“গ্রামীণ সংস্কৃতি ‘ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল’কে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে চাই” মাসানাও ওজাকি, গভর্নর, কোচি প্রদেশ

রাহমান মনি: জাপানের কোচি প্রদেশের জনপ্রিয় উৎসব ‘ইয়সাকো ফেস্টিভ্যাল’কে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার আশা ব্যক্ত করেছেন কোচি প্রদেশের গভর্নর মাসানাও ওজাকি। ‘উষ্ণ আতিথেয়তা এবং আকর্ষণীয় কোচি পরিবার’ শীর্ষক এক সেমিনারে গভর্নর এ আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

২০১৯ সালে অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ রাগবী প্রতিযোগিতা এবং ২০২০ সালে টোকিওতে অনুষ্ঠিতব্য গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক এবং প্যারা অলিম্পিক আসরকে সামনে রেখে জাপান সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এবং স্থানীয় সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় জাপানে বহির্বিশ্বের পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য বিভিন্ন প্রিফেকচার (প্রশাসনিক কাজের সুবিধার্থে জাপানি প্রদেশ বা স্বনির্ভর সরকার) এর পরিচিতি ক্যাম্পেইন শুরু হয় ২০১৬ থেকে।

‘দি সেকেন্ড রিজিওনাল প্রমোশন সেমিনার’-এর এবারের আয়োজনটি ছিল ‘দি চার্ম এন্ড ওয়ার্মথ অফ দি কোচি ফ্যামিলি’ নামে কোচি প্রদেশকে তুলে ধরা হয়।
১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ সোমবার রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন ইকুরাতে আয়োজিত সেমিনারে জাপানে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, কূটনীতিকবৃন্দ, বিশ্ব মিডিয়ার জাপান প্রতিনিধিগণ, জাপান মিডিয়া, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ এবং সংশ্লিষ্ট এলাকার জনপ্রতিনিধিগণ ও বিভিন্ন কর্পোরেট কোম্পানিগুলোর অ্যাম্বাসেডরগণ উপস্থিত ছিলেন।

সেমিনারে একমাত্র বক্তা ছিলেন কোচি প্রদেশের গভর্নর মাসানাও ওজাকি। গভর্নর ওজাকি নিজ প্রদেশ তুলে ধরে দীর্ঘ বক্তব্য রাখেন।

ওজাকি বলেন, জাপানের খাদ্য সংস্কৃতি বলতে সাধারণত সুশি, সাশিমিকে বুঝায়ে থাকে। এই সুশি বা সাশিমি’র প্রকৃত স্বাদ পেতে হলে আপনাকে যেতে হবে কোচিতে। শুধু সাশিমি বা সুশি কেন জাপানের খাদ্য সংস্কৃতির প্রকৃত স্বাদ যেটা কেবল মায়ের হাতের রান্নার সাথেই তুলনা করা যায়, সেই প্রকৃত স্বাদ পাবেন আপনি কোচির খাদ্য সংস্কৃতিতে। সত্যিই বলছি। তবে, কথাগুলো আমার নয়, জরিপের ফলাফল। কথাগুলো জাপানবাসী বিভিন্ন এলাকার জনগণ এবং জাপানে বসবাসরত বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের মধ্যে বিভিন্ন জরিপে গত ৮ বছরের মধ্যে ৬ বার সর্বোচ্চসংখ্যক নাম্বার পেয়ে শ্রেষ্ঠত্ব বজায় রাখতে সক্ষম হয়। কোচি প্রদেশে ফলদ, জলজ এবং উদ্ভিদ, সব ধরনের কৃষি পণ্যই উৎপাদন যেমন বেশি, তেমনি সুস্বাদুও। কারণ এখানকার কৃষিপণ্য বিষমুক্ত। সমুদ্র থেকে যে সকল মৎস্য আহরণ করা হয়ে থাকে তা প্রতিটি মাছ (বড়)ই একটি একটি করে তোলা হয়। জালিতে করে একসাথে তুলতে গেলে একটির গায়ের সাথে আরেকটি সংঘর্ষ হলে মাছের স্বাদ কমে যায়। কেমিক্যাল দিয়ে সবজি চাষ করলে সবজির গুণগত মান কমার সঙ্গে সঙ্গে স্বাদও কমে যায়। তাই এখানকার কৃষিপণ্য প্রাকৃতিক উপায়ে সংগ্রহ করা হয়। তাই, ২০১০, ২০১১, ২০১২, ২০১৩, ২০১৫ এবং ২০১৭ তে কোচির খাবার জাপানব্যাপী জনজরিপে প্রথম স্থান অধিকার করার গৌরব অর্জন করে।

