। এর জের ধরে এবং পূর্ববিরোধ নিয়ে মমিন মিজি গ্রুপের সঙ্গে বৃহস্পতিবার রিংকু গ্রুপের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় এক যুবলীগ নেতা জানান, এর আগে সদর থানার এসআই কাজলসহ পুলিশের ওপর হামলা চালায় রিংকু। এতে গ্রামবাসীর সহায়তায় পুলিশ অস্ত্রসহ রিংকুকে গ্রেফতার করলে দীর্ঘদিন জেলহাজত খেটে জামিনে বের হয়ে আবারও অপরাধ শুরু করে সে।

জোড়া হত্যাকাণ্ড

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আধিপত্য নিয়ে ২০১৫ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি আধারার কালিরচর গ্রামে দুই নৌ-ডাকাত গ্রুপের বন্দুকযুদ্ধে ফয়েজ মিজি ও মোহান বেপারী নামের দু’জন নিহত হয়। নিহত দু’জন মমিন মিজি গ্রুপের। এ ঘটনায় বাদশা বেপারী বাদী হয়ে হত্যা মামলা করলে উজ্জ্বল মিজি গ্রুপের একাধিক সদস্য জেলহাজত খেটে জামিনে বের হয়ে আবারও অপরাধ কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। ফলে নদীর আধিপত্য ও পূর্ববিরোধ নিয়ে নৌ-ডাকাতরা একে অপরকে ঘায়েল করতে গোলাগুলিতে লিপ্ত হয়।

যে কারণে গ্রেফতার করা যায় না

গ্রামবাসী সূত্রে জানা গেছে, মুন্সীগঞ্জ সদর ও গজারিয়া উপজেলার মাঝ দিয়ে প্রবাহিত মেঘনা নদী চাঁদপুরের মতলব উপজেলার ষাটনল গ্রাম হয়ে মিলিত হয়েছে পদ্মা নদীতে। পদ্মা-মেঘনা মোহনাটি নৌ-ডাকাতির কেন্দ্রস্থল হিসেবে ব্যবহার করে ৫টি গ্রুপ। সংশ্নিষ্ট থানা পুলিশ অভিযানে গেলে চতুর নৌ-ডাকাতরা সীমানা অতিক্রম করে পালিয়ে যায়। তাই পুলিশ তাদের গ্রেফতারে ব্যর্থ হয়।

সদর থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) মঞ্জুর মোর্শেদ জানান, পদ্মা-মেঘনায় নৌ-ডাকাতি প্রতিরোধে পুলিশ প্রতিদিন টহল দেয় এবং গ্রেফতারের চেষ্টা করে। কিন্তু নৌ-ডাকাতরা অভিযানের সময় এক থানার সীমানা অতিক্রম করে অন্য থানা সীমানায় চলে যায়।

Leave a Reply