পদ্মার পাড়ে পালিত হচ্ছে ‘চীনা নববর্ষ’

‘চীনা নববর্ষ’ পালিত হয়েছে পদ্মা পাড়ে। শনিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ের মাওয়ার কুমারভোগের বিশেষায়িত ইয়ার্ডে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। চীনা সংস্কৃতির নানা বাদ্যযন্ত্র ব্যবহারে ছন্দে ছন্দে পরিবেশে রুপ নেয় বিশেষেএক রুপে। “ড্রাম মিউজিক” নামের এই অনুষ্ঠানে চীনা শিল্পীরা ১০ ইভেন্ট প্রদর্শন করে। যার প্রতিটিই ছিল আকর্ষণীয় ও মনোমুগ্ধকর।

পদ্মাতীরটি সেজেছিল চীনা সংস্কৃতির আদলে। মঞ্চ সাজ সজ্জা সবকিছুতেই বৈচিত্রতা। তবে মঞ্চের ব্যানারটি ছিল পদ্মা সেতুর ছবি দিয়ে তৈরী। পদ্মা সেতুতে কর্মরত প্রায় ৩শ’ নাগরিকদের জন্য চীনা এ্যাম্বেসী এই অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকতা করে। আয়োজন করে পদ্মা মূল সেতুর ঠিকাদার চায়না মেজর ব্রীজ ইঞ্জিনিয়ারিং গ্রুপ কোম্পানী লিমিটেড এবং চায়না বাংলাদেশ ফেন্ডশীপ সেন্টার, কনফোসিওয়াস ইনস্টিটিউট এট ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা, মিউজিক ডিপার্টমেন্ট অব ইউনিভার্সিটি অব ঢাকা।

চীনা নববর্ষ ১৬ ফেব্রুয়ারি। কিন্তু এর ১৫ দিন আগে এবং ১৫ দিন পরে। অর্থ্যাৎ মাসব্যাপী অনুষ্ঠান হয় এই নববর্ষ ঘিরে। এতে চীনাদের অনবদ্য উপস্থাপনা দর্শকদের তাক লাগিয়ে দেয়। নববর্ষ চীনা শিল্পী তাৎক্ষনিক ছবি অঙ্কন করেও উপহার দেয়।

আগমী ১৬ ফেব্রুয়ারি চীনাদের নববর্ষ শুরু হলেও এর ১৫ দিন আগে থেকে এক মাসব্যাপী চলবে এই উৎসব। চীনের ন্যায় এখানে মাসব্যাপী অনুষ্ঠানাদি না হলেও শনিবার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান চীনা নাগরিকসহ দেশি বিদেশি ও পদ্মা সেতু সংশ্লিষ্টরা প্রাণভরে উপভোগ করেন ভিন্ন মাত্রার এই আয়োজন।

নৃত্য এবং বাদ্যে গানে ছন্দ মকলেল মনকাড়ে। বিকাল ৩টা থেকে পৌনে ২ ঘন্টা ধরে মেতেছিল পদ্মা সেতুর কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ডের পদ্মা পার। পড়ন্ত বিকেলে বিশেষ এক পরিবেশ তৈরী হয়। মঞ্চের পেছেনের ব্যানারটি সাজানো হয়েছিল চাইনিং ভাষা আর পদ্মা সেতুর ছবি দিয়ে। খোলা মঞ্চের এই অনুষ্ঠানটি উপস্থাপন করেন চীনা এক নারী ও এক যুবক। কখনও চীনা, ইংরেজী আবার কখনও ভাঙ্গা ভাঙ্গা বাংলায় উপাস্থান করে ভিন্ন আমেজ তৈরী করে।

এই অনুষ্ঠানটিকে আরো আকর্ষনীয় করে তুলতে এসেছিলেন পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরিচালক মো.শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশের চাইনিজ এ্যাম্বেসির কমার্শিয়াল কাউন্সিলর লি গুয়াং জিন, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রীজের প্রকল্প পরিচালক লিও জিং হুয়া, পদ্মা সেতুর পরমর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প ব্যবস্থাপক রবার্ট এ্যফ্স, নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান আব্দুল কাদের, নির্বাহী প্রকৌশলী (এপ্রোজ) রজ্জব আলী, নির্বাহী প্রকৌশলী (নদী শাসন) সারফুল ইসলাম, উপ সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবির, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মীর নাসিরউদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ প্রেস ক্লাবের বর্তমান সভাপতি রাসেল মাহমুদ, সাংবাদিক এহসান জুয়েল ও ফারহানা মির্জাসহ দেশি বিদেশি অতিথিবৃন্দ।

বিডি২৪লাইভ/এইচকে

Leave a Reply