শুধু খাদ্য সংস্কৃতিতে স্বাদের দিক থেকে কোচি যে এক নাম্বার তা কিন্তু নয়। অন্যান্য বিভিন্নভাবেই কোচি জাপানের বিশেষ স্থান অধিকার করে নিয়েছে। যেমন বছরজুড়ে সূর্যের আলো কোচি এক নাম্বারে রয়েছে। গত ৩০ বছর যাবত গড়ে প্রতিবছর ২,১৫৪ ঘণ্টা কোচিতে দিনের সূর্যের আলো পাওয়া যায়। প্রতিবছর বাৎসরিক বৃষ্টিপাতও কোচিতে বেশি হয়ে থাকে। ২০১৪ সালে বাৎসরিক বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ছিল ৩,৬৫৯ মি.মি বৃষ্টিপাত হয়ে জাপানের রেকর্ড বৃষ্টিপাত-এর স্থান করে নিয়েছে, কোচির নিয়োদো নদীর পানি সার্বিকভাবে গত ৫ বছর যাবত ধারাবাহিকভাবে প্রথম স্থানটি দখল করে নিয়েছে। জাপানে আদিকাল থেকে বহমান নদীগুলোর মধ্যে কোচির সীমান্ত নদী প্রথম তিনটির মধ্যে একটি। কোচি-ই একমাত্র প্রদেশ যেখানে ৮৪% ভূমি কৃষি উপযোগী অথবা বনাঞ্চল গড়ার উপযোগী। এছাড়াও কোচি এলাকা প্রতিহেক্টর জমিতে আনুপাতিক হারে জাপানের এক নাম্বার উৎপাদনসম্পন্ন।

গভর্নর ওজাকি সেমিনারে আরো বলেন, কোচিতে উৎপাদনকৃত মৎস্য জাপানের ৭৯২টি স্টোরের যোগান দিয়ে থাকে যার মধ্যে ৩১৭টি কেবল টোকিওতে। এছাড়া বহির্বিশ্বে ১৪টি স্টোরে কোচির মাছ পাওয়া যাচ্ছে। এগুলো হলো সিঙ্গাপুর ১০টি, হংকং ২টি, থাইল্যান্ড ১টি এবং ইন্দোনেশিয়া ১টি।

তিনি বলেন, অন্য শহরগুলোতে সুশি, সাশিসি এবং অন্যান্য খাবার যেখানে ভিন্ন ভিন্ন সার্ভ করা হয় সেখানে কোচিতে একসঙ্গেই সবগুলোর সমন্বয় পাবেন আর এটাই হলো কোচির বিশেষত্ব।

কোচিতে উৎপন্ন মদ এখন বিশ্বজুড়ে খ্যাতি। আগে হুইসকি বলতে কিংবা ভোদকা বলতে আমরা যেমন নির্দিষ্ট কোনো দেশকে বুঝাতাম এখন কোচির মদ বিশ্বব্যাপী স্থান করে নিয়েছে।

