শিক্ষা ওসাহিত্য সংস্কৃতির আলোর দিশারী: আমাদের আবদুর রব স্যার

আলীম আল রশিদ : মরহুম জনাব আবদুর রব সাহেব উনি আমার শৈশবকাললের শিক্ষক ও খুব প্রিয়জন ছিলেন তিনি। নিজের একান্ত প্রচেষ্টায় রিকাবিবাজার প্রাইমারি মাদ্রাসাকে তিনি ধীরেধীরে জুনিয়র স্কুলে রুপান্তরিত করেছিলেন।

এক পর্যায়ে নিজের প্রিয় ছাত্ররা যখন বিদ্যা শিক্ষা লাভ করে উচ্চ শিক্ষিত হয়েছে তাদের দিয়ে তিনি উচ্চ বিদ্যালয় চালু করেছিলেন।

আমাকে বিনোদপুর স্কুল থেকে এই বিদ্যালয়ে নিয়ে এসেছিলেন আমার পিতাকে বুঝিয়ে। উনি যেমন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে পারতেন তেমনি তিনি ছিলেন সাহিত্য ও সংস্কৃতি অনুরাগী। আজ সে বিষয়ে কিছু তুলে ধরবো।

প্রচণ্ড ভালোবাসতেন আমাকে । উনার উৎসাহ উদ্দীপনা আমায় লিখতে যথেষ্ট সাহায্য করতো। কারণ আমি যা কিছু লিখতাম তিনি সেসব ছাপার মূদ্রণে প্রকাশ করার জন্য নিশ্চয়তা দিতেন তাই।

তাই আমি যা কিছুই লিখতাম আর যেসব বন্ধু বান্ধব লিখতো তাদের লিখা পাশাপাশি হরেগঙ্গা কলেজের স্যারদের লিখা একত্রে সংগ্রহ করে সাজিয়ে গুছিয়ে বিন্যাস করে জমা দিয়ে যেতাম স্যারের বলাকা প্রেসে।

আর একে একে সেসব লিখা আলী ভাই, হাফেজ ও অন্যান্য কম্পোজিটররা কম্পোজ করে রাখতো। সেই লিখা গুলো প্রুফ দেখে জমা দিলে প্রেসে প্রিন্ট হতো সাদা ডিমাই কাগজে। যখন সব গুলো ফর্মা প্রিন্ট হতো তারপর প্রচ্ছদ ব্লক দিয়ে যেতাম স্যারের প্রেসে।

প্রচ্ছদ প্রিন্ট হলে দপ্তরীর নাম মনে নেই উনি যত্ন সহকারে আমাদের সেসব ম্যাগাজিন সংকলন গুলো বাধাই করে বান্ডেল করে বেধে রাখতেন।

প্রেসের বিলের পরিশোধ করার আমাদের হাতে অতো টাকা কখনওই থাকতোনা। তাই স্যার থেকে কিছু ম্যাগাজিন চেয়ে নিতাম।

সেসব বিজ্ঞাপন ওয়ালাদের পৌছে দিয়ে তাদের থেকে অর্থ সংগ্রহ করে ধীরেধীরে টাকা শোধ করে দিতাম স্যারের নিকট আমাদের বকেয়া প্রেসের বিল।

একবার দুইবার নয় অসংখ্যবার এইভাবে আমরা আমাদের সাহিত্য পত্রিকা বেড় করেছি স্যারের এই বলাকা প্রেস থেকে। এক সময় তিন চারটে সাহিত্য লিটল ম্যাগাজিন বেড় হতো রিকারবাজারের মতো ইউনিয়ন থেকে তথা আজকের মিরকাদিম পৌরসভা থেকে।

স্যার আমার প্রত্যেকটি নাটক প্রিন্ট করে বই বেড় করতে চেয়েছেন নিজ দায়িত্বে। কতোবার যে আমায় তিনি অনুরোধ করেছেন তা বলে বুঝাতে পারবোনা। আমি একটি পাণ্ডুলিপিও উনাকে ছাপতে দেইনি। কেননা এইসব পাণ্ডুলিপি ছিল তখন আমার নিকট বিনোদনের সময় কাটানোর প্রয়াস মাত্র।

আজ ভাবি কতো লেখক পাণ্ডুলিপি নিয়ে প্রকাশকের দ্বারে দ্বারে ঘুরে কিন্তু তাতে কোনই কাজ হয়না।
হাসান ফকরী বাবুল এর কিশোর বয়েস থেকে অনেক লিখা এখানেই প্রথম মূদ্রন হয়েছিল এই বলাকা প্রেস থেকে।” মুঠো মুঠো কান্না, এপোয়েন্টমেন্ট লেটার” আর কি কি বই যেনো আজ মনে পড়ছেনা।

আমাদের রিকাবিবাজারের সাহিত্য সংস্কৃতির সমৃদ্ধি বিকাশে আবদুর রব সাহেবের অবদান কখনো অস্বীকার করা যাবেনা।

উনার অবদান না হলে রিকাবিবাজার তথা মিরকাদিম পৌরসভার অনেক গুলো সাহিত্যের তরুণ প্রতিভা এতো সহজে নিজ প্রতিভা বিকাশ করতে পারতো কিনা যথেষ্ট সন্দেহ।
আজ উনি আমাদের মাঝে নেই। যেখানেই থাকুন আল্লাহ উনাকে শান্তিতে রাখুন।

Leave a Reply