গভর্নর আরও বলেন, কোচি যেমন প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে অপরূপ, শস্য ভা-ার কিংবা কৃষিজাত পণ্যে জাপানে বিশেষ স্থান করে নিয়েছে তেমনি প্রাকৃতিক দুর্যোগেও জাপানের মধ্যে কোচি সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে থাকে। টাইফুন, সুনামি কিংবা অতিবৃষ্টি কোচিতে নিত্যনৈমিত্তিক ঘটনা এবং জাপানে এক নাম্বার প্রাকৃতিক দুর্যোগপূর্ণ এলাকা। গত দশ বছরে ১১ বার ভূমি ধসের ঘটনা ঘটেছে কোচি শহরে। ভূমিকম্প এবং এর ফলে সৃষ্ট সুনামি সবচেয়ে বেশি আঘাত হানে কোচিতে। গত ৩০ বছরে জাপানে ভূমিকম্পের ৭০-৮০% কোচিতে সংঘটিত হয়েছে এবং নানকাই ভূমিকম্প কোচিতে হয়েছে। জাপানের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৩৪ মিটার উঁচু সুনামির রেকর্ডটিও কিন্তু এই কোচি প্রদেশেরই। এই জন্যই গত ২০১৬ সালের নভেম্বর ২৫-২৬ কোচিতে আন্তর্জাতিকভাবে হাইস্কুলের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে একটি ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়। এতে ৩০টি দেশের ৩৬১টি উচ্চ বিদ্যালয় অংশ নেয়। ২০১৭ সালে জাপানের কোচির ৫৩টি প্রতিষ্ঠানের ১৯৯ জন শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে আরেকটি সামিট অনুষ্ঠিত হয়।
গভর্নর ওজাকি বলেন, জাপানের ইতিহাসে কোচি বিশেষ স্থান দখল করে আছে। কোচিতে জন্মগ্রহণকারী সাকামোতো রিওমা’র কথা শুধু জাপানবাসীই নয়, বিশ্ববাসী জানে। সাকামোতো রিওমা (১৮৩৪-১৮৬৭)’র দেয়া ৮টি উপদেশ আধুনিক গণতন্ত্রে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। এই জন্য সাকামোতোকে মডার্ন জাপানের জনক বলা হয়ে থাকে। জাপানের বাহিরে বহির্বিশ্বেও তিনি একজন সম্মানিত এবং তার প্রচুর শুভাকাক্সক্ষী রয়েছে।

কোচির মাঙ্গা শিল্পী জাপান বিখ্যাত। বলা হয়ে থাকে জাপানের নাম্বার ওয়ান।

জাপানের কোচি প্রদেশের বিশেষ উৎসব ‘ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল’ জাপান নাম্বার ওয়ান। জাপানে যতগুলো উৎসব হয়ে থাকে তার মধ্যে ইয়সাকোই উৎসব সবচেয়ে বড়, আকর্ষণীয় এবং আনন্দদায়ক। সবচেয়ে বেশিসংখ্যক লোক এ উৎসবে অংশ নিতে পারে।

কোচির ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল ১৯৫৪ সালে শুরু হয়। গত ৬৪ বছরে জাপানের সবচেয়ে জনপ্রিয় উৎসবে পরিণত হয়। জাপানের মোট ২০০টি এলাকাতে এই ফেস্টিভ্যাল হয়ে থাকে। এপ্রিল থেকে শুরু হয়ে নভেম্বর পর্যন্ত এলাকা অনুযায়ী এ উৎসব পালিত হয়ে থাকে। টোকিওর অভিজাত এলাকা অমোতেসানদো এবং অদাইবাতে বেশ জাঁকজমকপূর্ণ এবং উৎসবমুখর পরিবেশে এপ্রিল মাসে তা পালিত হয়ে থাকে।

জাপান ছাড়াও আরও ২৬টি দেশে ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল আয়োজন হয়ে থাকে। এ বছর ৭ম বারের মতো ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল টিম আমরা বহির্বিশ্বে পাঠিয়েছি। ইচ্ছা করলে আপনিও আপনার মাধ্যমে এই ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যালকে আপনার দেশে নিয়ে যেতে পারেন। সেই ক্ষেত্রে আপনাদের সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিচ্ছি। আমরা চাই ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল সারা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে। সেই লক্ষ্যেই আমরা কাজ করছি। আশা করি আমাদের এই উদ্যোগ সাফল্যের মুখ দেখবে অদূর ভবিষ্যতে।

৫টি কারণে ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল জনপ্রিয়তা পেয়েছে। তার মধ্যে প্রথমত এই ফেস্টিভ্যালের নির্দিষ্ট কোনো আকার আকৃতি বা নির্দিষ্ট কোনো ডিজাইন নেই। দ্বিতীয়ত এই উৎসবের নির্দিষ্ট কোনো মিউজিক নেই। অংশ নেয়া দলগুলো তাদের নিজস্ব বাদ্যযন্ত্র নিয়ে সমান তালে মিউজিক দিতে পারে। তৃতীয়ত নির্দিষ্ট কোনো নাচ নেই। অংশ নেয়া দলগুলো তাল-লয় ঠিক রেখে এলাকাভিত্তিক নৃত্য ঠিক করতে পারবে। চতুর্থত এই উৎসবে অংশ নেয়া দলগুলোর নির্দিষ্ট কোনো ড্রেসকোড নেই। নিজেরা নিজেদের মতো পোশাক নির্ধারণ করতে পারবে। কাজেই এই উৎসবে অংশ নিতে ধর্মীয় কোনো বিধিনিষেধ কাজ করবে না বা বাধা হয়ে দাঁড়াবে না এবং পঞ্চমত অঙ্গসজ্জা বা নির্দিষ্ট কোনো সাজ, পরিবেশ বা সীমানা নেই। তাই যে কোনো দেশে, যে কোনো পরিবেশেই ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল পালন করা যায়।

২০১৬ সালে সুইডেন, নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, ফ্রান্স, পোল্যান্ড, কানাডাসহ মোট ৬টি দেশে, ২০১৭ সালে কোরিয়া, ইন্দোনেশিয়া, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়াসহ মোট ৭টি দেশে ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল শুরু হয়েছে। এ বছর আমেরিকা, প্যারাগুয়ে এবং ব্রাজিলে আমরা শুরু করতে যাচ্ছি। ২০১৯ সালে আপনার মাধ্যমে আপনার দেশেও শুরু করা যেতে পারে। তাই, আর দেরি নয়, যোগাযোগ করুন আপনার দেশের জন্য।
আগামী ২০২০ সালে জাপানে অনুষ্ঠিতব্য টোকিও অলিম্পিক এবং প্যারা অলিম্পিক আয়োজনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাপানের গ্রামীণ সংস্কৃতির অংশ হিসেবে কোচির ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যাল উপভোগ করার সুযোগ পাবে বিশ্ববাসী। আপনি তার আগেই যদি পেতে চান তাহলে এ বছর আগস্ট মাসের ৯, ১০, ১১ ও ১২ তারিখ ইয়সাকোই জাপান টুর্নামেন্ট হবে। ১২ তারিখ তার ফাইনাল দেখতে আপনিও কোচি চলে আসুন।

সেমিনার শেষে কোচি প্রদেশ এবং জাপান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের যৌথ উদ্যোগে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাপান সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোনো তারো। এছাড়াও কোচি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য গেন নাকাতানি, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, কূটনীতিকবৃন্দ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ও আঞ্চলিক প্রদেশসমূহের প্রতিনিধিগণ এবং বিশ্ব মিডিয়ায় জাপান প্রতিনিধিগণ অভ্যর্থনা আয়োজনে অংশ নেন। বাংলাদেশ দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব মো. বেলাল হোসেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আয়োজিত অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

স্বাগত ও শুভেচ্ছা বক্তব্যে দোভাষী থাকা সত্ত্বেও পররাষ্ট্রমন্ত্রী কোনো নিজেই প্রথমে ইংরেজি এবং পরে জাপানিজ ভাষায় বক্তব্য রাখেন। একজন জাপানি মন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সকলেই প্রশংসা করেন। কোচির গভর্নর মাসানাও ওজাকি বলেন, এমন একজন মন্ত্রী পেয়ে সত্যিই আমরা গর্বিত। মন্ত্রী কোনোর নেতৃত্বে জাপান অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলে গভর্নর আশাবাদ ব্যক্ত করেন। সংসদ সদস্য নাকাতানিও মন্ত্রীর ভূয়সী প্রশংসা করেন।

কোনো তারো বলেন, আমার পূর্বসূরি কিশিদা এই প্রকল্পটি শুরু করেন। আমি আজকেই প্রথমবারের মতো আপনাদের সামনে উপস্থিত হয়েছি। আশাকরি এই ধারা অব্যাহত থাকবে।

অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে কোচির খাদ্য সংস্কৃতির পাশাপাশি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও উপভোগ করেন অতিথিরা। একপর্যায়ে বিদেশি অতিথিদের নিয়ে ইয়সাকোই ফেস্টিভ্যালের নৃত্যে অংশ নেন কোচির অভিজ্ঞ শিল্পীরা।

rahmanmoni@gmail.com

সাপ্তাহিক

Leave a Reply